উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে নৌকায় ভোট দিন: প্রধানমন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামী নির্বাচনে নৌকা মার্কায় ভোট দিতে জনগণের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, আপনারা নৌকা মার্কায় ভোট দিয়েছেন, দেশের উন্নয়ন হয়েছে। নৌকায় ভোট দিলেই দেশের উন্নয়ন হয়। আগামীতেও উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে নৌকা মার্কায় ভোট দিন। টানা দুই মেয়াদ ক্ষমতায় থাকাতেই দেশের উন্নয়ন সম্ভব হয়েছে। 
 
শনিবার বিকালে রাজধানীর রামপুরা-বাড্ডা-প্রগতি সরণী এলাকায় হাতির ঝিল প্রকল্পের নর্থ ইউলুপ উদ্বোধনকালে তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের লক্ষ্য দেশকে আরও এগিয়ে নিয়ে যাওয়া। নৌকায় ভোট দিয়ে কেউ কখনোই বঞ্চিত হয় না। আগামীতেও হবেন না। নৌকায় ভোট দিয়ে স্বাধীনতা পেয়েছেন, কথা বলার অধিকার পেয়েছেন এবং এখন উন্নয়শীল দেশ পেয়েছেন। আবার নৌকায় ভোট দিলে উন্নত বাংলাদেশ পাবেন।’
 
সরকারের নেওয়া নানা উদ্যোগের কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিশ্বে বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের বিস্ময়। বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা অর্জন করেছে। আমাদের প্রবৃদ্ধি বর্তমানে ৭.৭৮ শতাংশ। দারিদ্র্যের হার ২২ শতাংশে নেমে এসেছে। বিদ্যুত্ উত্পাদন ক্ষমতা ১৮ হাজার ৩৫৩ মেগাওয়াট। মাথাপিছু আয় বৃদ্ধি পেয়ে ১৭৫২ ডলারে উন্নীত হয়েছে। তিনি বলেন, আমরা বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ উৎক্ষেপণ করেছি। পাবনার রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুত্ কেন্দ্র নির্মাণের কাজ এগিয়ে চলছে। বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে, এগিয়ে যাবে। এ অগ্রযাত্রা কেউ ব্যাহত করতে পারবে না। উন্নয়নের এ ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে আমি সকলকে আহ্বান জানাচ্ছি। 
 
তিনি বলেন, ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশ এবং ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত-সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে গড়ে জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ গড়ে তুলবো-ইনশাআল্লাহ।
 
প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা ঢাকা মহানগরীর যানজট নিরসনে ২০ বছর মেয়াদি কৌশলগত পরিকল্পনা প্রণয়ন করে তা বাস্তবায়নের কাজ হাতে নিয়েছি। যানজট নিরসনে রাজধানী ঢাকা শহরকে ঘিরে একটি এলিভেটেড রিং রোড নির্মাণ করা হবে। যানবাহন রাস্তা দিয়ে নয়, উপর দিয়েই যাবে-এইভাবে একটা এলিভেটেড রিং রোড আমরা নির্মাণ করে মানুষের যোগাযোগটা যাতে আরও সহজ হয় সেই ব্যবস্থাও আমরা করে দেব। এতে এই সড়ক দিয়ে যান চলাচল সহজ হবে। সময়ও সাশ্রয় হবে। পুরো ঢাকা ঘিরে পাতাল এবং উপরে ট্রেন থাকবে। এছাড়া ঢাকার আশেপাশে যেসব নদী আছে, সেসব নদীকে ঘিরেও যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়ে তোলা হবে। তৈরি করা হবে নৌযান চলাচল উপযোগী ব্রিজ। 
 
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ঢাকা শহরে শিল্প-কারখানা যেমন বাড়ছে, তেমনই বাড়ছে মানুষের আগমন। ইতোমধ্যে আমরা ঢাকার আশপাশে ছোট ছোট শহর গড়ে তোলার পরিকল্পনা নিয়েছি। সেখানে সব সুবিধা নিয়ে মাল্টি-স্টোরেড ভবন গড়ে তোলা হবে। এতে ঢাকা শহরের ওপর চাপ কমবে। সেইসঙ্গে আমরা ঢাকার সঙ্গে দেশের বিভিন্ন এলাকার সড়ক যোগাযোগও বৃদ্ধি করছি। ‘ঢাকা সার্কুলার রুট’ এবং ‘ইস্টার্ন বাইপাস’ নির্মাণের কার্যক্রম গ্রহণ করারও কথাও জানান প্রধানমন্ত্রী। ঢাকা-চট্টগ্রাম এবং ঢাকা-ময়মনসিংহের চার লেইনের মহাসড়ককে শিগগিরই ছয় লেইনে উন্নীত করা হবে বলেও জানান তিনি।