কুড়িগ্রাম-৩ উপনির্বাচনে ভোটগ্রহণ চলছে

কুড়িগ্রাম-৩ আসনে বুধবার জাতীয় সংসদ উপনির্বাচনে ভোট নেওয়া হচ্ছে। সকাল ৮টা থেকে ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে, চলবে বিকেলে ৪টা পর্যন্ত।

উলিপুর ও চিলমারী উপজেলার ১৬টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভা নিয়ে আয়োজিত এ নির্বাচনে মহাজোটের দুই শরিক দল আওয়ামী লীগ এবং জাতীয় পার্টির প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। অন্য কোনো রাজনৈতিক দল কিংবা প্রার্থী এ নির্বাচনে অংশ নেননি। আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন অধ্যাপক এমএ মতিন ও জাতীয় পার্টির প্রার্থী অধ্যাপক ডা. আক্কাছ আলী সরকার।

জেলা নির্বাচন অফিস সূত্র জানায়, গত কয়েক দিনের নির্বাচনী সহিংসতার কারণে ভোটকেন্দ্রে ভোটারদের নিরাপত্তা নিশ্চিতে পর্যাপ্ত নিরাপত্তার ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। নিয়োজিত রয়েছেন মোট ২৫ জন নির্বাহী ও চারজন জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট। এ ছাড়া ৫৩টি মোবাইল টিম, ১৩ প্লাটুন বিজিবি, র‌্যাবের ৩৪টি টহল দল এবং পুলিশের ১৮টি স্ট্রাইকিং ফোর্সও নিয়োজিত আছে।

কুড়িগ্রাম-৩ আসনে উলিপুর উপজেলার ১২টি ইউনিয়ন, একটি পৌরসভা ও চিলমারী উপজেলার চারটি ইউনিয়নসহ এখানে মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ৬৩ হাজার ৭৫ জন। উলিপুর উপজেলার ১৩০টি ও চিলমারী উপজেলায় ২৯টি ভোটকেন্দ্র ভোটগ্রহণ চলছে। ভোটকেন্দ্রের সার্বক্ষণিক নিরাপত্তার জন্য প্রতিটি কেন্দ্রে একজন পুলিশ অফিসারসহ ২২ থেকে ২৬ জন সশস্ত্র পুলিশ ও আনসার সদস্য দায়িত্ব পালন করছেন।

চলতি বছরের ১০ মে জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য একেএম মাঈদুল ইসলামের মৃত্যুতে কুড়িগ্রাম-৩ আসনটি শূন্য হয়। এই আসনে গত ১০ জুন নির্বাচন কমিশন উপনির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে।

মঙ্গলবার কুড়িগ্রাম-৩ আসনের উপনির্বাচনের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে করা রিট খারিজ করে দিয়েছেন হাইকোর্ট। এর ফলে বুধবার ওই আসনে উপনির্বাচন হতে আইনগত কোনো বাধা ছিল না।

গত ১০ জুন নির্বাচন কমিশনের (ইসি) ঘোষিত তফসিলের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে চিলমারী উপজেলার রমনা ইউনিয়নের বাসিন্দা এসএম মোস্তাফিজুর রহমান হাইকোর্টে রিটটি করেন। রিটে সীমানা নির্ধারণ-সংক্রান্ত আইনি জটিলতা তুলে ধরে ওই উপনির্বাচনের তফসিলের কার্যক্রম স্থগিত চাওয়া হয়।