সুইজারল্যান্ডের পথে দুবাইতে রাষ্ট্রপতির যাত্রা বিরতি

নিউজ ডেস্কঃ   রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদ বিশ্ব বিনিয়োগ ফোরাম-২০১৮ এর শীর্ষ সম্মেলনে যোগদানের জন্য সুইজারল্যান্ডে পাঁচদিনের সরকারি সফরে জেনেভা যাওয়ার পথে সোমবার ভোরে দুবাইয়ে যাত্রা বিরতি করেন।

রাষ্ট্রপতি ও তাঁর সফরসঙ্গীদের বহনকারী আমিরাত এয়ারলাইন্সের একটি বিমান স্থানীয় সময় ভোর ৪টা ৪৫ মিনিটের দিকে দুবাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে। তিনি প্রায় সাড়ে ১০ ঘন্টা দুবাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে যাত্রা বিরতি করবেন। পরে রাষ্ট্রপতি স্থানীয় সময় বিকেল ২টা ৫৫ মিনিটে জেনেভার উদ্দেশে দুবাই ত্যাগ করার কথা রয়েছে।

এর আগে রাষ্ট্রপতি ও তাঁর সফরসঙ্গীদের বহনকারী আমিরাত এয়ারলাইন্সের একটি বিমান আজ বাংলাদেশ সময় রাত ২ টা ৩ মিনিটে হযরত শাহজালাল (রা.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ত্যাগ করেছে।

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু, কূটনৈতিক কোরের ডিন, ঢাকায় নিযুক্ত সুইস রাষ্ট্রদূত, তিন বাহিনীর প্রধানগণ, মূখ্য সচিব, রাষ্ট্রপতির সচিবগণ, পুলিশের মহাপরিদর্শক এবং অন্যান্য উচ্চপদস্থ বেসামরিক ও সামরিক কর্মকর্তাগণ হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ভিভিআইপি লাউঞ্জে রাষ্ট্রপতিকে বিদায় জানান।

আজ ২২ অক্টোবর থেকে আগামী ২৬ অক্টোবর পর্যন্ত জেনেভায় ইউরোপের জাতিসংঘ দফতরে এই শীর্ষ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। এই সম্মেলনের প্রতিপাদ্য হচ্ছে- ‘টেকসই উন্নয়নের জন্য বিনিয়োগ।’ পরে অন্য একটি বিমানে করে রাষ্ট্রপতি সন্ধ্যা ৭টা ৫০ মিনিটে (স্থানীয় সময়) জেনেভার কোয়েনট্রিন বিমানবন্দরে পৌঁছাবেন।

সুইজারল্যান্ডে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত ও জাতিসংঘে স্থায়ী প্রতিনিধি শামীম আহসান এবং জেনেভার আঞ্চলিক সরকার ও জেনেভাস্থ জাতিসংঘ কার্যালয়ের প্রতিনিধি বিমানবন্দরে রাষ্ট্রপতিকে স্বাগত জানাবেন বলে আশা করা হচ্ছে।

রাষ্ট্রপতিকে বিমানবন্দর থেকে মোটর শোভাযাত্রাসহকারে গ্রান্ড হোটেল কেম্পিনক্সিতে নিয়ে যাওয়া হবে, সুইজারল্যান্ড সফরকালে এখানেই তিনি অবস্থান করবেন।

সূত্র আরো জানায়, এবারে ফোরামে অর্ধশতাধিক অনুষ্ঠান থাকছে, যার মধ্যে রয়েছে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান, বিশ্ব নেতৃবৃন্দের অংশগ্রহণে বিনিয়োগ শীর্ষ সম্মেলন, দ্য গ্লোবাল ইনভেস্টমেন্ট গেম চেঞ্জার্স সামিট, মন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠক, সম্মেলন, বেসরকারি খাত বিষয়ক অধিবেশন, উচ্চ পর্যায়ের অংশীজন বৈঠক, নেটওয়ার্কিং ইভেন্ট, পুরস্কার অনুষ্ঠান ও ইনভেস্টমেন্ট ভিলেজ।

মূল অনুষ্ঠানের পাশাপাশি রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ বিভিন্ন দেশের নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করবেন বলে আশা করা হচ্ছে।

রাষ্ট্রপতি আগামী ২৬ অক্টোবর দেশে ফেরার কথা রয়েছে।