ফল বিপর্যয়ে ঢাবিতে অধিভুক্ত ৭ কলেজের পরীক্ষার্থীরা

সুমন দত্ত: উচ্চ শিক্ষায় ফলাফল বিপর্যয়ের ঘটনা ঘটেছে। সম্প্রতি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধিভুক্ত হওয়া রাজধানীর ৭ কলেজের ৪র্থ বর্ষের পরীক্ষার্থীরা এই ফলাফল বিপর্যয়ের শিকার হয়েছে বলে জানিয়েছে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা।

বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ৭ কলেজের শিক্ষার্থীরা এ নিয়ে প্রতিবাদ সভার আয়োজন করে। গত অক্টোবর মাসে ২০১২-১৩ শিক্ষাবর্ষের ছাত্রছাত্রীদের অনার্স ৪র্থ বর্ষের ফলাফল ঘোষণা করা হয়। এক সময়ে ফল ঘোষণা রেওয়াজ থাকলেও সেটা এবার মানা হয়নি। একেক বিভাগের একেক সময়ে ফল ঘোষণা করা হয়। এতে বিভিন্ন বিভাগে ফল বিপর্যয়ের খবর বেরিয়ে আসে।

কেন এমন ফল বিপর্যয়ের ঘটনা ঘটলো? আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা জানায় পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ও খাতার সঠিক মূল্যায়ন হয়নি। এজন্য এই ফল বিপর্যয়ের ঘটনা ঘটেছে।

তিতুমীর কলেজের এক শিক্ষার্থী বলেন, তাদের কলেজের ইংরেজি বিভাগে ২২৫ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষা দিয়েছিল। তার মধ্যে ফেল করেছে ১৯০ জন। বিভাগে সেরা ছাত্রী সাদিয়া আকতার মৌ সেও এই পরীক্ষায় ফেল করেছে। অথচ সে বিগত ৩ টি পরীক্ষায় সিজিপিও ৩ ঊর্ধ্বে পেয়ে ফাস্ট ক্লাস সমমানের নম্বর পেয়েছিল।

সবচেয়ে মজার বিষয় ফল ঘোষণায় পরীক্ষার্থীরা দেখতে পায় তিতুমীরের ইংরেজি বিভাগে যারা ফেল করেছে তারা এক সিরিয়ালে ফেল করেছে। আর যারা পাস করেছে তারা এক সিরিয়ালে পাস করেছে। এতে ছাত্রছাত্রীদের সন্দেহ পরীক্ষার খাতা সঠিকভাবে মূল্যায়ন হয়নি। তাই তারা নতুন করে খাতা মূল্যায়নের দাবি জানান।

এছাড়া আরো জানা গেল বদরুননেচ্ছা কলেজে রসায়নে সবাই ফেল করেছে। যা কলেজের শিক্ষার্থীরা মেনে নিতে পারছে না।

ইডেন কলেজের ছাত্রীদের দাবি তাদের খাতার সঠিক মূল্যায়ন হোক। গণহারে ফেল করিয়ে সব দোষ শিক্ষার্থীদের ওপর চাপিয়ে দেয়া অযৌক্তিক বলে দাবি করেন তারা। প্রকাশিত রেজাল্ট বাতিল চেয়েছেন তারা।

ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থীরা সঠিক প্রশ্নপত্র প্রণয়নের দাবি জানিয়েছেন। প্রহসনমূলক শিক্ষা ব্যবস্থা তাদের ওপর চাপিয়ে দেয়া হচ্ছে বলে তারা মত দেন।

শিক্ষার্থীরা ফলাফল দ্রুত ঠিক করে মাস্টার্সে ভর্তির সুযোগ চেয়েছেন।