বিশ্বকে যিনি পথ দেখাচ্ছেন

তোফায়েল আহমেদ: বাংলার গণমানুষের নন্দিত নেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ ৭২ বছরে পদার্পণ করছেন। তাঁর শুভ জন্মদিন উপলক্ষে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীসহ দেশের মানুষ দীর্ঘায়ু কামনা করে দোয়া ও আশীর্বাদ করছে। মহান মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্ব প্রদানকারী দল আওয়ামী লীগকে দীর্ঘ তিন যুগ সাফল্যের সঙ্গে নেতৃত্ব দিয়ে, গণরায়ে অভিষিক্ত করে তিনবার সরকারে অধিষ্ঠিত হয়ে রাষ্ট্র পরিচালনায় যোগ্যতার স্বাক্ষর রেখেছেন তিনি। নিষ্ঠার সঙ্গে, সততার সঙ্গে, অত্যাচার-অবিচার সহ্য করে, জেল-জুলুম-নির্যাতন ভোগ করে আওয়ামী লীগকে বাংলার মানুষের কাছে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। ১৯৭৫-এর পর আওয়ামী লীগ যখন ক্রান্তিকাল অতিক্রম করছিল, তখন তিনি দলের হাল ধরেছিলেন।

১৯৮১-এর সম্মেলনে সবাই ধরে নিয়েছিল- আওয়ামী লীগ বিভক্ত হয়ে যাবে। কিন্তু আমরা জীবনপণ চেষ্টা করে সব ষড়যন্ত্র ব্যর্থ করে আওয়ামী লীগের ঐক্য ধরে রেখে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার ওপর দলের নেতৃত্বভার অর্পণ করে তার হাতেই তুলে দিয়েছিলাম দলের সংগ্রামী পতাকা। যেদিন তিনি প্রিয় মাতৃভূমিতে ফিরে এলেন সেদিন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা মনে করেছিল, শেখ হাসিনার মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুকেই ফিরে পেয়েছে। স্বৈরশাসনের অন্ধকারে নিমজ্জিত স্বদেশে তিনি হয়ে ওঠেন আলোকবর্তিকা, অন্ধকারের অমানিশা দূর করে আলোর পথযাত্রী। দলের কাউন্সিল অধিবেশনের সাফল্য কামনা করে শেখ হাসিনা একটি বার্তা প্রেরণ করে বলেছিলেন, ‘আত্মশুদ্ধির মাধ্যমে এগিয়ে যান।’ তিনি সর্বপ্রকার দ্বন্দ্ব-বিভেদ ভুলে ‘আত্মসমালোচনা ও আত্মশুদ্ধি’র মাধ্যমে কাউন্সিলর ও নেতাদের বঙ্গবন্ধুর কর্মসূচি সোনার বাংলা বাস্তবায়নের আহ্বান জানিয়েছিলেন। 

একটা কথা আমার প্রায়ই মনে হয়, সেদিন শেখ হাসিনার হাতে যদি আওয়ামী লীগের পতাকা তুলে দেওয়া না হতো, তাহলে বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার ও মানবতাবিরোধী যুদ্ধাপরাধীদের বিচার বাংলার মাটিতে হতো না। ‘৯৬তে ইনডেমনিটি অর্ডিন্যান্স বাতিল করে বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচারের পথ প্রশস্ত করেছিলেন তিনি। ২০০১-এ ক্ষমতায় এসে খালেদা জিয়া সেই বিচারের পথ বন্ধ করে দেন।

আবার ২০০৮-এর নির্বাচনে ভূমিধস বিজয় অর্জন করে ২০০৯-এ সরকার গঠন করে সেই বিচারের কাজ শেষ করে আদালতের রায় বাস্তবায়নের পথ করে দেন। বাংলার মাটিতে খুনিদের ফাঁসির রায় কার্যকর হয়। যেখানে খালেদা জিয়া যুদ্ধাপরাধী-মানবতাবিরোধী অপরাধীদের গাড়িতে জাতীয় পতাকা তুলে দিয়ে বাঙালি জাতিকে কলঙ্কিত করেছিলেন, সেখানে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করে বাংলার মানুষকে কলঙ্কমুক্ত করে চলেছেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি ও জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি মুন টেলিফোনে অনুরোধ করে কাদের মোল্লার ফাঁসির আদেশ রহিত করতে অনুরোধ করেছিলেন। কিন্তু জনসাধারণের কাছে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ শেখ হাসিনাকে টলাতে পারেননি। স্বাধীন দেশের স্বাধীন নাগরিক হিসেবে শির উঁচু করে চলার অগ্রপথিক তিনি।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আমলে আমরা যদি দেশের উন্নয়নের দিকে তাকাই তাহলে দেখব, বিস্ময়কর উত্থান এই বাংলাদেশের। মানব উন্নয়ন সূচকে বাংলাদেশের অগ্রযাত্রায় বিস্মিত জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি মুন বলেছেন, ‘অন্যান্য স্বল্পোন্নত দেশের উচিত বাংলাদেশকে অনুসরণ করা।’ সামাজিক জীবনের সর্বক্ষেত্রেই আজ আমরা শেখ হাসিনার সুযোগ্য নেতৃত্বে এগিয়ে চলেছি। শিক্ষার হার বেড়েছে, দারিদ্র্যের হার কমেছে, শিল্প ও কৃষিতে বৈপ্লবিক পরিবর্তন ঘটেছে, নারীর ক্ষমতায়ন হয়েছে। বিদ্যুতের আলোয় আলোকিত গ্রামগুলো শহরে রূপান্তরিত হয়েছে। আন্তর্জাতিক বিশ্বে আমরা যখন যাই, তখন আমাদেরকে যারা একদিন তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করে বলেছিল, ‘তলাবিহীন ঝুড়ি’; আজ তারাই বলে- ‘বিস্ময়কর উত্থান বাংলাদেশের।’ 

প্রিয় মাতৃভূমির স্বার্থকে সমুন্নত রাখতে শেখ হাসিনা অঙ্গীকার করেছিলেন- ‘৫০ বছরের গ্যাস মজুদ না রেখে আমি গ্যাস রফতানি করব না।’ সেই অঙ্গীকার তিনি সমুন্নত রেখেছেন এবং দেশের জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাতকে শক্তিশালী করতে নানামুখী উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন। ‘৯৬-এ তিনি রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব লাভের পর পার্বত্য শান্তিচুক্তি করেছেন। ‘৯৮-এর বন্যায় ভিজিএফ কার্ড প্রবর্তনের মাধ্যমে বন্যার্ত প্রায় ৩ কোটি মানুষকে নিরবচ্ছিন্নভাবে খাদ্য সরবরাহ করেছেন, যা বিশ্বের ইতিহাসে এক ব্যতিক্রমী ঘটনা।

ফারাক্কার পানি বণ্টনে বঙ্গবন্ধু সরকার শুস্ক মৌসুমে পেয়েছিল ৪৪ হাজার কিউসেক পানির নিশ্চয়তা। সেই পানি কমতে কমতে খালেদা জিয়ার আমলে ৯ হাজার কিউসেকে নেমেছিল। ২১ বছর পর রাষ্ট্র পরিচালনায় সুযোগ পেয়ে শেখ হাসিনা প্রথমেই পানি সমস্যার সমাধানে ঐতিহাসিক গঙ্গা চুক্তি করেছেন। চুক্তি অনুযায়ী পাওয়ার কথা ৩৪ হাজার কিউসেক। অথচ তাঁর সুযোগ্য নেতৃত্বে শুস্ক মৌসুমে ৬৪ হাজার কিউসেক পর্যন্ত পানি পাওয়া গেছে। বঙ্গবন্ধুর মতো শেখ হাসিনারও রাজনীতির লক্ষ্য-উদ্দেশ্য পরিস্কার ও স্বচ্ছ।

তিনি আজ ৩৭ বছর আওয়ামী লীগের সভাপতি; দীর্ঘ কালপর্বে বহু বাধার প্রাচীর তাঁকে টপকাতে হয়েছে। একটা সময় ছিল যখন আওয়ামী লীগের ঘোর সমর্থকও মন করত, আওয়ামী লীগের ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত এবং অন্ধকারাচ্ছন্ন; রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্বপ্রাপ্তি যেন এক দুঃস্বপ্ন। কিন্তু শেখ হাসিনার বাস্তবোচিত কর্মতৎপরতায় আওয়ামী লীগ তিনবার গণরায় নিয়ে রাষ্ট্র ও সরকার পরিচালনার দায়িত্ব লাভ করেছে। আজ সমগ্র বিশ্বে, বিশেষ করে কৃষি উৎপাদনের পথিকৃৎ বাংলাদেশ।

২০১৪-এর ৭ সেপ্টেম্বর ইউনেস্কোপ্রধান ইরিনা বোকোভা শেখ হাসিনার হাতে ‘শান্তি বৃক্ষ’ পদক তুলে দেওয়ার সময় বলেছিলেন, ‘সাহসী নারী শেখ হাসিনা সারা পৃথিবীকে পথ দেখাচ্ছেন।’ দারিদ্র্য বিমোচন, শান্তি স্থাপন, গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া অনুসরণ, নারীর ক্ষমতায়ন, সুশাসন, মানবাধিকার রক্ষা, আঞ্চলিক শান্তি, জলবায়ু পরিবর্তনের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় সচেতনতা বৃদ্ধি, স্বাস্থ্য খাতে তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে নারী ও শিশুমৃত্যুর হার কমানো এবং ক্ষুুধার বিরুদ্ধে আন্দোলনের সাফল্যে প্রশংসনীয় অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ দেশরত্ন শেখ হাসিনা এ পর্যন্ত অসংখ্য আন্তর্জাতিক পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন। ২০১৫-এর ২৮ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘের ৭০তম সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে পরিবেশ বিষয়ক সর্বোচ্চ পুরস্কার ‘চ্যাম্পিয়নস অব দি আর্থ’ প্রদান করা হয় তাঁকে। নির্যাতিত রোহিঙ্গা শরণার্থীদের আশ্রয় দিয়ে মানবতার অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করে সারাবিশ্বে তিনি পরিচিত হয়েছেন ‘মাদার অব হিউম্যানিটি’ উপাধিতে। 

২০০৮-এর নির্বাচনে জয়লাভের পর সফলভাবে ভারতের সঙ্গে সীমান্ত চুক্তি ও সমুদ্রসীমা নির্ধারণ চুক্তি করেন শেখ হাসিনা। বিশ্বব্যাংকের রক্তচক্ষুু উপেক্ষা করে শির সমুন্নত রেখে তিনি পদ্মা বহুমুখী সেতু নির্মাণের মহতী উদ্যোগ গ্রহণ করেন। বঙ্গবন্ধু সেতু, বঙ্গবন্ধু সেতুতে রেলপথ তারই অবদান। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশে বাস্তবায়িত হচ্ছে অতিকায় সব মেগা প্রজেক্ট।

পদ্মা রেল সেতু সংযোগ প্রকল্প, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র, রামপাল মৈত্রী সুপার থার্মাল পাওয়ার প্রজেক্ট, মাতারবাড়ী আল্ট্রা সুপার ক্রিটিক্যাল কোল ফায়ার্ড পাওয়ার প্রজেক্ট, মহেশখালী এলএনজি টার্মিনাল, সোনাদিয়া গভীর সমুদ্রবন্দর, কর্ণফুলী নদীর তলদেশে টানেল, ঢাকা ম্যাস র‌্যাপিড ট্রানজিট প্রকল্প তথা মেট্রোরেল, পায়রা গভীর সমুদ্রবন্দর এবং দোহাজারী থেকে ঘুমধুম পর্যন্ত রেললাইন নির্মাণের উদ্যোগ- এসবই তাঁর নেতৃত্বে যুগান্তকারী কাজ। দেশে বিদ্যুৎ উৎপাদনে তিনি বৈপ্লবিক পরিবর্তন ঘটিয়েছেন। পূর্বসূরিদের রেখে যাওয়া বিদ্যুতের বিপুল ঘাটতি সাফল্যের সঙ্গে মোকাবেলা করে জনজীবন থেকে লোডশেডিং দূর করেছেন।

বাংলাদেশ আজ স্যাটেলাইট ক্লাব ও পারমাণবিক শক্তি ক্লাবের গর্বিত সদস্য। দেশের মানুষ বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইটের সুবিধা ভোগ করতে শুরু করেছে। রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের কাজ দ্রুত এগিয়ে চলেছে। পদ্মা সেতুর কাজ এখন দৃশ্যমান। বিদ্যুৎ উৎপাদন এখন ২০ হাজার ১৩৩ মেগাওয়াট। ২০২১ সালের মধ্যে দেশের শতভাগ মানুষ বিদ্যুৎ সুবিধা পাবে। বাংলাদেশ এখন বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল। প্রতিবেশী পাকিস্তান থেকে বাংলাদেশ সর্বক্ষেত্রে এগিয়ে। সম্প্রতি পাকিস্তানের নতুন প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান আগামী ৫ বছরের মধ্যে পাকিস্তানকে সুইডেনের মতো উন্নত দেশে রূপান্তরের ঘোষণা দিলে, পাকিস্তানের একটি টেলিভিশন চ্যানেলের আলোচক ইমরান খানের উদ্দেশে বলেন- ‘সুইডেন বানাতে হবে না, আল্লাহর ওয়াস্তে আমাদেরকে বাংলাদেশ বানিয়ে দিন। তাহলেই হবে।’ 

দেশে নির্বাচনী প্রক্রিয়ায় স্বচ্ছতা ফিরিয়ে আনতে শেখ হাসিনার দাবি অনুযায়ী ১/১১’র সেনা সমর্থিত অন্তর্বর্তী সরকার স্বচ্ছ ব্যালট বাক্স ও জাতীয় পরিচয়পত্র প্রণয়নে বাধ্য হয়েছিল। কারামুক্তির পর শেখ হাসিনা জাতির সামনে ঘোষণা করেছিলেন- রূপকল্প-২০২১। তাতে তিনি প্রধান দুটি অঙ্গীকার ঘোষণা করেছিলেন। এক. ডিজিটাল বাংলাদেশ গঠন; দুই. মধ্যম আয়ের দেশে রূপান্তর। তাঁর সুযোগ্য নেতৃত্বে দুটিই এখন বাস্তব। জি-৭ভুক্ত রাষ্ট্রগুলোর আউটরিচ বৈঠকে নিয়মিত অংশগ্রহণ করে দেশকে এক অনন্য উচ্চতায় তুলে ধরেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বিশ্বসম্পদের ৬৪ শতাংশের অধিকারী বিশ্বের শক্তিশালী ও উন্নত রাষ্ট্রগুলোর নেতৃবৃন্দের প্রতি পরিবেশ বিপর্যয় মোকাবেলা এবং ক্ষুধা, দারিদ্র্য ও সন্ত্রাসবাদ-জঙ্গিবাদমুক্ত বিশ্ব গঠনের উদাত্ত আহ্বান জানিয়েছেন শেখ হাসিনা। 

তিনি নিয়মিত পড়াশোনা করেন। ক্যাবিনেট মিটিংগুলোতে যথাযথ হোমওয়ার্ক করে সার্বিক প্রস্তুতি নিয়ে মিটিংয়ে আসেন। একনেক বা ক্যাবিনেট মিটিংয়ের দু’একদিন আগেই মিটিংয়ের আলোচ্যসূচি, প্রস্তাবাবলি আমাদের ফাইলে দেওয়া হয়। যখন একটি বিষয় প্রস্তাব আকারে পেশ করা হয়, তখন সেই বিষয়ের খুঁটিনাটি বিষয় তিনি সভায় সবিস্তারে তুলে ধরেন এবং সঠিকভাবে প্রতিটি প্রস্তাবের ওপর সুচিন্তিত মতামত ব্যক্ত করেন। তাঁর এই অবাক করা প্রস্তুতি আমাদের মুগ্ধ করে। পরিশ্রমী, হাস্যোজ্জ্বল এবং আবেগময়ী মানুষ তিনি। ধর্মপ্রাণ হিসেবে প্রতি প্রত্যুষে তাহাজ্জুদ ও ফজরের নামাজ আদায় করে তবেই তিনি দিনের কাজ শুরু করেন। পিতার মতোই গরিবের প্রতি তাঁর দরদ অপরিসীম। বঙ্গবন্ধুর ফান্ড আমার কাছে থাকত। তিনি গরিব-দুঃখী মানুষকে অকাতরে সাহায্য করতেন। আমাকে নির্দেশ দিতেন- তাদের সাহায্য কর। জাতির পিতার কন্যার কাছে গরিব-দুঃখী মানুষ যখন হাত পাতে, পিতার মতো তিনিও তাদের সাহায্য করেন। আমাদের দেশে যারা বুদ্ধিজীবী-কবি-সাহিত্যিক-সমাজসেবক; তাঁদের বিপদ-আপদে পাশে দাঁড়ান তিনি। একাধিক গ্রন্থের প্রণেতা বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা একজন সফল রাষ্ট্রনায়ক। পিতা-মাতার মতো সাদামাটা জীবনে অভ্যস্ত শেখ হাসিনা সংস্কৃতবান ও খাঁটি বাঙালি নারী। 

বাংলার মানুষের প্রতি শেখ হাসিনার দরদ ও মমত্ববোধ তাঁর জ্যোতির্ময় পিতা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের চেতনা থেকে আহরিত। তবে শুধু বঙ্গবন্ধুকন্যা হিসেবে পরিচিত নন তিনি; বরং আপন যোগ্যতায় স্ব-মহিমায় বাংলার কোটি মানুষের হৃদয়ে তিনি অধিষ্ঠিত। শুধু বাংলাদেশের রাষ্ট্রনায়ক নন, আন্তর্জাতিক নেতা হিসেবে ইতিমধ্যে বিশ্বজনমত ও নেতৃবৃন্দের দৃষ্টি আকর্ষণে তিনি সক্ষম হয়েছেন। বাংলার মানুষের অর্থনৈতিক মুক্তির লক্ষ্যে নিবেদিত প্রিয় নেত্রী শেখ হাসিনার শুভ জন্মদিনে তাঁর দীর্ঘ জীবন কামনা করে কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কবিতা থেকে নিবেদন করছি- ‘চিত্ত যেথা ভয়শূন্য, উচ্চ যেথা শির,
জ্ঞান যেথা মুক্ত, যেথা গৃহের প্রাচীর
আপন প্রাঙ্গণতলে দিবসশর্বরী
বসুধারে রাখে নাই খণ্ড ক্ষুদ্র করি’

আওয়ামী লীগ নেতা, বাণিজ্যমন্ত্রী

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
tofailahmed69@gmail.com