মাদকের বিরুদ্ধে জিহাদ ঘোষনা

নজরুল ইসলাম মুকুল, কুষ্টিয়া: কুষ্টিয়ার নবাগত পুলিশ সুপার এসএম তানভীর আরাফাত পিপিএম বলেছেন, কুষ্টিয়াকে যে কোন মূল্যে মাদক মুক্ত করা হবে। মাদক ব্যবসায়ীরা যত বড়ই শক্তিশালী হউক না কেন তাদেরকে ছাড় দেয়া হবে না। তিনি বলেন মাদকের বিরুদ্ধ জিহাদ ঘোষনা করা হয়েছে , মাদক ব্যবসায়ী ও সেবনকারীরা মাটির তলায় লুকিয়ে থাকলেও তাদেরকে মাটি খুড়ে বের করে আনা হবে।

রবিবার দুপুরে পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে কুষ্টিয়া জেলা মাদক প্রতিরোধ কমিটির নেতৃবৃন্দ নবাগত পুলিশ সুপার এসএম তানভীর আরাফাতকে ফুলের শুভেচ্ছা জানাতে গেলে তিনি এ সব কথা বলেন, পুলিশ সুপার এসএম তানভীর আরাফাত আরো বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও পুলিশের আইজিপিসহ উর্ধতন পুলিশ কর্মকর্তারা মাদককের বিরুদ্ধে কঠোর প্রদক্ষেপ গ্রহন করেছেন। দেশ থেকে মাদক উচ্ছেদ না হওয়া পর্যন্ত পুলিশের বেপরোয়া অভিযান অব্যাহত থাকবে। তিনি জেলা মাদক প্রতিরোধ কমিটির কাছে সকল প্রকার সহযোগীতা আশা করেন। পুলিশ সুপার বলেন, ভয়ভীতির উর্দ্ধে থেকে আপনারা কাজ চালিয়ে যাবেন আমার সকল প্রকার সহযোগীতা আপনাদের প্রতি থাকবে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জাহিরুল ইসলাম ,অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সদর সার্কেল নুরানী ফেরদৌস দিশা, জেলা মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ কর্মকর্তাসহ জেলা মাদক প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি হাসিবুর রহমান রিজু, যুগ্ম সম্পাদক এম সোহাগ হাসান, সাংগঠনিক সম্পাদক শাহারিয়া ইমন রুবেল, প্রচার সম্পাদক আল-আমিন খান রাব্বি, মীর আব্দুর রাজ্জাক, দৌলতপুর উপজেলা মাদক প্রতিরোধ কমিটির আহবায়ক আসাদুজ্জামান চৌধুরী লোটন, যুগ্ম আহবায়ক আনিচুর রহমান সাগর, মিরপুর উপজেলা কমিটির সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক হাসানুর খান তাপস, যুগ্ম আহবায়ক আলম মন্ডল, পৌর কমিটির সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা শহিদুল ইসলাম, খোকসা উপজেলা কমিটির যুগ্ম আহবায়ক হুমায়ুন কবির, হাটশ হরিপুর কমিটির আহবায়ক ইঞ্জিনিয়ার জুয়েল রানা, কুমারখালী উপজেলার কয়া কমিটির সভাপতি সাদিয়া জামিল কনা, সাধারণ সম্পাদক মনোয়ার হোসেন সহ জেলা উপজেলা কমিটির সদস্যবৃন্দ। এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন সাংবাদিক ইউনিয়ন কুষ্টিয়ার সভাপতি হাজী রাশেদুল ইসলাম বিপ্লব, কুষ্টিয়া সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি নজরুল ইসলাম মুকুল।

পুলিশ সুপা বলেন, আমার চ্যালেঞ্জ হচ্ছে মাদক, সন্ত্রাস ও জঙ্গীমুক্ত কুষ্টিয়া জেলা গড়ে তোলা। আপনাদের মাধ্যমে আজ থেকে আমি মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করছি। মাদক নির্মুলের ক্ষেত্রে কোন তদবির শোনা হবে না। এখন থেকে মাদককে যে প্রশ্রয় দেবে সেই পুলিশ কর্মকর্তা কুষ্টিয়া জেলায় চাকরি করতে পারবে না। মাদকের বিরুদ্ধে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে কুষ্টিয়ার স্কুল-কলেজসহ সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মাদক সচেতনতা বিরোধী ক্যাম্পেইন শুরু করারও ঘোষণা দেন তিনি।

প্রিন্স, ঢাকা