নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক প্রতিবাদ দিবস নারীপক্ষের

?

নিউজ ডেস্ক: নারীপক্ষ’র উদ্যোগে রবিবার, “নারীর স্বাধীন চলাফেরায় চাই নিরাপত্তা”- এই প্রতিপাদ্য নিয়ে ঢাকা এবং একইসাথে দেশের আরো ৫৪টি জেলা শহরে দুর্বার নেটওয়ার্ক ও সহযোগী সংগঠন এর মাধ্যমে ‘নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক প্রতিবাদ দিবস’ পালন করা হয়।

এ উপলক্ষে নারীপক্ষ ঢাকায় নিজ কার্যালয়ের সামনে বিকাল ৪টা থেকে ৫টা পর্যন্ত অবস্থান কর্মসূচি পালন করে। অবস্থান কর্মসূচিতে নারীর স্বাধীন চলাফেরার অধিকার সংক্রান্ত বিভিন্ন শ্লোগান লেখা প্ল্যাকার্ড বহন করা হয়।

কর্মসূচি চলাকালে নারীপক্ষ’র বক্তব্য সম্বলিত প্রচারপত্র বিতরণ করা হয়। একইভাবে ঢাকার বাইরে দুর্বার নেটওয়ার্ক ও সহযোগী সংগঠন ৫৪টি জেলা শহরে কর্মসূচি পালন করে।

গতানুগতিক জীবনে নারীর ভূমিকা মেয়ে, স্ত্রী, মা ও বোন। নারী এই ভূমিকা থেকে বের হতে চাইলে সমাজ তা সহজে মেনে নেয় না। এই মেনে না নেয়ার জন্য তাকে নানাভাবে হেনস্তা ও আক্রমণের শিকার হতে হয়।

আজ নারী প্রমাণ করেছে তার মেধা, দক্ষতা ও যোগ্যতা। এরপরেও নারী পাচ্ছেনা স্বাধীন জীবন। বার বার আঘাত আসছে জীবনের উপর, শরীরের উপর। এই আঘাত ও আঘাতের হুমকি সঙ্কুচিত করে দিচ্ছে নারীর চলাচলকে, জীবনের ব্যাপ্তিকে। একটি ভয় নিয়ে প্রতিদিন রাস্তায়, ঘরে-বাইরে সর্বত্র জীবন কাটাতে হয় নারীকে। নারী স্বাধীন সত্ত্বা হিসেবে স্ব-ইচ্ছায় যেকোনো সময়, যেকোনো জায়গায় যেকোনো পরিস্থিতিতে অবাধে চলাফেরা করতে পারবে।

আন্তর্জাতিক মানবাধিকার ঘোষণার ধারা-১ এ বলা আছে, “সমস্ত মানুষ স্বাধীনভাবে সমান মর্যাদা এবং অধিকার নিয়ে জন্মগ্রহণ করে।” স্বাধীনভাবে চলাফেরা করাও এর একটি শর্ত। নারীর জীবনের জন্য এই শর্তের বাস্তবায়ন পরিবার সমাজ বা রাষ্ট্র ব্যবস্থায় নেই।

নারীর এই স্বাধীন চলাফেরায় নিরাপত্তা দেয়ার দায়িত্ব রাষ্ট্রের। তাই রাষ্ট্রের কাছে আমরা নারীর স্বাধীনভাবে চলাফেরার অধিকার নিশ্চিত করার দাবি করছি। আমরা বিশ্বাস করি, নারীর স্বাধীনভাবে চলাফেরার সহায়ক পরিবেশ সমাজকে সৃষ্টি করতে হবে। আমাদের শ্লোগান, “পথে-ঘাটে বাসে-ট্রেনে, নারীর স্থান সবখানে”- এবং তা কেবল দিনের বেলায় নয়, দিনে-রাতে সব সময়ের জন্য। তাই “রাতের বেড়া ভাঙব, স্বাধীনভাবে চলব।” আমরা কিছুতেই পিছপা হব না। নারীর জন্য একটি মর্যাদাপূর্ণ সমাজ তৈরিতে নারী-পুরুষ এক সাথে আওয়াজ তুলব, সংঘবদ্ধভাবে রুখে দাঁড়াব।