শহিদুল আলমের জামিন চেয়ে আবারও আবেদন হাইকোর্টে

নিউজ ডেস্ক: আবারও জামিন চেয়ে হাইকোর্টে আবেদন করেছেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনের মামলায় গ্রেপ্তার আলোকচিত্রী শহিদুল আলম। মঙ্গলবার তার আইনজীবীরা হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় জামিন আবেদনটি দায়ের করেন।    

বুধবার বিচারপতি মো. রেজাউল হক ও বিচারপতি আবু তাহের মো. সাইফুর রহমানের বেঞ্চে আবেদনটির শুনানি হতে পারে। 

শহিদুল আলমের আইনজীবী জ্যেতির্ময় বড়ুয়া জানান, তিনি (শহিদুল আলম) শারীরিকভাবে অসুস্থ। জামিন পেলে তিনি দেশ ছেড়ে পালিয়ে যাবেন না। তাছাড়া তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগগুলো তথ্যপ্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারায় পড়ে না। এসব বিষয় উল্লেখ করে তার জামিন আবেদন করা হয়েছে।

গত ১১ সেপ্টেম্বর ঢাকার মহানগর দায়রা জজ আদালত আইসিটি আইনের মামলায় শহিদুল আলমের জামিন আবেদন নাকচ করে দেন। এর আগে গত ৪ সেপ্টেম্বর বিচারপতি মো. রুহুল কুদ্দুস ও বিচারপতি খন্দকার দিলীরুজ্জামানের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ জামিন আবেদন শুনতে বিব্রত বোধ করেন। এরপর প্রধান বিচারপতি বিষয়টি শুনানির জন্য বিচারপতি মো. রেজাউল হক ও বিচারপতি আবু তাহের মো. সাইফুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চে পাঠান।

পরে গত ১০ সেপ্টেম্বর ওই বেঞ্চ ১১ সেপ্টেম্বরের মধ্যে শহিদুল আলমের জামিন আবেদনটি নিষ্পত্তি করতে ঢাকার মহানগর দায়রা জজ আদালতকে নির্দেশ দেন, যা পরে নাকচ করে দেন ওই আদালত।

নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন চলাকালে গত ৬ আগস্ট ‘উসকানিমূলক মিথ্যা’ প্রচারের অভিযোগে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনের মামলায় শহিদুল আলমকে রিমান্ডে নেয় পুলিশ। এর আগের দিন রাতে ডিবি পুলিশ তাকে ধানমন্ডির বাসা থেকে তুলে নেয়। সাত দিনের রিমান্ড শেষে গত ১২ আগস্ট তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন নিম্ন আদালত।

এরপর গত ৬ আগস্ট ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম শহিদুল আলমের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করেন। ১৪ আগস্ট ঢাকার মহানগর দায়রা জজ আদালতে তার জামিন আবেদন করা হলে ১১ সেপ্টেম্বর শুনানির জন্য দিন ধার্য করা হয়। এরপর ১৯ আগস্ট এই মামলার শুনানির তারিখ এগোনোর জন্য আবেদন করা হলে আদালত তা গ্রহণ করেননি। এই অবস্থায় ২৬ আগস্ট শহিদুল আলমের অন্তর্বর্তীকালীন জামিন চাইলে শুনানির জন্য তা গ্রহণ করেননি আদালত।  এরপর ২৮ আগস্ট তার জামিন চেয়ে হাইকোর্টে আবেদন করা হয়।