ফিলিপাইনের কাছে বাংলাদেশের হার

নিউজ ডেস্কঃ কক্সবাজারের বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপের সেমিফাইনালের টিকিট আগেই কেটে রেখেছে বাংলাদেশ ফুটবল দল। লাওসের পরপর দুই হারের কারণে এক ম্যাচ জিতেই সেমিফাইনালে চলে যায় জেমি ডের শিষ্যরা। ফিলিপাইনের বিপক্ষে ম্যাচটা তাই ছিল উপভোগের। অবশ্য আত্মবিশ্বাসের জ্বালানি সংগ্রহেরও বলা যায়। ফিলিপাইনের কাছে ১-০ গোলে হেরে একটু ধাক্কাই খেয়েছে বাংলাদেশ।

সেমিফাইনাল নিশ্চিত হয়ে গেলেও বাংলাদেশ দ্বিতীয় ম্যাচটাকে হালকা করে দেখেনি। উপভোগ মন্ত্র ছিল তবে জয়ই ছিল লক্ষ্য। সেই লক্ষ্যে প্রথমার্ধেই ধাক্কা দেয় ফিলিপাইন। জামাল ভূঁইয়াদের বিপক্ষে এগিয়ে যায় ১-০ গোলে। পরে অবশ্য বাংলাদেশ তাদের আর ব্যবধান বাড়াতে দেয়নি। তবে দ্বিতীয়ার্ধে বেশ কিছু আক্রমণ করেও সমতায় ফিরতে পারেনি বাংলাদেশ।

শুক্রবার সিলেটের শুরুতে ভালো ফুটবল খেলেন জামাই ভূঁইয়ারা। কিন্তু শক্তির বিচারে এগিয়ে থাকা ফিলিপাইনের বিপক্ষে নিজেদের খেলাটা বেশিক্ষণ ধরে রাখতে পারেনি। ম্যাচের ২৩ মিনিটে দানিয়েলের গোলে পিছিয়ে পড়ে বাংলাদেশ। এরপর প্রথমার্ধে বেশ কিছু আক্রমণ করে গেছে ফিলিপাইন কিন্তু আর গোল করতে পারেনি।

বাংলাদেশ অবশ্য গোল শোধ দেওয়ার মতো ভালো পরিকল্পিত আক্রমণ প্রথমার্ধে করতে পারেনি। তবে দ্বিতীয়ার্ধে গোল শোধ দেওয়ার চেষ্টা চালিয়ে গেছে। ফিলিপাইনও চেষ্ট চালিয়েছে জয়ের ব্যবধান বড় করার।

র‌্যাংকিংয়ে অবশ্য ফিলিপাইন বেশ শক্তিশালী দল। নিজেদের ফিফা র‌্যাংকিং একশ’র নিচে আনতে চেষ্ট চালিয়ে যাচ্ছে তারা। আর বাংলাদেশের দুশ’ ছুঁই ছুঁই। এমন দলের বিপক্ষে তাই ভালো খেলতে বিশেষ ছক কষেই নামে বাংলাদেশ। কিন্তু ফুটবলাররা তা কাজে লাগাতে পারেননি।

সমতায় শেষ করতে পারলে কিংবা তাদের জালে গোল দিতে পারলে হয়তো আত্মবিশ্বাস বাড়তো জেমি ডে’র শিষ্যদের। তবে ১-০ গোলের হার হয়তো বড় ধাক্কা হবে না জামাল ভূঁইয়াদের জন্য। সেমিফাইনালে ভালো করা নিয়েই হয়তো ভাববে কোচ এবং দলের সদস্যরা।