সিআইবি রিপোর্ট সংগ্রহ করে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে: এইচ টি ইমাম

নিউজ ডেস্ক:   বিএনপির নয়াপল্টন অফিস এখন মিথ্যাচার কেন্দ্রে রুপান্তরিত হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক এবং দলের অন্যতম মুখপাত্র ড. হাছান মাহমুদ এমপি।

বুধবার ধানমন্ডিস্থ আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে নির্বাচনী প্রচার উপ কমিটির নিয়মিত সভা শেষে সাংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন।

তিনি বলেন, বিএনপির নয়াপল্টন কার্যালয়ে রিজভী আহমেদ এবং তার অবর্তমানে বিএনপির অন্যান্য নেতারা সকাল বিকাল সংবাদ সম্মেলনে মিথ্যাচার করে সেটিকে রাজনৈতিক কার্যালয়ের পরিবর্তে মিথ্যাচার কেন্দ্রে রুপান্তরিত করেছে।

বিএনপির আটশ নমিনেশন দেওয়ার মূল উদ্দেশ্য মনোনয়ন বাণিজ্য মন্তব্য করে সাবেক বন ও পরিবেশ মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেন, বাংলাদেশের ইতিহাসে কোন রাজনৈতিক দল আটশ জনকে নমিনেশন দেয়নি এবং বাঁচায়ের পর পাচঁশত ছাপ্পান্ন জনের মনোনয়ন বৈধ হয়েছে এমন ঘটনা ঘটেনি। নমিনেশন দেওয়ার ক্ষেত্রে তারা (বিএনপি) যার কাছ থেকে চাঁদা পেয়েছে তাকেই নমিনেশন দিয়েছে এবং কিছু কিছু নির্বাচনী এলাকায় পাঁচজনকেও নমিনেশন দিয়েছে। নমিনেশন দেওয়ার ক্ষেত্রে তারা (বিএনপি) দেখেনি যে তিনি ঋণখেলাপি কিনা, তিনি অগ্নি সন্ত্রাসের দায়ে দন্ডপ্রাপ্ত আসামি কিনা এগুলো কোন কিছু না দেখেই নির্বিচারে নমিনেশন দিয়েছে।

অন্যদিকে, আওয়ামী লীগ শুরু থেকেই মনোনয়ন দেওয়ার ক্ষেত্রে সতর্ক ছিলো এবং মনোনয়ন প্রত্যাশীদের দরখাস্ত আহ্বানের সময় কেউ মামলার আসামি কিনা, কেউ ঋণখেলাপী কিনা এগুলো উল্লেখ করতে বলা হয়েছিল। এরপর মনোনয়নের খসরা তালিকা হওয়ার পর প্রত্যেক প্রার্থীর সিআইবি রিপোর্ট সংগ্রহ করে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। এরপরও আওয়ামী লীগের অনেকের মনোনয়ন বাতিল হয়েছে। এমনকি জাতীয় পার্টির মহাসচিবের মনোনয়নও বাতিল হয়েছে।

এসময় প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম বলেন, বাংলাদেশের নির্বাচন কমিশন এবং নির্বাচন পদ্ধতির সংস্কার ও উন্নয়ন করেছে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ আর অন্য কোন দল নয়। আর এটি শুরু করেছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। সুতরাং আপনারা সাংবাদিকসহ সকলে নির্বাচন কমিশনকে শক্তিশালী করার জন্য সহায়তা করুন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম, আওয়ামী লীগের উপ প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন, তারেক সুজাত, চিত্র নায়ক রিয়াজ, ফেরদৌস, সাকিল খান, চিত্র নায়িকা শমি কাইসার, অরুনা বিশ্বাসসহ নির্বাচনী প্রচার উপ কমিটির নেতৃবৃন্দ প্রমুখ।