ইমরুল-সাইফ যোগ্যতার প্রমাণ দিলেন

নিউজ ডেস্কঃ জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে দুর্দান্ত সেঞ্চুরি করা ইমরুল কায়েস দলের অটোমেটিক চয়েস ছিলেন না। তামিম ইকবালের ইনজুরির কারণে দলে সুযোগ পেয়েছেন তিনি। দলে তৃতীয় ওপেনার আছেন নাজমুল শান্ত। কিন্তু শুরুতে সিনিয়র কাউকে রাখার চিন্তায় একাদশে ছিলেন ইমরুল কায়েস। ভালো না করলে হয়তো দল থেকে আবার বাদ পড়তে হতো। কিন্তু দুর্দান্ত এক সেঞ্চুরি করে ইমরুল-সাইফ যোগ্যতার প্রমাণ দিলেন । এর আগে সংযুক্ত আরব আমিরাতে যেমন আফগানিস্তানের বিপক্ষে দিয়েছিলেন।

এছাড়া সাইফউদ্দিনের দলে সুযোগ পাওয়া নিয়েও প্রশ্ন ছিল। বাজে ফর্মের কারণে যার বাদ পড়া আবার কেনো সে দলে। পেস অলরাউন্ডার ব্যাটে-বলে তার কারণ বুঝিয়ে দিয়েছেন। দলের প্রয়োজনে যেমন ঠান্ডা মাথায় খেলেছেন। তেমনি গতি বাড়িয়ে রানও তুলেছেন। সাকিব-তামিম দলে না থাকা। মুশফিক-মাহমুদুল্লাহর রান না পাওয়া। এর মাঝে শেষে ১২৭ রানের জুটি গড়ে ইমরুল-সাইফ তাই একটা চ্যালেঞ্জ জয় করলেন।

ব্যাট হাতে ভালো একটা রান এনে দিলে বোলাররা ভালো করবেন এই প্রত্যাশা দলের ছিল। তামিম-সাকিব ছাড়া তাই ব্যাটিংয়ে ভালো করা ছিল চ্যালেঞ্জ। বাংলাদেশের পক্ষে ম্যাচের সবচেয়ে বড় কাজটি হয়েছে ব্যাটিংয়ে। এশিয়া কাপ ফাইনালের সেঞ্চুরিয়ান লিটন রান তুলতে অতি উৎসাহী হয়ে একবার ক্যাচ দিয়ে বেঁচে যান; দলের ৫ ওভারে ১৬ রানের মাথায় তাড়াহুড়ো করে রান তুলতে গিয়ে ফিরে যান তিনি। তবে ইমরুল মারার বল মেরেছেন, ছাড়ার বল ছেড়েছেন।

কিন্তু ইমরুলকে এক পাশে রেখে অন্য ব্যাটসম্যানরা আসা-যাওয়ার মিছিলে নামলেও ভুল করেননি তিনি। দলকে আস্থা দেওয়া মিঠুন ভালো শুরু করে ফিরে যান। ৩০ ওভারে ১৩৯ রানের মধ্যে মাহমুদুল্লাহ-মিরাজও সাজঘরে ফেরেন ক্রিজে এসেই। উইকেট হারিয়ে বাংলাদেশ তখন দিশেহারা। এমন এক দুর্গতির মধ্যেই সপ্তম ওয়ানডে খেলতে নামা সাইফকে নিয়ে ধাক্কা সামালের কাজ করেন ইমরুল।

সেই ধাক্কা সামলে দলের প্রয়োজনে আবার ব্যাটকে অসিতে পরিণত করেন। দারুণ স্ট্রাইক রেটে ৬৪ বলের ফিফটি পূর্ণ করেন। কিন্তু দল চাপে থাকায় হাত গুটিয়ে নেন তিনি। বাংলাদেশ ইনিংস ৪০ ওভার ছাড়ালে হাত খোলেন। নিজের সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন ১১৮ বলে। নিজের ৭৩ ম্যাচে তৃতীয় সেঞ্চুরি করেন তিনি। বাকি ২১ বলে ৪৪ রান তোলেন ইমরুল। ফেরেন ১৪০ বলে ১৪৪ রান করে। ততক্ষণে ১৩ চারের পাশাপাশি ৮ ছক্কা মেরেছেন মাঠের চারপাশে। সাইফের সঙ্গে সপ্তম উইকেটে গড়েছেন বাংলাদেশের সর্বোচ্চ ১২৭ রানের জুটিও। এমন দারুণ ইনিংসের পর তিনি ম্যাচ সেরা হবেন তা আর অজানা কি।

ঢাকানিউজ২৪ডটকম/জাহিদ