সাত বিশিষ্ট ব্যক্তি পেলেন মিডিয়া মিউজিয়াম সম্মাননা

নিউজ ডেস্ক: লোক সংস্কৃতি আমাদের শেকড়, যা সম্প্রীতি আর মানবতা নিয়ে বাঁচতে শেখায়। তাই লোকজ সংস্কৃতি আরও বেশি করে আধুনিক সমাজে ছড়িয়ে দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান কাজী রিয়াজুল হক।

 

 

সভাপতির বক্তব্যে মিডিয়া মিউজিয়াম অব বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রেসিডেন্ট এমএম বাদশাহ বলেন, সমাজের প্রতিটি সেক্টরেই নিজ গুণে প্রতিভার বিচ্ছুরণে সমাজ সংস্কৃতিকে এগিয়ে নিচ্ছেন অনেক গুণীজন।

কিন্তু তাদের জীবদ্দশায় আনুষ্ঠানিক মূল্যায়নের ব্যবস্থা এ সমাজে খানিকটা কম। তাই ‘মিডিয়া মিউজিয়াম সম্মাননা’ প্রদানের ক্ষুদ্র প্রয়াস নিয়েছে সংগঠনটি। আগামীতে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে থাকা প্রচারবিমুখ অগ্রপথিক এমন গুণীজনকে খুঁজে সম্মানিত করবে মিডিয়া মিউজিয়াম। যেখানে সবাইকে পাশে চান তিনি। এখন থেকে প্রতি বছর বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে মিডিয়া মিউজিয়াম সম্মাননা প্রদান করা হবে বলে জানান এমএম বাদশাহ।

অনুষ্ঠানে সাত বিশিষ্ট ব্যক্তিকে সাত ক্যাটাগরিতে ‘মিডিয়া মিউজিয়াম সম্মাননা-২০১৮’ প্রদান করা হয়। সম্মাননাপ্রাপ্তরা হলেন- জহির আলীম (সঙ্গীতশিল্পী), সৈয়দ নজরুল হক (লোক সাংস্কৃতিক সংগঠক, ভারত) থিওফিল নকরেক (লেখক ও কবি), নজরুল ইসলাম ভুঁঞা মাহাবুব (সমাজসেবা), শেখ গালিব রহমান (তরুণ প্রযুক্তিবিদ, ইউএসএ), হাসান মাহমুদ (অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা), মোহাম্মদ মারুফ ফিরোজ (শিক্ষা উদ্যোক্তা)।

অনুষ্ঠানে লোকগানের পাশাপাশি মমিন উল্যাহ্’র পুঁথি পাঠ ছিল অনেকটাই উপভোগ্য। ছিল শিশুশিল্পীদের লোকগান ও শিশুশিল্পীর বাঁশির সুরে পাহাড়ি গান।

মিডিয়া মিউজিয়াম অব বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট ও এসএ টিভির চিফ ক্রাইম রিপোর্টার এমএম বাদশাহর সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন সাপ্তাহিক শিক্ষাবিচিত্রা সম্পাদক আবদার রহমান, আদিবাসী বার্তার সম্পাদক এএম মিলন, ঢাকা বারের আইনজীবী অ্যাডভোকেট জহিরুর ইসলাম, ইআইবিসিএলের সিও রাকিবুল হাসান, বিশিষ্ট চিত্রশিল্পী এফএম আনিস, মিডিয়া মিউজিয়াম ইয়ুথ ক্লাবের ভাইস প্রেসিডেন্ট মোমিন উল্লাহ, রিয়াজুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক এফএম বায়োজিদ, মিডিয়া মিউজিয়াম অব বাংলাদেশের পরিচালক সিকদার নজরুল ইসলাম ও কার্যনির্বাহী সদস্য মাসুদ রানা প্রমুখ।