রাজাকার ভূমিদস্যু দুর্নীতিবাজদের মনোনয়ন দেবেন না

সুমন দত্ত: স্বাধীনতা বিরোধী, মানবতা বিরোধী, রাজাকার, ভূমি দস্যু, দুর্নীতিবাজ, মৌলবাদী সাম্প্রদায়িক ব্যক্তিদের মনোনয়ন না দিতে দেশের রাজনৈতিক দলগুলোকে অনুরোধ করেছে হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ ও ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি। বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেসক্লাবের এক অনুষ্ঠানে এই আহবান জানায় সংগঠনের দুটির সভাপতি অ্যাডভোকেট রানা দাশ গুপ্ত ও শাহরিয়ার কবির।

অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, যারা বাংলাদেশে রাজনীতি করবেন তারা দেশের সংবিধানকে সামনে রেখে নির্বাচন করবেন। সংবিধানে ধর্মনিরপেক্ষতা, সমাজতন্ত্র, বাঙালি জাতীয়তাবাদের কথা বলা হয়েছে। এসবকে আক্রমণ করে যারা এদেশে রাজনীতি করে তাদেরকে ভোট দেবেন না। এরা দেশকে এক জঙ্গি রাষ্ট্রে পরিণত করতে চায়। আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টিসহ সব রাজনৈতিক দলের প্রতি এই আহবান জানানো হয়। নির্বাচনে সাম্প্রদায়িক প্রচারণা যাতে চালানো না হয় এজন্য ওয়াজ বন্ধ রাখার দাবি জানান তারা। কারণ ওয়াজের মধ্যে অনেকে রাজনৈতিক দলের প্রচারণা চালান।

এছাড়া প্রত্যেক রাজনৈতিক দলের কাছে ১২ দফা দাবি জানিয়েছেন তারা। দাবি গুলো হচ্ছে ১. রাজনৈতিক দলগুলো সাম্প্রদায়িক রাজনীতি ও সন্ত্রাসকে প্রশ্রয় দেবে না। ক্ষমতায় গেলে জঙ্গি ও মৌলবাদকে কঠোরভাবে দমন করবে। ২. সংখ্যালঘু সুরক্ষা আইন করতে হবে। ৩. নির্বাচনী ইশতেহারে সংখ্যালঘু কল্যাণ মন্ত্রণালয় এবং জাতীয় সংখ্যালঘু কমিশন গঠন করার প্রতিশ্রুতি থাকতে হবে। ৪. কোটা সংস্কার করে মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের জন্য ১৫% ও হরিজন-দলিত, তৃতীয় লিঙ্গ, প্রতিবন্ধী ও ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর জন্য শিক্ষাগত যোগ্যতা অনুসারে ৫% সংরক্ষণ ব্যবস্থা থাকতে হবে। ৫. পার্বত্য শান্তি চুক্তি ও পার্বত্য ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তি করণ দ্রুত বাস্তবায়ন করতে হবে। ৬. অর্পিত সম্পত্তি আইন দ্রুত বাস্তবায়ন করতে হবে। ৭. নারীনীতি প্রণয়ন করতে হবে ৮. মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় সংস্কৃতি নীতি প্রণয়ন করতে হবে। ৯. যুদ্ধাপরাধীর বিচার ২০২৪ সালের মধ্যে শেষ করতে হবে। ১০. জামাতিদের নিষিদ্ধ করতে হবে। ১১. সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক সব আইন বাতিল করতে হবে। ১১. সব প্রতিষ্ঠানে সব সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিত্ব যোগ্যতা অনুসারে নিশ্চিত করতে হবে।