মিতালী ট্যানারী লিমিটেডের শ্রমিক এসিডদগ্ধ হয়ে মৃত্যু

স্টাফ রিপোর্টার: ৩ অক্টোবর, ২০১৮ ইং সাভারের হেমায়েতপুরে স্থানান্তরিত সাভার ট্যানারী স্টেট এর মিতালী ট্যানারী লিমিটেড এর শ্রমিক মোঃ আবুল হাশেম (৩০) জেলা নিলফামারী, মোঃ সুমন (২৮) জেলা লক্ষীপুর এবং আবুল বাসার (৩২) জেলা টাঙ্গাইল মারাত্বকভাবে এসিডদগ্ধ হন।

তারা মিতালী ট্যানারী ফ্যাক্টরী থেকে এসিডভর্তি ড্রাম পাশের এশিয়া ট্যানারী ফ্যাক্টরীতে নিয়ে যাওয়ার সময় এশিয়া ট্যানারী ফ্যাক্টরীতে প্রবেশের পর পা পিছলে পড়ে গেলে ড্রাম ফেটে এসিড বের হয়ে যায়। সঙ্গে সঙ্গে তিনজনই এসিডে দগ্ধ হন। আশাঙ্কাজনক অবস্থায় তাদেরকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়। তাদের মধ্যে মোঃ আবুল হাশেম গতকাল ১০ অক্টোবর, ২০১৮ ইং রাত ১১.৪৫ এর সময় মারা যান। এসিডদগ্ধ অন্য দুজনের অবস্থা এখনও শঙ্কামুক্ত নয় বলে হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়।

বাংলাদেশ লেবার ফাউন্ডেশন (বিএলএফ) এর সভাপতি জনাব আব্দুস সালাম খান এবং মহাসচিব জেড এম কামরুল আনাম এক শোক বার্তায় এসিডদগ্ধে নিহতের ঘটনায় গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। জেড এম কামরুল আনাম বলেন, শ্রমিকদের পেশাগত স্বাস্থ্য ও নিরাপত্তা, শোভন কর্মপরিবেশ নিশ্চিতসহ শ্রমিকের উন্নত জীবনমান নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ট্যানারী শিল্প ঢাকার হাজারীবাগ থেকে সাভারের হেমায়েতপুরে স্থানান্তর করা হয়।

কিন্তু দুর্ভাগ্যজনক হলেও সত্য যে, কারখানায় নিরাপদ ও শোভন কর্মপরিবেশের উন্নয়ন ও শ্রমিকের জীবনমানের কাঙ্খিত পরিবর্তন হয়নি বরং কিছু কিছু ক্ষেত্রে আরও অবনতি হয়েছে। জনাব আব্দুস সালাম খান বলেন, ট্যানারী শিল্প এলাকায় শ্রমিকদের চিকিৎসার জন্য একিিট হাসপাতাল প্রতিষ্ঠার কথা থাকলেও এখনও কোন উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়নি, এসিডদগ্ধদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যেতে ৩ ঘন্টা সময় লেগেছে এবং হাসপাতালে নেয়ার পথে এ দীর্ঘ সময়ে আবুল হাসেমের অবস্থার আর অবনতি হয় এবং শেষ পরিনতি ঘটে মৃত্যু।

শিল্প এলাকায় একটি হাসপাতাল থাকলে শ্রমিকদের প্রাথমিক চিকিৎসাসহ অনেক স্বাস্থ্য সেবা স্থানীয়ভাবে প্রদান করা সম্ভব হত বলে তিনি জানান। এসিডদগ্ধ হওয়ার পেঁছনে অনিরাপদ ও অশোভন কর্মপরিবেশ অন্যতম কারণ। শুধু এবারই নয়, ইতিমধ্যে বেশ কয়েকবার সাভার ট্যানারী শিল্প এলাকায় বিভিন্ন দুর্ঘটনা এবং অনেক হতাহতের ঘটনা ঘটেছে। জনাব আব্দুস সালাম খান এবং জেড এম কামরুল আনাম এসিডদগ্ধের কারন অনুসন্ধান করে দোষীদের যথাযথ শাস্তি প্রদান এবং দুর্ঘটনা বন্ধে ট্যানারী শিল্পে নিরাপদ ও শোভন কর্মপরিবেশ নিশ্চিতের জোর দাবি জানান।

প্রিন্স, ঢাকা