বিশেষ ক্ষমতা আইনে নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করা হচ্ছে: রিজভী

নিউজ ডেস্ক: দেশব্যাপী আবারও নতুন করে বিশেষ ক্ষমতা আইনে বিএনপি, অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের নামে মামলা দিয়ে নির্বিচারে গ্রেফতার করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

মঙ্গলবার (৪ সেপ্টেম্বর) নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এই অভিযোগ করেন।

রিজভী বলেন, ‘দেশব্যাপী আবারও নতুন করে বিশেষ ক্ষমতা আইনে অথবা নিজেরাই নাশকতার মতো ঘটনা ঘটিয়ে বিএনপি, অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের নামে মামলা দিয়ে নির্বিচারে গ্রেফতার করা হচ্ছে। গত কয়েক দিনে প্রায় চার শতাধিক নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।’

সরকার আতঙ্কে ভুগছে মন্তব্য করে রিজভী বলেন, ‘গুম, খুন, বিচারবর্হিভূত হত্যা, দুর্নীতি ও দুঃশাসনের কাদায় আটকে পড়ে এখন বিএনপি নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা ও গ্রেফতারের মাধ্যমে মরণ কামড় দিচ্ছে। পুরনো মামলা চালু করা এবং নাশকতার অভিযোগ এনে দেশব্যাপী নেতাকর্মীদের মামলায় জড়ানো হচ্ছে। অভিযোগের ধরন একই রকম। সুতরাং মামলাগুলো যে পরিকল্পিত, সে বিষয়ে কোনও সন্দেহ নেই। ’

কিছু দিন আগেও গণমাধ্যমের সুবাধে দেখা গেছে, পুলিশ ছাত্র ও যুবকদের পকেটে মাদক ঢুকিয়ে দিয়ে হয়রানি করছে উল্লেখ করে রিজভী বলেন, ‘ঠিক এখন একই কায়দায় ককটেল বা অন্যান্য বিস্ফোরক বস্তু দেখিয়ে বিএনপি নেতাদের নামে মামলা দেওয়া হচ্ছে, গ্রেফতার করা হচ্ছে।’

‘জাতীয় ঐক্যের নামে সাম্প্রদায়িক চক্রান্ত হচ্ছে, বিএনপি ক্ষমতায় আসলে পরিস্থিতি ভয়াবহ হবে’, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের এই বক্তব্যের সমালোচনা করেন রিজভী। তিনি বলেন, ‘আকস্মিকভাবে সাম্প্রদায়িক বিভাজনের আওয়ামী নেতার বক্তব্য অশুভ চক্রান্তের ইঙ্গিতবাহী। আবহমান বাংলাদেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতিকে বিনষ্ট করে সমাজে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির মাধ্যমে ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করতে নেমে পড়েছেন ওবায়দুল কাদের সাহেবরা ।’

‘সংবিধানের ২৮ অনুচ্ছেদে সব ধর্মের মানুষের সমান অধিকার সম্বলিত যে বিধান সংরক্ষিত আছে, ওবায়দুল কাদের সাহেবের বক্তব্য সেই অধিকারকেও বিপন্ন করার উসকানি’ বলে উল্লেখ করেন রিজভী।

‘বিএনপি ক্ষমতায় আসলে একলাখ মানুষকে হত্যা করা হবে’, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদের এই বক্তব্যের প্রসঙ্গ টেনে বিএনপি নেতা বলেন, ‘এ তথ্য কোন পরিসংখ্যান ব্যুরো থেকে সংগ্রহ করেছেন তিনি, তা জানতে চাই। এ তথ্যের উৎস কী হাসানুল হক ইনু, না সজীব ওয়াজেদ জয় ? একলাখ লোক মারা যাওয়ার আশঙ্কা করছেন কেন তোফায়েল আহমেদ? আপনাদের কোন অপকর্মের কারণে এ আশঙ্কা করছেন ? ’

রিজভী আরও বলেন, ‘বিএনপিতো এর আগে অনেকবার ক্ষমতায় এসেছে, কিন্তু কোথাওতো রক্ত ক্ষরণের কোনও দৃষ্টান্ত নেই। আপনাদের কোন অন্যায়-অপরাধের কারণে এত ভয় পাচ্ছেন? আপনাদের এলাকায় বিএনপি নেতাকর্মী ও সমর্থকরা ঘরবাড়ি ছেড়ে দোকান পাট, গরু ছাগল বিক্রি করে ঢাকাসহ বিভিন্ন শহরে মানবেতর জীবনযাপন করছেন।’

বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের দেখামাত্র আওয়ামী লীগ হামলা করে, জখম করে বলে দাবি রিজভীর। তিনি বলেন, ‘বিরোধী দল ও মতের যে কোনও ব্যক্তিই ভোলা এলাকায় বসবাস করতে পারছে না। নিজেদের অপকর্মের প্রতিশোধ হতে পারে, এ আশঙ্কায় কি তোফায়েল আহমেদ মানুষ হত্যার কাল্পনিক তথ্য দিচ্ছেন? আসলে ভবিষ্যতে ব্যাপক হত্যার ভীতি ছড়িয়ে জনসমাজে আতঙ্কজনক পরিস্থিতি তৈরি করছেন। বিরোধী দল দমনে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের উজ্জীবিত করছেন? বিএনপি প্রতিহিংসা প্রতিশোধের রাজনীতি করে না।’