জিম্বাবুয়ে বাংলাদেশের অন্যরকম সিরিজ

নিউজ ডেস্ক: সময়টা ভীষণ খারাপ যাচ্ছে জিম্বাবুয়ের। ক’মাস আগে নিজেদের মাটিতে বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের বাধা পেরোতে পারেনি তারা। গত পরশু বাংলাদেশে পা রেখেছে তারা দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে নাস্তানাবুদ হওয়ার তরতাজা দুঃস্মৃতি নিয়ে। তবে বাংলাদেশ সফরে জয়ের ধারায় ফিরতে ভীষণ মরিয়া তারা। ঢাকায় নামার পর গতকাল প্রথম অনুশীলন করে তারা। সেখানেই অধিনায়ক হ্যামিল্টন মাসাকাদজা জয়ের ব্যাপারে মরিয়া ভাবটা প্রকাশ করেছেন।

বাংলাদেশের বিপক্ষে সিরিজটি মাসাকাদজার জন্য ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ, ‘আমি এই সিরিজকে খুবই গুরুত্বপূর্ণ বলব। দুই দলের জন্যই সিরিজটি গুরুত্বপূর্ণ। দুই দলই একে অপরের বিপক্ষে অনেক ক্রিকেট খেলেছে। আমরা আশা করছি, একটা প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ সিরিজ হবে; প্রতিবার যেমনটা হয়ে থাকে।’

দক্ষিণ আফ্রিকায় বাজে পারফরম্যান্সের পর বাংলাদেশ সফর তাদের জন্য বড় পরীক্ষা বলেও মনে করছেন তিনি, ‘হ্যাঁ, আন্তর্জাতিক ক্রিকেট সব সময়ই এক ধরনের পরীক্ষা। আমরা দক্ষিণ আফ্রিকায় কোনো ম্যাচ না জিতলেও অনেক ইতিবাচক দিক অর্জন করেছি। আমরা কয়েকবার শেষ পর্যন্ত টেনে নিয়ে গিয়েছি। সেই দিক থেকে বলব, ছেলেরা এই সিরিজে ভালো করার জন্য মুখিয়ে রয়েছে।’

তবে কাজটা যে সহজ হবে না, সেটাও তার মাথায় আছে, ‘বাংলাদেশ ঘরের মাঠে খুবই ভালো দল। তারা গত কয়েক বছর সেটার প্রমাণ রেখে আসছে। এখানে এসে খেলা সব সময়ই কঠিন। তবে বাকি দেশগুলোর তুলনায় আমরা বাংলাদেশের মাটিতে সবচেয়ে বেশি ক্রিকেট খেলেছি। সেদিক থেকে আমরা মানসিকভাবে ভালো অবস্থানে আছি। এ জন্যই আমি বিশ্বাস করি, এই সিরিজ খুবই প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ হবে।’

বাংলাদেশের ঘরোয়া ক্রিকেটেও নিয়মিত দেখা যায় জিম্বাবুইয়ানদের। মাসাকাদজাসহ পাঁচ-ছয়জন জিম্বাবুইয়ান বিপিএল, প্রিমিয়ার লীগের নিয়মিত মুখ। এ বিষয়টাও কাজে লাগবে বলে মনে করছেন জিম্বাবুয়ে অধিনায়ক, ‘কিছু ক্রিকেটার এখানে খেলেছে। এটা সব সময় সাহায্য করে। কারণ, ছেলেরা এখানকার কন্ডিশন সম্পর্কে ধারণা রাখে। তারা জানে, কীভাবে এখানে কাজ করতে হয়। কন্ডিশন সম্পর্কে জ্ঞান ও এখানে খেলার অভিজ্ঞতা অবশ্যই দলকে সাহায্য করবে।’

ইনজুরির কারণে গ্রেইম ক্রেমারের মতো গুরুত্বপূর্ণ সদস্যকে পাচ্ছেন না তিনি। তবে তার বদলে দলে আসা তরুণ লেগি মুবুতুকে নিয়ে বেশ আশাবাদী মাসাকাদজা, ‘দেশের বাইরে প্রথম সিরিজ হওয়া সত্ত্বেও সে দক্ষিণ আফ্রিকায় ভালো করেছে। উপমহাদেশের কন্ডিশনে সে কেমন করে, সেটা এবার দেখতে চাই।’ সিকান্দার রাজা ফিরেছেন বলেও দলের শক্তি বেড়েছে, ‘রাজা দলে যোগ দেওয়া অবশ্যই বড় ব্যাপার। সে অনেক দিক থেকে দলে অবদান রাখে। ব্যাটে-বলে ও ফিল্ডিংয়ে সে খুবই ভালো। তাকে জিম্বাবুয়ে সেটআপে পাওয়া ভালো খবর।’

বাংলাদেশ দলে নেই দুই প্রধান তারকা সাকিব আল হাসান ও তামিম ইকবাল। তবে তাদের না থাকা নিয়ে খুব একটা মাথা ঘামাচ্ছেন না মাসাকাদজা। দু’জনের বদলি হিসেবে যারা এসেছেন, তারাও যথেষ্ট যোগ্যতাসম্পন্ন বলে মনে করছেন তিনি।