দশম সংসদের শেষ অধিবেশন আজ শুরু

নিউজ ডেস্ক: দশম জাতীয় সংসদের শেষ অধিবেশন শুরু হচ্ছে আজ রোববার বিকেলে। গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ (আরপিও) ও সড়ক নিরাপত্তা বিলসহ গুরুত্বপূর্ণ কিছু সিদ্ধান্ত হতে পারে এবারের অধিবেশনে। পাঁচ বছর আগে তীব্র রাজনৈতিক টানাপড়েনের মধ্যে যাত্রা শুরু হয়েছিল এই সংসদের। কিন্তু সব ধরনের আশঙ্কাকে অমূলক প্রমাণ করে দশম সংসদ তার পাঁচ বছরের পূর্ণ মেয়াদ শেষের পথে।

বিকেল ৫টায় স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদের বৈঠক শুরু হবে। এর আগে কার্য-উপদেষ্টা কমিটির বৈঠকে এ অধিবেশনের কার্যসূচি ও মেয়াদ নির্ধারিত হবে। সংশ্নিষ্টরা জানিয়েছেন, এবারের অধিবেশন মেয়াদ নিয়ে সরকারের মধ্যে দুই ধরনের মত রয়েছে। আগামী ১৪ সেপ্টেম্বর এই অধিবেশন শেষ করার চিন্তাভাবনা যেমন রয়েছে, তেমনি ১৪ সেপ্টেম্বর থেকে বড় ধরনের বিরতি দিয়ে অক্টোবরের শেষ পর্যন্ত চালিয়ে নেওয়ার পক্ষেও জোরালো মত রয়েছে। সংসদ সচিবালয়ের কর্মকর্তার মতে, এই অধিবেশন ৩০ অক্টোবর পর্যন্ত চলতে পারে।

এটাকে শেষ অধিবেশন ধরে নিয়েই তারা প্রস্তুতি নিচ্ছেন। গত ১৯ আগস্ট সংসদের ২২তম অধিবেশন আহ্বান করেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। এর আগে গত ১২ জুলাই শেষ হয় একুশতম অধিবেশন। সংসদের চিফ হুইপ আ স ম ফিরোজ  সমকালকে বলেন, নিয়ম অনুযায়ী এটাই শেষ অধিবেশন। কারণ, এই অধিবেশন সংক্ষিপ্ত করলেও নতুন আরেকটি অধিবেশন ডাকার সুযোগ কম। এ জন্য এবারের অধিবেশনটি কিছুদিনের জন্য মুলতবি করে অক্টোবরের শেষ ভাগ পর্যন্ত চলার সম্ভাবনা রয়েছে। তবে কার্য-উপদেষ্টা কমিটির বৈঠকের আগে চূড়ান্তভাবে কিছু বলার সুযোগ নেই।

সংশ্নিষ্টরা জানিয়েছেন, আগামী একাদশ সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে এবারের অধিবেশনকে বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে। সংসদ নেতা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্বাচন নিয়ে দলীয় সাংসদদের দিকনির্দেশনা দিতে পারেন।

এ ছাড়া অধিবেশনে সড়ক পরিবহন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ও গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশসহ (আরপিও) বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ আইন পাস হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। চলতি সংসদের দু’জন সদস্য মারা যাওয়ায় রেওয়াজ অনুযায়ী অধিবেশনের প্রথম দিন শোক প্রস্তাব শেষে অধিবেশন মুলতবি করা হবে। গত ২৬ জুলাই আওয়ামী লীগ দলীয় সংসদ সদস্য মোস্তফা রশিদী সুজা ও ১৩ আগস্ট বিরোধীদলীয় চিফ হুইপ ও জাতীয় পার্টির এমপি তাজুল ইসলাম মারা যান।

সংসদ সচিবালয় সূত্রে জানা গেছে, এ পর্যন্ত ২১টি বিল সংসদের বিবেচনার অপেক্ষায় রয়েছে। ইতিমধ্যে মন্ত্রিসভায় অনুমোদন পাওয়া বাংলাদেশ শ্রম (সংশোধন) আইনটি সংসদের আইন শাখায় জমা পড়েছে। এ ছাড়া ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোট গ্রহণের লক্ষ্যে আরপিও সংশোধনী প্রস্তাব নির্বাচন কমিশনের অনুমোদনের পর আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। সবকিছু ঠিক থাকলে আইন মন্ত্রণালয় থেকে ভেটিংয়ের পরে চলতি সপ্তাহেই মন্ত্রিসভা হয়ে প্রস্তাবটি বিল আকারে সংসদের বিবেচনার জন্য উঠতে পারে।

সংসদ সচিবালয়ের আইন শাখা সূত্র জানিয়েছে, চলতি অধিবেশনে সংসদের বিবেচনার (পাস) জন্য তিনটি বিল এরই মধ্যে প্রস্তুত রয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন করপোরেশন বিল, শিশু (সংশোধন) বিল ও বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ বিল।