নৌকার হয়ে প্রচারে নামছে চলচ্চিত্র ও নাট্যকর্মীরা

সুমন দত্ত: আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের হয়ে প্রচারে নামছে চলচ্চিত্র ও নাট্য শিল্পের সঙ্গে জড়িত অভিনেতা অভিনেত্রী ও কলা কুশলীরা। বাঙালি সংস্কৃতি বন্ধন নামের সংগঠনের ব্যানারে তারা সবাই একত্রিত হয়ে এই প্রচারে নামছেন বলে জানালেন তারা।

এদের সঙ্গে আরো ২৫ সাংস্কৃতিক সংগঠন জড়িত আছে। এদিন নাট্য ব্যক্তিত্ব ড. ইনামুল হক, কবি কাজী রোজী, ইন্দ্র মোহন রাজ বংশী, মনোরঞ্জন ঘোষাল, বুলবুল মহলানবিশ, ড. সামাদ, জায়েদ খান, আঁখি, শাহনুর উপস্থিত ছিলেন।

কাজী রোজী বলেন, বাঙালি সাংস্কৃতিক বন্ধনের সঙ্গে আমি আরেকটি শব্দ যোগ করতে চাই। সেটি হচ্ছে বলয়। আমি বলতে চাই এই সংগঠন হচ্ছে বাঙালি সাংস্কৃতিক বলয়ের বন্ধন।

ড. এনামুল হক বলেন, আমাদেরকে অবশ্যই স্বাধীনতার পক্ষের শক্তিকে বিজয়ী করে আনতে হবে। দেশকে অসাম্প্রদায়িক ও মানবিক মর্যাদা সমুন্নত রাখতে হবে।

ইন্দ্রমোহন রাজবংশী ১৯৭১ সালের নিজের বেশ কয়েকটি গানের কথা বলেন। তার সঙ্গে আরও স্মৃতিচারণ করেন মনোরঞ্জন ঘোষাল।

জায়েদ খান বলেন, তিনি মিয়া ভাইয়ের অনুষ্ঠানে থাকতে পেরে গর্বিত। তিনি আমাদের আইকন। আমি চেষ্টা করবো তার সবকিছুতে আমি যেন থাকতে পারি।

বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে সংগঠনের সভাপতি চিত্রনায়ক ফারুক এক ঘোষণায় এসব কথা বলেন। সংগঠনের সেক্রেটারি মো. বাশার বলেন নির্বাচনী প্রচার শুধু থেমে থাকবে না এই সংগঠন। দেশের যেকোনো দুর্যোগে বিপদে আপদে শিল্পী সমাজের হয়ে তারা মাঠে থাকবেন।

সভাপতি ফারুক বলেন, শেখ হাসিনার সরকার, বার বার দরকার। এই স্লোগানকে সামনে রেখে আমাদের আজকের যাত্রা শুরু।

শেখ হাসিনার বিকল্প নেই। আজ বাংলাদেশের স্বাধীনতার ইতিহাস সঠিকভাবে বলা যাচ্ছে শেখ হাসিনার সরকার থাকার কারণে। তা না হলে দেশে আজ স্বাধীনতার কথা বলা যেত না। শেখ হাসিনাকে বার বার হত্যা করতে চেয়েছে খুনি চক্র। কিন্তু পারে নাই।

আগামীতে শেখ হাসিনাকেই নির্বাচিত করে আনতে হবে আমাদের। শেখ হাসিনার জন্য আমরা সারাদেশ ব্যাপী প্রচারে নামবো। আমরা আগামীতে মহাসমাবেশ করবো।