রূপপুর বিদ্যুৎ প্রকল্পের সুরক্ষায় রাশিয়ার সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষর

নিউজ ডেস্ক:   বাংলাদেশ ইচ্ছা করলে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের মূল এবং সহযোগী স্থাপনা গুলোর ফিজিক্যাল সুরক্ষা ব্যবস্থার নকশা প্রনয়ণ ও বাস্তবায়নে রাশিয়ার বিশেষায়িত প্রতিষ্ঠানগুলোকে যুক্ত করতে পারবে। গত ১৭ই সেপ্টেম্বর ভিয়েনায় এতদ্বসম্পর্কিত একটি প্রোটোকল স্বাক্ষরিত হয় বলে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের সচিব আনোয়ার হোসেন মঙ্গলবার রাতে নিশ্চিত করেছেন। বাংলাদেশের রূপপুরে পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প নির্মাণে বাংলাদেশ ও রুশ সরকারের মধ্যে ২০১১ সালের ২ নভেম্বর স্বাক্ষরিত অংশিদারিত্ব চুক্তিটিতে এই প্রোটোকলটির মাধ্যমে প্রয়োজনীয় সংশোধনী আনা হচ্ছে বলে জানা গেছে।

বাংলাদেশ সরকারের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক মন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান এবং রাশিয়ার রসাটম রাস্ট্রীয় পারমাণবিক শক্তি কর্পোরেশনের মহাপরিচালক আলেক্সি লিখাচোভ ভিয়েনায় আন্তর্জাতিক পারমাণবিক শক্তি এজেন্সির (আইএইএ) চলমান ৬২তম সাধারণ সম্মেলন চলাকালিন সময়ে প্রোটোকলটিতে তাঁরা স্বাক্ষর করেন। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সচিব আনোয়ার হোসেন, বাংলাদেশ পরমাণু নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড.নাঈয়ুম চৌধুরী, রাশিয়ায় নিযুক্ত বাংলদেশী রাষ্ট্রদূত সাইফুল হক, রাশিয়ার এটমস্ত্রয়এক্সপোটের মহাপরিচালক ভ্যলোরী লিমারেনকা প্রমূখ কর্মকর্তা এসময় উপস্থিত ছিলেন।

আন্তর্জাতিক পারমাণবিক শক্তি এজেন্সির (আইএইএ) চাহিদা ও গাইডলাইন অনুসরণ করে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের নির্মাণ সাইটের প্রয়োজনীয় ফিজিক্যাল সুরক্ষা ব্যবস্থার নকশা প্রনয়ণ ও বাস্তবায়নের কথাও উল্লেখ রয়েছে প্রোটোকলটিতে।

উল্লেখ্য, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পে প্রতিটি ১২০০ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন ২টি ইউনিট থাকবে। আন্তর্জাতিক পারমাণবিক শক্তি সংস্থা (আইএইএ) এবং বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের (বায়েরা) কঠোর মনিটরিং প্রক্রিয়ায় প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে, রসাটমের প্রকৌশল শাখা এটমস্ত্রয়এক্সপোর্ট (এএসই)।