৫% ছাড়ে অষুধ বিক্রয়ের দাবিতে ব্যবসায়ীদের মতবিনিময়

নাটোর প্রতিনিধি: ঔষধের সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য থেকে ৫% ছাড়ে ঔষধ বিক্রয় করার দাবিতে নাটোরে স্থানীয় সাংসদ মোঃ শফিকুল ইসলাম শিমুলের সাথে বাংলাদেশ কেমিস্ট ও ড্রাগিস্ট এসোসিয়েশন নাটোর জেলা শাখার ব্যবসায়ীদের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার বেলা সাড়ে ১১ টায় জেলা আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় ক্ষুদ্র ঔষধ দোকান মালিকদের অভিযোগ, ঔষধের প্যাকেটের গায়ে লেখা সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য থেকে ৫% ছাড়ে ঔষধ বিক্রয় করতে দিতে হবে। ঔষধ কোম্পানী নির্ধারিত ১২.৫% থেকে ১০% ছাড় দিয়ে ব্যবসা করে ২.৫ লাভ করে দোকান ভাড়া, সংসার চালানো, কোম্পানীর ঔষধের দাম পরিশোধ ইত্যাদি মেটানো অতীব কষ্টকর বিষয়। তারা সমিতির স্বেচ্ছাচারী নির্বাচনে কমিটি গঠনেরও সমালোচনা করে।

এসোসিয়েশনের সভাপতি মোঃ গোলাম কিবরিয়া বলেন সরকারী নির্দেশনায় ক্যাব এর ২০(ক)(১) ধারা মতে সর্বোচ্চ খুচরা মূল্যের মধ্যে যে কোন মূল্যে একজন ব্যবসায়ী ঔষধ বিক্রি করতে পারবেন। এখানে কোন বাধ্য বাধকতা নাই অথবা ৫% ছাড়ে ঔষধ বিক্রি করার ক্ষেত্রে কাউকে কোনরুপ চাপও প্রয়োগ করা যাবে না। নিরপেক্ষ নির্বাচনের মাধ্যমে কমিটি নির্ধারন করা যাবে বলেও তিনি মত দেন।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক মোর্ত্তজা আলী বাবলু বলেন এই সমস্যা আপনাদের সৃষ্টি আপনাদেরকেই এর সমাধান করতে হবে। নির্বাচনের আগে সাধারন ক্রেতাদের ঔষধ খরচ বাড়িয়ে সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করার মত কোন কাজ করা যাবে না বলে মন্তব্য করেন।

নাটোর ২ আসনের সাংসদ মোঃ শফিকুল ইসলাম শিমুল বলেন ঔষধের এমনভাবে দাম বাড়ানোর প্রক্রিয়া এটাই নতুন। পাবনা, বগুড়া, রাজশাহীর কোথাও এমআরপি থেকে ৫% ছাড় দিয়ে ঔষধ বিক্রি করে না। তারা ১০% ছাড় দিয়েই বিক্রি করে। ২ বা ১ টি দোকান বাদে বেশির ভাগ দোকানই এটা অনুসরণ করে। তবে যাদের সামর্থ্য আছে তাদের কাছ থেকে এমআরপি থেকে ৫% ছাড়ে ঔষধ বিক্রি করলে সমস্যা নেই কিন্তু অসচ্ছল বা দরিদ্রদের কাছ থেকে নির্ধারিত ১০% ছাড়ে ঔষধ বিক্রি করলে মানবতার পরিচয় দেয়া হবে। আর যে কোন ঔষধ ব্যবসায়ী এমআরপি র নীচে যেকোন মূল্যে পণ্য বিক্রি করতে পারবে এতে কোন বাধ্য বাধকতা নেই।

প্রিন্স, ঢাকা নিউজ২৪