চসিক মেয়রের সাথে বিদায়ী থাই রাষ্ট্রদূতের বৈঠক

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি: বাংলাদেশস্থ থাইল্যান্ডের বিদায়ী রাষ্ট্রদূত মিসেস পেনপিমন সোয়ান্নাপঞ্জ গতকাল রবিবার সকালে নগর ভবনে সিটি মেয়রের কার্যালয়ে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন (চসিক) মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনের সাথে সৌজন্য সাক্ষাত করেন। বৈঠকে সিটি মেয়র বিন্না ঘাসের প্রচার ও প্রসারের লক্ষ্যে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন গৃহিত পরিকল্পনাদি রাষ্ট্রদূতকে অবহিত করেন।

তিনি বলেন পাহাড় ধ্বস, ক্ষয়রোধ, জলাবদ্ধতা রোধকল্পে বিন্না ঘাসের যথেষ্ট ভূমিকা রয়েছে। এ বিন্না ঘাস প্ল্যানটেশন এবং কাল্টিভেশনের মাধ্যমে অতি অল্প খরচে পাহাড় ধ্বস, ক্ষয়রোধ, জলাবদ্ধতা রোধ করা যায়। সে নিরিখে থাইল্যান্ডের রাজকন্যা এবং সাইপাতানা ফাউন্ডেশন এগিয়ে আসার জন্য মেয়র থাইল্যান্ড সরকার সহ সংশ্লিষ্টদের ধন্যবাদ জানান। এ প্রসঙ্গে তিনি সাইপাতানা ফাউন্ডেশন এবং চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন যৌথ উদ্যোগে টাইগারপাস এলাকায় বিন্না ঘাস প্রকল্পের কার্যালয়, বিন্না ঘাস প্ল্যানটেশন ও গবেষনা কাজের কথাও বৈঠকে উল্লেখ করেন।

মেয়র বলেন চট্টগ্রাম হচ্ছে পাহাড়, পর্বত ও সমতল এলাকা। অবিরাম বৃষ্টিপাতে পাহাড় ধ্বস একটি নিত্য নৈমিত্তিক ঘটনা। নগরীর এ সমস্ত পাহাড়ে বিন্না ঘাসের প্ল্যানটেশন করার উপর তিনি গুরুত্বারোপ করেন। মেয়র বিদায়ী রাষ্ট্রদূতের ঢাকায় কর্মকালিন সময়ে তার কাজের ভূয়সী প্রশংসা করেন এবং আগামীতে বাংলাদেশ- থাই সম্পর্ক আরো বৃদ্দির প্রত্যাশা করেন ।

রাষ্ট্রদূত মিসেস পেনপিমন সোয়ান্নাপঞ্জ মেয়রের এ উদ্যোগের প্রশংসা করেন এবং বাংলাদেশ থেকে চলে যাওয়ার পর তিনি তার বাড়ী এলাকায় এ বিন্না ঘাসের চারা রোপন করবেন বলে মেয়রকে জানান। তিনি বলেন থাইল্যান্ড ও বাংলাদেশের মধ্যে দ্বি-পাক্ষিক সম্পর্ক অত্যন্ত চমৎকার। রাষ্ট্রদূত বলেন উভয় দেশের সরকার নৌপথ সংযোগ স্থাপনসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে অধিকতর সম্পর্ক উন্নয়নের জন্য নিরলসভাবে কাজ করছে। এর ফলে উভয় দেশ দক্ষিণ এশিয়ার অর্থনৈতিক করিডোরের সাথে যুক্ত হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন। এর পূর্বে থাইল্যান্ড রাষ্ট্রদূত টাইগারপাসস্থ বিন্না ঘাস প্রদর্শনী কেন্দ্র ও ট্রেনিং সেন্টার পরিদর্শন করেন।

সাক্ষাতকালে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সামসুদ্দোহা, প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা ড. মুহাম্মদ মুস্তাফিজুর রহমান, প্রধান প্রকৌশলী লে. কর্ণেল মহিউদ্দিন আহমেদ, নির্বাহী প্রকৌশলী সুদীপ বসাক, বিপ্লব দাশ এবং থাইল্যান্ডের অনারারি কনস্যুল আমির হুমায়ুন মাহমুদ চৌধুরী, পিএইচপি ফ্যামিলি ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মহসিন উপস্থিত ছিলেন।

প্রিন্স, ঢাকা