বড়লেখায় দেশীয় অস্ত্রসহ ২ ডাকাত সর্দার আটক

এম শাহবান রশীদ চৌধুরী মৌলভীবাজার প্রতিনিধি :: মৌলভীবাজারের বড়লেখা উপজেলায় ডাকাতির প্রস্তুতিকালে দেশীয় অস্ত্রসহ দুই ডাকাতকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার (১৯ জুলাই) দিবাগত রাত ১২টার দিকে উপজেলার দক্ষিণভাগ দক্ষিণ ইউনিয়নের সমনভাগ চা বাগান এলাকা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। 

গ্রেপ্তারকৃতরা হচ্ছেন, কমলগঞ্জ উপজেলার কালিপুর এলাকার মৃত আব্দুল লতিফের ছেলে সুলেমান মিয়া (৩৭) এবং বড়লেখা উপজেলার গজভাগ এলাকার মৃত আব্দুল লতিফের ছেলে আসকর আলী (৪৫)। পুলিশ তাদের কাছ থেকে ১টি ছোরা, দুটি দা, ১টি সিঁধকাটি ও ১টি লোহার পাইপ উদ্ধার করেছে।

এ ঘটনায় থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) অমিতাভ দাস তালুকদার বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছেন।

এদিকে খবর পেয়ে শুক্রবার (২০ জুলাই) সকালে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (কুলাউড়া সার্কেল) মো. আবু ইউছুফ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। 

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার (১৯ জুলাই) দিবাগত রাত ১টার দিকে উপজেলার দক্ষিণভাগ দক্ষিণ ইউনিয়নের সমনভাগ চা বাগানের ম্যানেজারের বাংলোতে ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছিল একদল ডাকাত। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) অমিতাভ দাস তালুকদার, মো. শরীফ উদ্দিন ও জাহাঙ্গীর আলমের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ওই এলাকায় অবস্থান নেয়। পরে থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মুহাম্মদ সহিদুর রহমান ও পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) দেবদুলাল ধর ঘটনাস্থলে যান। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ডাকাতদল গুলি ছোড়ে, আত্মরক্ষার্থে পুলিশ ১৩ রাউন্ড ফাঁকা গুলি বর্ষণ করে। একপর্যায়ে স্থানীয়দের সহায়তায় পুলিশ দুই ডাকাতকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হলেও ৮-১০ জন ডাকাত পালিয়ে যায়। এসময় স্থানীয়রা আটককৃতদের গণধোলাই দেয়। পরে পুলিশ তাদের উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। 

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (কুলাউড়া সার্কেল) মো. আবু ইউছুফ শুক্রবার (২০ জুলাই) দুপুরে বলেন, আটককৃতরা ডাকাত দলের সর্দার। এদের বিরুদ্ধে সিলেটের বিভিন্ন থানায় ডাকাতির একাধিক মামলা রয়েছে। এরমধ্যে ডাকাতি মামলায় আসকির গত সপ্তাহে জেল থেকে বেরিয়েছে। জেল থেকে বেরিয়ে সে আবারও ডাকাতিতে যাওয়া বিস্ময়কর।

বড়লেখা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মুহাম্মদ সহিদুর রহমান শুক্রবার (২০ জুলাই) দুপুরে জানান, একদল ডাকাত ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছে। এমন খবরে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ডাকাতদল পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে, আত্মরক্ষার্থে পুলিশ ১৩ রাউন্ড গুলি ছোড়ে। আটক হওয়া ডাকাতদের বিরুদ্ধে থানায় মামলা হয়েছে। আজকে (বৃহস্পতিবার)আদালতের মাধ্যমে তাদের কারাগারে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। ঘটনার সঙ্গে জড়িত অন্যদের গ্রেপ্তারে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।