ময়মনসিংহে মেডিকেল বিশ্ব বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করা হবে

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি: দেশের অষ্টম ময়মনসিংহ বিভাগের জনগুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো নিয়ে এক বিশেষ মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। ময়মনসিংহ শহরের সড়কগুলো এবং ড্রেন-খাল গুলো প্রশস্ত ও বর্ধিত করে দ্রুত প্রকল্প তৈরি করে তা অনুমোদনের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে প্রেরণ করার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এসডিজি বিষয়ক মূখ্য সমন্বয়ক মোঃ আবুল কালাম আজাদ। তিনি বলেন প্রধানমন্ত্রীর ঘোষনা অনুযায়ী ময়মনসিংহ বিভাগে মেডিকেল বিশ্ব বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ দ্রুত নেয়া হবে।

আগামী দুই মাসের মধ্যে জয়দেবপুর থেকে ময়মনসিংহ হয়ে জামালপুর পর্যন্ত ডাবল এবং ডুয়েল গেজ রেলপথ নির্মাণের সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের কাজ শেষ করা হবে। নবগঠিত শিক্ষা বোর্ডের জনবলসহ আবাসিক সমস্যার সমাধান, তিন জেলা ৩টি সাংস্কৃতিক পল্লী, বিভাগীয় শিশু হাসপাতাল নির্মাণে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া হবে। এছাড়াও ময়মনসিংহ সদর উপজেলার পরাণগঞ্জে ২০ শয্যা হাসপাতালে লোকবল নিয়োগসহ পূর্ণাঙ্গ ভাবে আগামী ২ মাসের মাঝে চালু করার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন এসডিজি বিষয়ক মূখ্য সমন্বয়ক।

এছাড়াও ময়মনসিংহ পৌরসভার মেয়র ইকরামূল হক টিটুকে শহরের জিরো পয়েন্টের উল্টোদিকে পুরাতন ব্র‏পূত্র নদের তীরে আধুনিক ও দৃষ্টি নন্দন একটি শিশুপার্ক এবং পর্যটন কেন্দ্র নির্মাণ করার জন্য পর্যটন কর্পোরেশনকে নির্দেশ দিয়েছেন এসডিজি বিষয়ক মূখ্য সমন্বয়ক আবুল কালাম আজাদ ।

ময়মনসিংহ জেলা প্রশাসকের সম্মেলনে কক্ষে বৃহস্পতিবার দুপুরে দেশের অষ্টম বিভাগের চলমান উন্নয়ন প্রকল্প সমূহের বাস্তবায়ন,অগ্রগতি সর্ম্পতে বিশষে উন্নয়ণ ও সমন্বয় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। ময়মনসিংহ বিভাগীয় নতুন শহরের সম্ভাব্যতা যাচাই ও পরিবেশ বিষয়ক ছাড়পত্র সহ দ্রুত ডিপিপি প্রনয়ণ করে জনপ্রশাসন মন্ত্রনালয়ে প্রেরণের জন্য বিভাগীয় কমিশনারকে নিদের্শ দিয়েছেন আবুল কালাম আজদ।

এছাড়াও বিভাগীয় শহরের জন্য নির্ধারিত এলাকায় খাস জমিতে সরকারি অবকাঠামো দ্রুত নির্মাণের প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়ার জন্য সংশ্লিষ্টদের নিদের্শ দিয়েছেন। এছাড়াও এই বিভাগে চলমান বিভিন্ন প্রকল্প সম্পর্কে তথ্য উপস্থাপন করা হয়। মানসম্পন্ন ভাবে কাজ নির্ধারিত সময়ের মধ্যে শেষ করার জন্য আহবান জানান। এছাড়াও সভায় রেল সচিব ব্রিটিশ আমলে নির্মিত ময়মনসিংহ জংশন রেলওয়ে স্টেশনটি সরানোর সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের কাজ করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন।

ময়মনসিংহ বিভাগীয় কমিশনার মাহমুদ হাসানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন নৌ-পরিবহন সচিব মো: আাব্দুস সামাদ, রেলপথ বিভাহের সচিব মো: মোফাজ্জল হোসেন, সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রলালয়ের সচিব নাসির উদ্দিন আহমেদ, স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগের ভারপ্রাপ্ত সচিব জি.এম সালেহ উদ্দিন, বঙ্গবন্ধু নভো থিয়েটারে মহাপরিচালক আবুল বাশার মো: জহুরুল ইসলাম, রেলওয়ের মহাসচিব ইঞ্জিনিয়ার আমজাদ হোসেন, সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত প্রধান অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী মনিরুল ইসলাম, ময়মনসিংহ জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অধ্যাপক ইউসুফ খান পাঠান, পৌর মেয়র ইকরামূর হক টিটু, জেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মোয়াজ্জেম হোসেন বাবুল, ময়মনসিংহ বিভাগীয় প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মো: নজরুল ইসলাম, ময়নমসিংহ প্রতিদিন পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক খায়রুল আলম রফিক প্রমূখ। সভায় বিভিন্ন মন্ত্রলালয়ে অতিরিক্ত সচিব, যুগ্ম-সচিব, প্রকল্প পরিচালক, জেলা প্রশাসকগণ, প্রধান প্রকৌশলী, অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী, বিভাগীয় প্রধানগণ অংশগ্রহন করেন।

রেলপথ বিভাগের সচিব মোফাজ্জল হোসেন, জয়দেবপুর থেকে ময়মনসিংহ হয়ে জামালপুর পর্যন্ত ডাবল এবং ডুয়েল গেজ রেলপথ নির্মাণের সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের কাজ আগামী দুই মাসের মধ্যে শেষ করা হবে বলে জানিয়েছেন। এছাড়াও নেত্রকোনার দূর্গাপুর এবং শেরপুরের নাকুগাওঁ স্থল বন্দর পর্যন্ত রল লাইন সম্প্রসারণ প্রকল্প বিবেচনাধীন রয়েছে।

নৌ পরিবহন সচিব আব্দুস সামাদ জানান ৪ হাজার ৩৭১ ওকোটি টাকা ব্যায়ে ২২৭ কিলোমিটার ব্র‏‏পূত্র নদ সহ আরো কয়েকটি নদ নদী খননের প্রকল্প একনেকে পাশ হওয়ার অপেক্ষায় আছে। ব্র‏পূত্র নদথেকে খনন কৃত মাটি সরকারি অবকাঠামো নির্মাণে মাটি ভরাট কাজে ব্যবহার করা হবে। এছাড়া বাহাদুরাবাদঘাট যমুনা নদীর ওপর এবং চিলমারি রাজীবপুরে ফেরী নির্মাণ করা হবে।

সংস্কৃতি সচিব নাসির উদ্দিন আহম্মেদ বলেছেন ময়মনসিংহ নেত্রকনো খালিয়াজুর শেরপুরের গজনী ও মধুটিলা এবং জামালপুরের পর্যটন কেন্দ্র নির্মাণের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। এছাড়াও ময়মনসিংহ শহরের শশীলজ মুক্তাগাছার জমিদার বাড়ি আলেকজান্দ্রাল ক্যাসেলসহ ময়মনসিংহ বিভাগের অধীনে বিভিন্ন পুরাকীর্তিগুলোর উন্নয়ণে সংস্কৃতি মন্ত্রনালয়ের পক্ষ থেকে পদক্ষেপ গ্রহণ করা বলে আশ্বাস দিয়েছেন।

প্রিন্স, ঢাকা