নিরাপদ সড়কের আন্দোলনে সহিংসতায় ইইউর উদ্বেগ

নিউজ ডেস্ক: শিক্ষার্থীদের নিরাপদ সড়কের দাবির আন্দোলনকে কেন্দ্র করে সংঘাত ও সহিংসতার ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে ইউরোপের দেশগুলোর রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক সংস্থা ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)।

ঢাকায় ইইউ এর মিশন প্রধানরা মঙ্গলবার এক যৌথ বিবৃতিতে এ উদ্বেগের কথা জানায়। এতে সব পক্ষকে শান্ত থেকে শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ জানানোর অধিকারের প্রতি সম্মান দেখানোর আহ্বান জাননো হয়।

বিবৃতিতে বলা হয়, বিক্ষোভকারী, সাংবাদিক ও অন্যদের বিরুদ্ধে বেআইনি ও অসম সহিংসতার ঘটনা বন্ধ করতে হবে। যেসব ঘটনা ঘটেছে, তার তদন্ত করে দোষীদের বিচার করতে হবে।

শিক্ষার্থীদের যেসব দাবি পূরণ করা হয়েছে তার জন্য সরকারকে ধন্যবাদ জানিয়ে ইইউ সমস্যা সমাধানে অন্যান্য ক্ষেত্রেও দ্রুত পদক্ষেপ নেবে বলেও আশা প্রকাশ করে।

গত ২৯ জুলাই রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কে বাসের চাপায় শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের দুই শিক্ষার্থী নিহত হয়। ওইদিনই ক্ষোভে ফুঁসে উঠে শিক্ষার্থীরা রাস্তায় নেমে আসে। সারাদেশেই আন্দোলন ছড়িয়ে পড়ে।

সড়কে শিক্ষার্থীদের টানা কয়েকদিনের অবস্থানে গণপরিবহন বন্ধ হয়ে যায়। সংঘাত ও সহিংসতাও হয়েছে বিভিন্ন জায়গায়। এরই মধ্যে শিক্ষার্থীদের এই আন্দোলনের প্রেক্ষাপটে কিছু ক্ষেত্রে শাস্তির মাত্রা বাড়িয়ে সোমবার মন্ত্রিসভায় সড়ক পরিবহনের আইনের খসড়ায় চূড়ান্ত অনুমোদন দেওয়া হয়।

যৌথ বিবৃতিতে সই করেছেন- ঢাকায় ব্রিটিশ হাই কমিশনার অ্যালিসন ব্লেক, স্পেনের রাষ্ট্রদূত আলভারো দে সালাস হিমেনে দি আসকারাতে, ফ্রান্স দূতাবাসের শার্জ ডি অ্যাফেয়ার্স জ্যঁ-পিয়েরে পঁশে, ডেনমার্কের রাষ্ট্রদূত মিকেল হেমনিটি ভিনটার, ইটালি দূতাবাসের শার্জ ডি অ্যাফেয়ার্স জুজেপ্পে সেমেনসা, জার্মান দূতাবাসের শার্জ ডি অ্যাফেয়ার্স মিশায়েল শুলথাস, সুইডেন দূতাবাসের শার্জ ডি অ্যাফেয়ার্স আন্দের্স ওরস্ট্রম, ইউরোপীয় ইউনিয়ন ডেলিগেশনের শার্জ ডি অ্যাফেয়ার্স কন্সটানটিনোস ভারডাকিস এবং নেদারল্যান্ডসের শার্জ ডি অ্যাফেয়ার্স ইয়েরোন স্টেগস।

সূত্র: সমকাল