নাটক-সিনেমার মতো কক্ষে বিচার চলছে খালেদা জিয়ার

নিউজ ডেস্ক: সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন অভিযোগ করে বলেছেন, ঢাকার পুরাতন কেন্দ্রীয় কারাগারের যে  কক্ষটিকে আদালত হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে তা বাংলাদেশ সংবিধানের আর্টিক্যাল ৩৫(৩) এবং ফৌজদারী কার্যবিধির ৩৫২ ধারা মোতাবেক কোনো উন্মুক্ত আদালত নয় বা হতে পারে না।

সেখানে পাবলিক তো দূরের কথা খালেদা জিয়া ও অন্যান্য আসামিদের নিয়োজিত আইনজীবী কিংবা আত্মীয়-স্বজন প্রবেশ এবং আদালতের কার্যক্রম দেখা বা শোনার কোনো সুযোগ নাই। নাটক সিনেমায় যে রকম দেখানো হয় সেই আকৃতির একটি আদালত কক্ষ বসানো হয়েছে। যেটা একটি গুহার মতো স্যাঁতস্যাঁতে। সেখানে স্বাভাবিক শ্বাস-প্রশ্বাস নেওয়ার সুযোগ নেই বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

বৃহস্পতিবার খালেদা জিয়ার বিচারকার্য পরিচালনার জন্য ঢাকা পুরাতন কেন্দ্রীয় কারাগারে অস্থায়ী আদালত স্থাপন করার বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবীর ব্যানারে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

লিখিত বক্তব্যে জয়নুল আবেদীন বলেন, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সংবিধানের আর্টিক্যাল ৩৫(৩) এবং ফৌজদারী কার্যবিধি ৩৫২ ধারা মোতাবেক আদালত বলতে একটি উন্মুক্ত আদালতের কথা বলা হয়েছে যেখানে যেকোনো পাবলিক এর সাধারণভাবে প্রবেশাধিকার থাকে। কিন্তু আপনারা জানেন যে, সেখানে পাবলিকতো দূরের কথা বেগম খালেদা জিয়া ও অন্যান্য আসামিদের নিয়োজিত আইনজীবী কিংবা আত্মীয়-স্বজন প্রবেশের সুযোগ নেই।

কারা অভ্যন্তরে গঠিত আদালতটি মোটেই উন্মুক্ত আদালত না হওয়ায় এবং সেখানে পাবলিক ট্রায়াল হওয়ার কোনো সুযোগ না থাকায় এইরূপ বেআইনি আদালতে বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মামলার বিচার কার্যক্রম চলার আইনগত কোনো সুযোগ নেই।

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে থাকা অন্য মামলার শুনানির জন্য কারাগারের ভেতরে আদালত বসানোর বিষয়ে প্রজ্ঞাপন প্রত্যাহার করে উন্মুক্ত স্থানে বিচারকার্য পরিচালনা করার দাবি জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সম্পাদক ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকনসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।