গ্রাহক পর্যায়ে গ্যাসের দাম বাড়ছে না

নিউজ ডেস্কঃ নির্বাচনের আগে গ্যাসের দাম বাড়ছে না। শুল্ক ও কর প্রত্যাহার এবং ভর্তুকির কারণে গ্রাহক পর্যায়ে গ্যাসের বর্তমান মূল্যই বহাল থাকছে।

মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন-বিইআরসি এই সিদ্ধান্ত ঘোষণা করে। রাজধানীর কাওরানবাজারে বিইআরসির কার্যালয়ে এই সংবাদ সম্মেলন হয়।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, তরল প্রাকৃতিক গ্যাসের (এলএনজি) আমাদনি মূল্য বেশি হলেও গ্রাহক পর্যায়ে দাম বাড়ছে না। এলএনজি সরবরাহ কম হওয়ায়, আমদানি ও উৎপাদন পর্যায়ে সরকারের শুল্ক ও কর প্রত্যাহারের ঘোষণা এবং চলতি অর্থ বছরে প্রায় তিন হাজার ১০০ কোটি টাকা ভর্তুকির প্রদানের সিদ্ধান্তের কারণে গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধি করা হয়নি।

এতে বলা হয়, গ্রাহক পর্যায়ে নিরাপত্তা জামানত কমানো, জ্বালানি সাশ্রয়ী পদ্ধতি ব্যবহারে শিল্প কারখানার বিলে ছাড়, সিস্টেমলস গণনার পদ্ধতিতে পরিবর্তনসহ বিতরণ কোম্পানিগুলোর কিছু সংস্কার কার্যক্রম ঘোষণা করা হয়েছে। খাত ভেদে মাশুল ও তহবিল ফি বন্টন হারে সংশোধন আনায় বিতরণ ও সঞ্চালন কোম্পানিগুলোর মার্জিন খানিকটা বেড়েছে।

বর্তমানে প্রতি ঘনমিটার গ্যাসের গড় মূল্য সাত টাকা ১৭ পয়সা। গত আগস্ট মাস থেকে পাইপলাইনে এলএনজি সরবরাহ শুরু হয়। এলএনজির আমদানি মূল্য বেশি হওয়ায় গত মার্চ মাসে বিতরণ ও সঞ্চালন কোম্পানিগুলো গ্রাহক পর্যায়ে দাম বৃদ্ধির আবেদন করে। গত জুন মাসের তাদের প্রস্তাবের ওপর গণশুনানির আয়োজন করে কমিশন।

সব হিসেব বিবেচনা নিয়ে বিইআরসির মতে প্রতি ঘনমিটারে ২০ দশমিক ৩৬ শতাংশ দাম বাড়ানোর প্রয়োজন রয়েছে। কিন্তু উৎপাদন ব্যয় বাড়বে বলে ব্যবসায়ী ও শিল্প উদ্যোক্তারা গ্যাসের দাম না বাড়ানোর জন্য দাবি জানায়। সামনে নির্বাচনের কথা বিবেচনা করে সরকারও দাম বৃদ্ধির বিপক্ষে।

এসব বিবেচনায় কমিশন সরকারকে জানায় আমদানি ও উৎপাদন পর্যায়ে শুল্ক্ক ও কর প্রত্যাহার করা হলে এবং ভর্তুকি দেওয়া হলে দাম বাড়ানোর প্রয়োজন হবে না।

সংবাদ সম্মেলনে বিইআরসি চেয়ারম্যান মনোয়ার ইসলাম বলেন, গ্যাসের উৎপাদন, এলএনজি আমদানি, সঞ্চালন এবং বিতরণ ব্যয় বৃদ্ধি পাওয়া স্বত্ত্বেও সার্বিক দিক বিবেচনা করে কমিশন ভোক্তা পর্যায়ে বিদ্যমান মূল্যহার পরিবর্তন না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

তিনি বলেন, জাতীয় রাজস্ব বোর্ড এলএনজির আমাদনি শুল্ক, প্রাকৃতিক গ্যাসের উৎপাদন পর্যায়ে সম্পূরক শুল্ক এবং আমদানি পর্যায়ে অগ্রিম কর ও অগ্রিম মূসক প্রত্যাহার করেছে। তাই গ্রাহক পর্যায়ে গ্যাসের দাম বাড়ানো হয়নি।

এক প্রশ্নের জবাবে কমিশনের সদস্য আজিজ খান জানান, এলএনজির সরবরাহ বৃদ্ধি সাপেক্ষে বিতরণ কোম্পানিগুলো আগামীতে দাম বাড়ানোর আবেদন করলে তখন তা বিবেচনা করা হবে।

সংবাদ সম্মেলনে কমিশনের অন্য সদস্য রহমান মুরশেদ, মাহমুদ উল হক ভূঁইয়া এবং মিজানুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।

ঢাকানিউজ২৪ডটকম/জাহিদ