কুষ্টিয়ায় পরিবেশ বান্ধব কৃষি হসপিটাল

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি: কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার চাপড়া ইউনিয়নের সাঁওতা ব্লকে কৃষি হসপিটাল গড়ে উঠোছে। উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা বকুল হোসেনের উদ্যোগে সাঁওতা ব্লকের সাঁওতা গ্রামে এ কৃষি হসপিটাল গড়ে তুলেছেন। এই হসপিটাল থেকে প্রতিদিন ৪০ থেকে ৫০ জন কৃষক পরিবেশ বান্ধব চাষাবাদের উপর বিভিন্ন রোগ, পোকামাকড়, জৈবকৃষি ও উন্নত পদ্ধতিতে হাঁস-মুরগী পালনের উপর পরামর্শ নিচ্ছেন। কৃষি হসপিটালটিতে ক্ষতিকর, উপকারী ও নিরপেক্ষ ৮০টি পোকামাকড় সংরক্ষণ আছে।

এখান থেকে কৃষাণ-কৃষাণীরা কোনটি বন্ধুপোকা, কোনটি নিরপেক্ষ পোকা বা কোন পোকাটি ফসলের বেশি ক্ষতি করে তা জানতে পারেন। এছাড়াও হসপিটালটিতে ফল, সবজি ও ধানের বিভিন্ন রোগ, বীজ, সারের নমুনা সংরক্ষিত আছে।

কৃষি হসপিটাল থেকে এলাকার কৃষান-কৃষাণীরা রাসায়নিক দ্রব্য মুক্ত চাষাবাদের পরামর্শ নিয়ে নিজ বাড়ীতে ভার্মি কম্পোষ্ট, কুইক কম্পোষ্ট, কম্পোষ্ট, জৈব নাইট্রোজেন, জৈব বালাইনাশক তৈরী ও ব্যবহার করছেন বিভিন্ন প্রকার শাক-সবজি, ফলমূল ও মাঠ ফসলে। এছাড়াও হাজল পদ্ধতিতে দেশীয় মুরগীর বাচ্চা উৎপাদন, মুরগীর স্বাস্থ্য সম্মত তিন তলা বিশিষ্ট ঘর তৈরী শিখেছেন। সাঁওতা বøকের সাঁওতা, শিংদহ, কাঞ্চনপুর, শ্যামপুর, পাইক পাড়া, শান পুকুরিয়া গ্রামের মলিনা, খদেজা, লিমা, আকলিমা, মনিকা পারভীন সহ ২৮৫০ টি পরিবার এ জাতীয় কৃষি প্রযুক্তির মাধ্যমে স্বাবলম্বী হয়েছেন।

কৃষি হসপিটালের উদ্যোক্তাঃ সাঁওতা ব্লকের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা বকুল হোসেন বলেন- “সমন্বিত বালাই দমন গুণের নেইকো শেষ, কম খরচে বেশি ফলন নির্মল পরিবেশ।” কৃষি হসপিটাল থেকে পরামর্শ নিয়ে কৃষক-কৃষানীরা নির্ভেজাল শাক-সবজি, ফলমূল উৎপাদন ও মাটির স্বাস্থ্য রক্ষায় রাসায়নিক সারের ব্যবহার কমিয়ে জৈব সারের ব্যবহার নিশ্চিত করেছে।

প্রিন্স, ঢাকা