ঈদের নাটকের শুটিংয়ে ব্যস্ত অভিনয় শিল্পীরা

নিউজ ডেস্ক: কোরবানি ঈদের আগে আবারও জমজমাট রাজধানীর বিভিন্ন শুটিং হাউস। ব্যস্ততায় কাটছে নাট্যকার, নাট্যনির্মাতা ও শিল্পীদের। ঈদের জন্য নতুন নতুন নাটক, টেলিছবি, ওয়েব সিরিজ আর ধারাবাহিকের কাজ হচ্ছে লাগামহীনভাবে। রাজধানীর বিভিন্ন শুটিং স্পট ঘুরে কিছু নাটকের খবর জানাচ্ছেন— পান্থ আফজাল

রাজধানীর উত্তরায় রয়েছে অসংখ্য শুটিং হাউস। ঈদের কাজের জন্য নির্মাতা, শিল্পীরা সকাল থেকে বেশি রাত অবধি কাজ করছেন উত্তরার ৩, ৪, ৭, ১১ নম্বর সেক্টরসহ আশপাশের বিভিন্ন শুটিং হাউসে। স্বপ্নীলের ৪টি হাউস, আপনঘরের ২টি, লাবণী, আনন্দবাড়ি, মন্দিরা কিংবা ১১ নং সেক্টরের স্ক্রিপ্ট হাউসে ব্যস্ত সবাই ঈদের কাজের শুটিং নিয়ে। রাজধানীর উত্তরার ৩নং সেক্টরের স্বপ্নীল ৪-এর ২য় ফ্লোরে চলছে মুহাম্মদ মোস্তফা কামাল রাজের নাটকের শুটিং। শুটিংয়ের খবর জানতে সিঁড়ি মাড়িয়ে উপরে গিয়েই দেখি সাফা বাড়তি অংশের ছাদের কিনারে বসে অন্যদিকে তাকিয়ে সংলাপ আওড়াচ্ছেন। আর তাকে ঘিরে আশপাশের বিশাল আয়োজন। কেউ বুম ধরে আছে, কেউবা কর্কশিট, আবার কেউ কেউ লাইট, ক্যামেরা তার দিকে সঠিকভাবে ধরতে ব্যস্ত। সাফা থেকে একটু দূরে ডিরেক্টরের আসনে মনিটরে চোখ রেখে বসে আছেন নাটকটির নির্মাতা রাজ। তার পাশের চেয়ারে বসে অভিনেতা ইরফান সাজ্জাদ। এক টেকেই শেষ হলো সাফার শর্টটি। সাফা, ইরফান আমাকে খেয়াল করেই মুচকি হেসে বসতে বললেন। আর মনিটর থেকে ফিরেই আমাকে দেখে গল্প শুরু করে দিলেন রাজ। জানলাম, এরপর চায়ের দোকানের একটি দৃশ্য রয়েছে। তার জন্য তিনি সবাইকে প্রস্তুত হতে বললেন। সাফা আর ইরফানের বিরতি বলেই একসঙ্গে মেকআপ রুমে চলে গেলাম। রুমে ঢুকেই দেখলাম এই নাটকে সাফার মা মনিরা মিঠু শোফায় শুয়ে আরাম করছেন। তার সঙ্গে অনেকক্ষণ আড্ডা হলো। এই নাটকের নাম জিজ্ঞেস করতেই সাফা বলতে শুরু করল, নাটকের নাম ‘বীথির বানান ভুল ছিল’।

এই নাটকে সাফা খুবই চঞ্চল স্বভাবের মেয়ে। তার দুই প্রেমিকের মধ্যে একজন হলেন ইরফান সাজ্জাদ। আর মা মনিরা মিঠু। এটি এনটিভিতে যাবে।’ কথার মাঝেই সাফার বাবার ফোন। জানলাম, তার বাবার নাম সবুজ। বাবা তাকে নায়িকা বলে ডাকেন। বাবা-মেয়ের খুনসুটি চলুক; তাই মেকআপ রুম থেকে বেড়িয়েই আরেক নাট্যকার, ডিরেক্টর আকাশ রঞ্জনের সঙ্গে দেখা। তিনি জানালেন, ৩নং ফ্লোরে চলছে মীর সাব্বিরের ‘নোয়াশাল’ এর শুটিং। তিনি টেনে নিয়ে গেলেন মেকআপ রুমে সবার সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিতে। সেখানে দেখলাম রয়েছে একগাদা অভিনয়শিল্পী। আছেন আ খ ম হাসান, মীর সাব্বির, অহনা, বিনয় ভদ্র, আমিন আজাদসহ অনেক পরিচিত মুখ। অনেকক্ষণ ধরে চায়ের চুমুকের সঙ্গে তাদের নিয়ে আড্ডা চলল। গল্পে গল্পে মীর সাব্বির জানালেন, আজ চলছে নাটকটির ৭১৫ পবের্র শুটিং।

এটি আরটিভির জনপ্রিয় একটি ধারাবাহিক নাটক। আকাশ রঞ্জনের রচনায় নাটকটি গল্প, চিত্রনাট্য ও পরিচালনা করেছেন তিনি নিজেই। মূলত নাটকটির গল্প মোহনপুর গ্রামের দুই প্রভাবশালী ব্যক্তিকে ঘিরে। মূলত এই দুই পরিবারের হাসি, কান্না, সুখ-দুঃখ, আনন্দ বেদনা এবং ঝগড়াঝাটির মাধ্যমে পুরো বাংলাদেশকে দেখানোর চেষ্টা করা হয়েছে। নোয়াশাল শুধু নামে নয় নোয়াশাল পুরো বাংলাদেশেরই প্রতিচ্ছবি।’ এদিকে আ খ ম হাসান তার প্রথম নাটকের অভিজ্ঞতা ব্যক্ত করলেন অন্যভাবে। তিনি মজা করে বললেন, ‘জানেন, আমার প্রথম নাটক ছিল মামুনুর রশীদ ভাইয়ের পরিচালনায় ‘শিল্পী’। আমি একটি দৃশ্যে মশাল জ্বালিয়ে একজনকে খুঁজছিলাম। সেই নাটক করে সম্মানি পেয়েছিলাম ৫০০ টাকা।’ আড্ডা দিতে ভালোই লাগছিল! কিন্তু সন্ধ্যে ঘনিয়ে আসছে, ফিরতে হবে। তাই বিদায় নিয়ে আমার পথের দিকে পা বাড়ালাম।