সম্পদ বাড়লেও আয় কমেছে শিক্ষামন্ত্রীর

নিউজ ডেস্ক:   শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের বার্ষিক আয় ১৬ লাখ ৩০ হাজার ২০৫ টাকা। পাঁচ বছর আগে ছিল ১৭ লাখ ২২ হাজার ৩০০ টাকা। অর্থাৎ তাঁর বার্ষিক আয় কমেছে। অবশ্য আয় কমলেও তাঁর অস্থাবর সম্পদ বেড়েছে।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিলেট-৬ আসন থেকে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন নুরুল ইসলাম নাহিদ। মনোনয়নপত্রের সঙ্গে যে হলফনামা তিনি জমা দিয়েছেন, তার সঙ্গে পাঁচ বছর আগে দশম সংসদ নির্বাচনের সময় দেওয়া হলফনামা পর্যালোচনা করে এই তথ্য পাওয়া গেছে।

হলফনামার তথ্য অনুযায়ী, শিক্ষামন্ত্রীর ১ কোটি ৫৮ লাখ ১৬ হাজার ৯ টাকার অস্থাবর সম্পদ রয়েছে। পাঁচ বছর আগে ছিল ৯৮ লাখ ৩০ হাজার ৫৫০ টাকার।

শিক্ষামন্ত্রীর হাতে নগদ রয়েছে ৩৫ লাখ ৬৪ হাজার ৭০৫ টাকা। ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে জমা আছে ৩৯ লাখ ৭২ হাজার ৯৮৩ টাকা এবং ২০ লাখ টাকা বিভিন্ন ধরনের সঞ্চয়পত্রে বা স্থায়ী আমানত হিসেবে বিনিয়োগ করা আছে। স্বর্ণ, অন্যান্য মূল্যবান ধাতু ও পাথর নির্মিত ৭৫ হাজার টাকার অলংকার রয়েছে শিক্ষামন্ত্রীর। তবে স্ত্রীর অলংকারের মূল্য তাঁর জানা নেই বলে হলফনামায় উল্লেখ করা হয়েছে।

হলফনামা অনুযায়ী, শিক্ষামন্ত্রীর স্ত্রীর ৫৮ লাখ ১৭ হাজার ৩০ টাকার অস্থাবর সম্পদ রয়েছে।

হলফনামা অনুযায়ী, শিক্ষামন্ত্রীর বার্ষিক আয়ের মধ্যে পেশা থেকে আয় ১২ লাখ ৬০ হাজার টাকা। শেয়ার ও সঞ্চয়পত্র থেকে ৩ লাখ ২০ হাজার ২০৫
টাকা এবং কৃষি খাত থেকে আয় আগের মতোই ৫০ হাজার টাকা। দশম সংসদ নির্বাচনের সময় শিক্ষামন্ত্রী তাঁর যুক্তরাজ্যপ্রবাসী ভাই নজরুল ইসলামের কাছ থেকে ১০ লাখ টাকা ঋণ নিলেও এবার কোনো দায় নেই তাঁর।

হলফনামার তথ্য অনুযায়ী, শিক্ষামন্ত্রী বিএ পাস। তাঁর নামে কোনো মামলা নেই।