ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে বাংলাদেশের হার

নিউজ ডেস্ক: টসে হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতেই বিপর্যয়ে পড়ে বাংলাদেশ। দুই ওপেনার তামিম ইকবাল ও সৌম্য সরকারের শূন্য রানে বিদায়ের পর মাহমুদউল্লাহর ব্যাটে ভর করে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ১৪৪ রানের লক্ষ্য দিয়েছিল টাইগাররা। তবে বৃষ্টির কারণে সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টিতে লক্ষ্যটা কমে যায় ওয়েস্ট ইন্ডিজের। কমে যায় ওভারও। বৃষ্টি আইনে (ডার্কওয়ার্থ লুইস) ক্যারিবীয়দের সামনে লক্ষ্য দাঁড়ায় ১১ ওভারে ৯১ রান।

বৃষ্টির কারণে এক ঘণ্টা পর ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই হোঁচট খায় ক্যারিবীয়রা। দ্বিতীয় ওভারে তাদের দুটি উইকেট তুলে নেন বাংলাদেশ। মোস্তাফিজুর রহমান তার প্রথম ওভারের দ্বিতীয় ও শেষ বলে এভিন লুইস (২) ও আন্দ্রে ফ্লেচারকে ‍(৭) ফেরান।

দুই ওভার শেষে দুই উইকেট হারিয়ে ক্যারিবীয়দের রান ছিল ১০। এরপর শুরু হয় স্যামুয়েলস ঝড়। আন্দ্রে রাসেলকে নিয়ে ৪২ রানের ঝড়ো জুটি গড়েন স্যামুয়েলস। রুবেলের বলে ফিরে যাওয়ার আগে ১৩ বলে দুটি করে চার ও ছয়ে ২৬ রান করেন স্যামুয়েলস। এরপর শুরু হয় রাসেল ঝড়। ২১ বলে ৩৫ রান করে অপরাজিত ছিলেন রাসেল। ১১ বল বাকি থাকতেই সহজে জিতে যায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

১১ বল বাকি থাকতেই সহজে জিতে যায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ৯.১ ওভারে ৩ উইকেটে তারা করে ৯৩ রান।

এর আগে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নামা বাংলাদেশের শুরুটা মোটেও ভালো হয়নি। ওপেনার তামিম ইকবাল ইনিংসের প্রথম বলেই আউট হয়ে যান। তিন বল পর শূন্য রানে সাজঘরে ফিরে যান আরেক ওপেনার সৌম্য সরকারও। লিটন দাস (২৪) ও সাকিব আল হাসানের (১৯) ব্যাট আশা দেখালেও ঠিক জ্বলে উঠতে পারেননি তারা।

মাহমুদউল্লাহর ব্যাটেই ভর করে ১৪৩ রান করে টাইগাররা। ২৭ বলে ৩৫ রানের এক কার্যকরী ইনিংস খেলেন মাহমুদউল্লাহ। মাহমুদউল্লাহ আউট হওয়ার পর আর কোনো ব্যাটসম্যান দাঁড়াতেই পারেনি। শেষ পর্যন্ত ৯ উইকেট হারিয়ে ২০ ওভারে ১৪৩ রান করে বাংলাদেশ।

ক্যারিবীয়দের পক্ষে ৪ উইকেট নেন উইলিয়ামস। ম্যাচজয়ী ইনিংস খেলে ম্যাচ সেরার পুরস্কার জিতেছেন রাসেল। সিরিজের শেষ দুটি ম্যাচ হবে ৫ ও ৬ আগস্ট যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডায়।