প্রবাসী শ্রমিকের পরিবার অধিকার বঞ্চিত

সুমন দত্ত: প্রবাসী শ্রমিকের পাঠানো রেমিটেন্স বাংলাদেশের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে চলেছে। অথচর তাদের পরিবার নানা সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত।

সেই অভিবাসী শ্রমিক ও তাদের পরিবারদের অধিকার রক্ষায় সোমবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক আলোচনা সভার আয়োজন করেছে WARBE Deelepoment Foundation নামক এক বেসরকারি এনজিও সংস্থা।

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশে অভিবাসী মহিলা শ্রমিকের অ্যাসোসিয়েশনের মিস এসকে রুমানা, অভিবাসী অধিকার ফোরামের ন্যায্যমূল্য আহসান, ন্যাশনাল ডোমেস্টিক ওমেন ওয়ার্কাস ইউনিয়নের মুর্শিদা আকতার নাহার, WARBE এর সাধারণ সম্পাদক ফারুক আহমেদ ও ওমর ফারুক।

বক্তারা বলেন, বাংলাদেশের শ্রমিকরা ১৬৫টি দেশে কর্মরত রয়েছে। এদের সংখ্যা হবে আনুমানিক ১ কোটি ২০ লক্ষ। প্রতি বছর এদেশ থেকে বহু নারী পুরুষ বিদেশে কাজ করতে যান। জাতীয় অর্থনীতিতে তারা রাখছেন গুরুত্বপূর্ণ অবদান।

বাংলাদেশ ব্যাংকের হিসাব মতে গত ২০১৭-২০১৮ অর্থ বছরে প্রবাসীদের রেমিটেন্স পাঠানো হার ৬০ হাজার কোটি টাকা। অথচ এই প্রবাসী শ্রমিকদের পরিবার নানা রকম অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। এমনটা হওয়ার কথা ছিল না। প্রবাসী শ্রমিক পরিবারের সদস্যদের দেখভাল করার দায়িত্ব নিয়োগকারী ও প্রেরণকারী উভয় দেশের। অধিকাংশ ক্ষেত্রে দেখা যায় প্রবাসী শ্রমিকের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়গুলো গুরুত্ব দিয়ে দেখা হয় না।

১৯৪৮ সালে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে মানবাধিকারের সাধারণ ঘোষণা পত্রে ১৩ ও ২৩ অনুচ্ছেদে বলা আছে। যেকোনো শ্রমিক নিজ দেশ অথবা অন্য দেশ ছেড়ে যাবার অধিকার রাখে। অথবা স্বদেশ পরিবর্তন করার ক্ষমতা রাখে

২৩ নম্বর অনুচ্ছেদে বলা আছে, প্রত্যেক শ্রমিক নিজের ও পরিবারের মানবিক মর্যাদা রক্ষায় ন্যায্য ও অণুকুল পারিশ্রমিক পাওয়ার অধিকারী।