৩৫ কোটি পাঠ্যবই ছাপা হচ্ছে

নিউজ ডেস্ক: দিন আর রাতের এখন আর কোনো তফাত নেই তাদের কাছে- সারাদেশের প্রায় ৪০০ মুদ্রণ প্রতিষ্ঠানে (প্রিন্টিং প্রেস) পাঠ্যবই ছাপা, কাটিং ও বাইন্ডিংয়ের কাজে ব্যস্ত ৯৮ হাজার মানুষ। একটাই লক্ষ্য তাদের- এবারও বছরের শুরুতেই প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরের ছাত্রছাত্রীদের কাছে পৌঁছে দেওয়া। যাতে নতুন বইয়ের ঘ্রাণ নিতে নিতে আনন্দে উচ্ছল হয়ে নতুন শিক্ষাবর্ষের প্রথম দিনেই বাড়ি ফিরতে পারে তারা। গভীর রাতেও তাই ছাপাখানাগুলো থেকে ভেসে আসছে মেশিনের শব্দ। ২০১৯ সালের প্রথম থেকে নবম শ্রেণি পর্যন্ত ৪ কোটি ২৬ লাখ ১৯ হাজার শিক্ষার্থীর জন্য ছাপা হচ্ছে ৩৫ কোটি ২১ লাখ ৯৭ হাজার ৮৮২ কপি পাঠ্যবই। এসব বই ছাপার পর জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে পৌঁছে দিতে কাজ করছে ১৬ হাজার ৪০০টি ট্রাক।

দেশজুড়ে পাঠ্যবই মুদ্রণ ও পরিবহন কাজের তদারকি করছেন জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের (এনসিটিবি) ২২টি টিমের ৬৬ জন কর্মকর্তা। এর বাইরেও এনসিটিবির চেয়ারম্যান ও সদস্যদের নেতৃত্বে কেন্দ্রীয় মনিটরিং টিম, এনসিটিবির কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মনিটরিং টিম মিলিয়ে আরও ২১২ কর্মকর্তা-কর্মচারী এই মহাযজ্ঞে শ্রম দিচ্ছেন।

আর দু’মাস পরই ফুরোবে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের প্রতীক্ষার পালা। ২০১৯ সালের পহেলা জানুয়ারি নতুন শিক্ষাবর্ষের প্রথম দিনে বিদ্যালয়ে গিয়ে কোমলমতি শিক্ষার্থীরা হাতে পাবে ঝকঝকে নতুন পাঠ্যবই। তাদের জন্য ৩৫ কোটি পাঠ্যবই ছাপার কাজ শেষ করতে নিরলসভাবে কাজ করছে এনসিটিবি। পৌনে ৩ কোটি বই এরই মধ্যে ছাপা হয়ে পৌঁছে গেছে বিভিন্ন জেলা ও উপজেলায়। বাকি বই ছাপার কাজও চলছে দুর্বার গতিতে।

এনসিটিবির চেয়ারম্যান অধ্যাপক নারায়ণ চন্দ্র সাহা সমকালকে বলেন, ছাপানো অনেক বই এর মধ্যেই চলে গেছে মাঠপর্যায়ে। বাকিগুলোও নির্দিষ্ট সময়ের আগেই ছাপা হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, জাতীয় সংসদ নির্বাচনের কারণে অন্যান্য বছরের তুলনায় এবার বইয়ের মুদ্রণ কাজ এগিয়ে আনা হয়েছে। বই ছাপানোর সর্বশেষ টার্গেট দিন ধরা হয়েছে ১৪ ডিসেম্বর। কয়েকটি প্রেস ঘুরে দেখা গেছে, মুদ্রণ, বাঁধাই ও সরবরাহ কার্যক্রম দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলেছে। অতীতের যে কোনো সময়ের চেয়ে এবার সাফল্যের সঙ্গে সময়মতো সব বই মুদ্রণ সম্ভব হচ্ছে বলে জানান এনসিটিবির কর্মকর্তারা।

মানসম্মত বই ছাপতে এনসিটিবির চেয়ারম্যান, সদস্য ও অন্য কর্মকর্তারা নিয়মিত সারাদেশের ছাপাখানা পরিদর্শন করছেন। এনসিটিবি চেয়ারম্যান বলেন, ‘এবার বইয়ের মানও আরও ভালো হচ্ছে।’

এনসিটিবির অপর এক কর্মকর্তা বলেন, ‘এটা নির্বাচনের বছর। শিক্ষার্থীদের ভালো মানের বই উপহার দেওয়া হবে। শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ নিজেও নিয়মিতই পাঠ্যবই ছাপার কার্যক্রম সম্পর্কে খোঁজ রাখছেন।’

এনসিটিবি জানায়, ২০১৯ শিক্ষাবর্ষে প্রাথমিক স্তরের ১১ কোটি ৬ লাখ ১ হাজার ৫২১ কপি বই ছাপিয়ে বিতরণ করা হবে। এসব বই ছাপাতে দেশি-বিদেশি প্রায় ৪০০ ছাপাখানার সঙ্গে চুক্তি করে কার্যাদেশ দিয়েছে এনসিটিবি। এর মধ্যে মাধ্যমিক (বাংলা ও ইংরেজি সংস্করণ) এবং এসএসসি ভোকেশনাল স্তরের পাঠ্যবই মুদ্রণ, বাঁধাই ও সরবরাহ করতে কাগজ ছাড়া ৩৪০টি লটে কার্যাদেশ দেওয়া হয়েছে। মাধ্যমিক বাংলা ও ইংরেজি সংস্করণ, ইবতেদায়ি, দাখিল, এসএসসি ও দাখিল ভোকেশনাল এবং কারিগরি (ট্রেড বই) স্তরের বিনামূল্যের পাঠ্যপুস্তক মুদ্রণ, বাঁধাই ও সরবরাহের জন্য কাগজসহ ৩২০টি লটে কার্যাদেশ দেওয়া হয়েছে।

এনসিটিবির বিতরণ নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক জিয়াউল হক জানান, এবার ৩৫ কোটি ২২ লাখ কপি বই ছাপাতে প্রায় ৮৫ হাজার টন কাগজ ব্যবহূত হচ্ছে। এর মধ্যে এনসিটিবি কিনে দিয়েছে প্রায় ১৫ হাজার টন কাগজ। বাকি কাগজ মুদ্রণকারীরা বাজার থেকে কিনে বই ছাপিয়ে সরবরাহ করবেন।

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, গেল সেপ্টেম্বর পর্যন্ত মাধ্যমিক ও প্রাক-প্রাথমিক স্তরের ২ কোটি ৭৬ লাখ ৭১ হাজার ৩৪ কপি বই উপজেলা পর্যায়ে সরবরাহ করেছে ছাপাখানাগুলো। এনসিটিবির নিয়োগ করা দুটি প্রতিষ্ঠানের বিশেষজ্ঞ কর্মকর্তারা বইয়ের মান যাচাই করছেন। প্রাথমিক স্তরের পাঠ্যবইয়ের মান যাচাই করছে ‘কন্টিনেন্টাল’ নামের একটি প্রতিষ্ঠান। মাধ্যমিক স্তরের বইয়ের মান যাচাই করছে অপর একটি প্রতিষ্ঠান ‘ব্যুরো ভেরী টাচ’। এনসিটিবির উপসচিব সৈয়দ মোস্তাফিজুর রহমান লিখন সমকালকে বলেন, মুদ্রণ প্রতিষ্ঠানগুলোর দুটি ভারতের- ‘কৃষ্ণা ট্রেডার্স’ ও ‘স্বপ্না প্রিন্টার্স’। বাকিগুলো সবই দেশের। ঢাকা ছাড়াও এবার পাঠ্যবই ছাপানো হচ্ছে বগুড়া, রংপুর, টাঙ্গাইল, চট্টগ্রাম, মানিকগঞ্জ, গাজীপুর ও নরসিংদীর ছাপাখানা থেকে।

২০১৯ শিক্ষাবর্ষের মোট পাঠ্যপুস্তকের মধ্যে প্রাক-প্রাথমিক স্তরের বই ৬৮ লাখ ৫৬ হাজার ২০ কপি। এ ছাড়া ছাপা হচ্ছে প্রাথমিক স্তরের ৯ কোটি ৮৮ লাখ ৮২ হাজার ৮৯৯ কপি, ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর ভাষার বই ২ লাখ ৭৬ হাজার ৭৮৪ কপি, ইবতেদায়ির ২ কোটি ২৫ লাখ ৩১ হাজার ২৮৩ কপি এবং দাখিলের ৩ কোটি ৭৯ লাখ ৫৮ হাজার ৫৩৪ কপি বই।

মাধ্যমিক (বাংলা সংস্করণের) স্তরের ১৮ কোটি ৫৩ হাজার ১২২ কপি এবং একই স্তরের ইংরেজি ভার্সনের ১২ লাখ ৪৭ হাজার ৮২৬ কপি বই ছাপা হচ্ছে।

এ ছাড়া কারিগরি শিক্ষা স্তরের ১২ লাখ ৩৫ হাজার ৯৪৮ কপি, এসএসসি ভোকেশনাল স্তরের ১ লাখ ৪৩ হাজার ৮৭৫ কপি, ব্রেইল পাঠ্যপুস্তক ৫ হাজার ৮৫৭ কপি এবং সম্পূরক কৃষি (ষষ্ঠ-নবম) স্তরের ১ লাখ ২৪ হাজার ২৬১ কপি বই ছাপা হচ্ছে।