অতিরিক্ত ফি আদায়ের অভিযোগের প্রতিবাদে, প্রধান শিক্ষকদের সংবাদ সম্মেলন

মোঃ শফিকুল ইসলাম মিন্টু গৌরীপুর (ময়মনসিংহ) সংবাদদাতাঃ
ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলায় এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফরম পূরণে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ফি আদায়ের অভিযোগে উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মোঃ মিজানুর রহমানের নেতৃত্বে সংবাদ সম্মেলন ও স্মারকলিপি পেশের প্রতিবাদে উপজেলার প্রধান শিক্ষক ও অধ্যক্ষগণ সংবাদ সম্মেলন করেছেন। শুক্রবার (৯নভেম্বর) গৌরীপুর প্রেসক্লাবে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে ২১জন প্রধান শিক্ষক ও অধ্যক্ষ স্বাক্ষরিত একটি লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন এনামুল হক সরকার। এতে বলা হয়, ৭ নভেম্বর মোঃ মিজানুর রহমানসহ কতিপয় ব্যক্তি কর্তৃক গৌরীপুর উপজেলার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহে এসএসসি ও দাখিল পরীক্ষার ফরম পূরনে অতিরিক্ত ফি নেয়া হচ্ছে মর্মে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে একটি অভিযোগ দায়ের করেন। উক্ত অভিযোগটি মিথ্যা ও ভিত্তিহীন এবং এতে স্থানীয় শিক্ষক সমাজের মর্যাদা ক্ষুন্ন হয়েছে এবং শিক্ষক সমাজ মর্মাহত ও ক্ষুব্দ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করছে। গৌরীপুরসহ সারা দেশের বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে স্থানীয় সংসদ সদস্যগণের মনোনীত প্রতিনিধিরাই সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করে থাকেন এবং প্রতিষ্ঠান প্রধানগণ এসএমসির সিদ্ধান্তক্রমে যাবতীয় কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকেন। নির্ধারিত ফি’র অতিরিক্ত ফি বলতে বিভাগীয় ও জেলা শহরগুলোতে ফরম পূরণে ধার্যকৃত ৭ থেকে ১০ হাজার টাকাকে বুঝায়। কোন অবস্থায় উপজেলা পর্যায়ে ২১শ থেকে ২৩শ টাকাকে বুঝায় না। বিজ্ঞান শাখায় বোর্ড নির্ধারিত ফি ১৮০০ টাকা, মানবিক ও ব্যবসায় শিক্ষা শাখায়-১৬৮০ টাকা, তিন মাসের বেতন, মিলাদ, বিদায়ানুষ্ঠান, অনলাইন বিবিধ খরচ সমন্বয়ের জন্য অতি সামান্য ফি এর সাথে ধরা হয়ে থাকে। শিক্ষার্থীদের নিকট থেকে আদায়কৃত অর্থের রশিদ দেয়া হয়না এমন অভিযোগ ভিত্তিহীন। বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের স্বার্থে সুষ্ঠু পাঠদান নিশ্চিতকল্পে খন্ডকালীন শিক্ষক নিয়োগ করে শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করা ও নিয়োগকৃত খন্ডকালীন প্রতি শিক্ষককে ৪/৫ হাজার টাকা ভাতা প্রদান করতে হয়, যা শিক্ষার্থীদের নিকট থেকে আদায়কৃত অর্থের মাধ্যমে সমন্বয় করা হয়ে থাকে।

উল্লেখ্য সরকারী বিধি মোতাবেক কোন বেসরকারী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের এসএমসির সভাপতি জাতীয় সংসদ সদস্য কতৃক মনোনীত হয় না। প্রত্যেকেই এসএমসির সদস্যগণ দ্বারা সভাপতি নির্বাচিত হয়ে থাকেন। বোর্ড নির্ধারিত ফি বিজ্ঞান শাখায় ১৭৭০ টাকা, মানবিক ও ব্যবসায় শিক্ষা শাখায়-১৬৮৫০ টাকা। মহামান্য হাইকোর্টের নির্দেশ রয়েছে বোর্ড নির্ধারিত ফি’র অতিরিক্ত কোন অর্থ আদায় করা যাবে না। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন গৌরীপুর অগ্রদূত নিকেতন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ম. নুরুল ইসলাম, ইসলামাবাদ আলিম মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মো: রুকুন উদ্দিন, কিল­াবোকাইনগর মাদ্রাসার সিনিয়র মাদ্রাসার অধ্যক্ষ ছাইদুল হক, মনাটি উচ্চ বিদ্যালের প্রধান শিক্ষক মো: শাহজাহান, ভুটিয়ারকোনা আদর্শ উচ্চ বিদ্যালের প্রধান শিক্ষক গোলাম মোহাম্মদ, বালিজুড়ী উচ্চ বিদ্যালের প্রধান শিক্ষক মো: আব্দুল মজিদ, শ্যামগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালের প্রধান শিক্ষক মো: মিজানুর রহমান, লামাপাড়া আদর্শ উচ্চ বিদ্যালের প্রধান শিক্ষক মো: শাহজাহান, নূরুল আমিন খান উচ্চ বিদ্যালের প্রধান শিক্ষক মো: আজিজুল হক, ড. এম আর করিম উচ্চ বিদ্যালের প্রধান শিক্ষক মো: সাইফুল ইসলাম. সহর বানু বালিকা উচ্চ বিদ্যালের প্রধান শিক্ষক মো: মন্জুরুল হক, তালে হোসেন খান উচ্চ বিদ্যালের প্রধান শিক্ষক মো: আবুল হাসেম, মাইজহাটি উচ্চ বিদ্যালের প্রধান শিক্ষক মো: আশরাফুল, মাওহা উচ্চ বিদ্যালের প্রধান শিক্ষক শফিকুল ইসলাম, লংকাখলা উচ্চ বিদ্যালের প্রধান শিক্ষক কামাল হোসেন, রামগোপালপুর পিজেকে উচ্চ বিদ্যালয়ের সহ: প্রধান শিক্ষক মো: মিজানুর রহমান প্রমুখ।

ঢাকানিউজ২৪ডটকম/জাহিদ