ব্যাংকের কার্যক্রমে কিছুটা অবিশ্বাস দেখা দিয়েছে: গভর্নর

নিউজ ডেস্ক: বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির বলেছেন, সাম্প্রতিক সময়ে ব্যাংকের কার্যক্রমে মানুষের মধ্যে কিছুটা সন্দেহ ও অবিশ্বাস দেখা দিয়েছে। ব্যাংকগুলোর জন্য যা অশনি সংকেত। এসব সমস্যা কাটিয়ে সুশাসন নিশ্চিত করতে ব্যাংকগুলোকে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে হবে।

শনিবার ব্যাংকগুলোর প্রধান নির্বাহীদের নিয়ে আয়োজিত মানিলন্ডারিং ও সন্ত্রাসে অর্থায়ন প্রতিরোধ বিষয়ক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে বাংলাদেশ ফিন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ) এ সম্মেলনের আয়োজন করে। সম্মেলনে ব্যাংকগুলোর এমডিরা ছাড়াও প্রধান ও উপপ্রধান মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ পরিপালন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। ব্যাংকের প্রধান নির্বাহীদের সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স, বাংলাদেশ (এবিবি) এবং মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ পরিপালন কর্মকর্তাদের সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন অব অ্যান্ট্রি মানি লন্ডারিং কমপ্লায়েন্স অফিসার্স অব ব্যাংকস ইন বাংলাদেশ (এএসিওবিবি) সম্মেলন আয়োজনে সহযোগিতা করে।

গভর্নর বলেন, যে হারে কাঁচামাল আমদানি হচ্ছে, সে হারে রফতানি বাড়ছে না। সবাইকে এ নিয়ে সচেতন হতে হবে। তিনি বলেন, দেশের আর্থিক অন্তর্ভুক্তিতে মোবাইল ব্যাংকিং ভূমিকা রাখছে। তবে এর অপব্যবহারও হচ্ছে। এক্ষেত্রে সতর্ক থাকতে হবে। তিনি আরও বলেন, সঠিক জায়গায় সঠিক মানুষকে নিয়োগের মাধ্যমে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে। নিজ-নিজ প্রতিষ্ঠানে সুশাসন নিশ্চিত করতে প্রধান নির্বাহীদের ভূমিকা রাখতে হবে। ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে রফতানিচালিত অর্থনীতির দেশ হিসাবে দেখতে আর্থিক খাতকে সুসংগঠিত করতে হবে।

ফজলে কবির বলেন, বেসরকারি খাতের প্রতিষ্ঠানগুলো দারিদ্র, বৈষম্য ও অবকাঠামোগত দুর্বলতা কমাতে অবদান রাখছে। বেসরকারি খাতের উন্নয়নে ব্যাংকগুলোকে সহায়তা করতে সরকার ও বাংলাদেশ ব্যাংক বদ্ধপরিকর। আর এ লক্ষ্যে সম্পদের সুষম ব্যবহার ও অপচয় রোধের পাশাপাশি স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে কাজ করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, সামষ্টিক অর্থনীতির সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা ও ব্যবসা-বান্ধব নীতি সংস্কারের ফলে বাংলাদেশ আজ স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশের কাতারে শামিল হয়েছে। এ অগ্রযাত্রা ধরে রাখা বাংলাদেশের জন্য অনেক বড় চ্যালেঞ্জ।

বিএফআইইউর প্রধান ও বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর আবু হেনা মোহা. রাজী হাসান বলেন, ছোট কোনো দুর্বলতা ব্যাংক খাতকে বড় ঝুঁকিতে ফেলতে পারে। এ জন্য সবাইকে সচেতন থাকতে হবে। তিনি বলেন, বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল একটি দেশের অর্থনীতির প্রধান চালিকা শক্তি ব্যাংক খাত। একটি অপরাধমুক্ত, স্থিতিশীল ও দক্ষ ব্যাংকিং খাতে আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

বিএফআইইউর উপদেষ্টা দেবপ্রসাদ দেবনাথ বলেন, বর্তমান সময়ে ব্যাংক খাত অনেক চ্যালেঞ্জের মধ্য পড়েছে। মুখ্য ঝুঁকিগুলো নিয়ে বিশেষ ভাবনার প্রয়োজন আছে। ব্যাংকের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সবাইকে যত্নশীল হওয়ার আহ্বান জানান ব্যাংকের প্রধান নির্বাহীদের সংগঠন এবিবির চেয়ারম্যান সৈয়দ মাহবুবুর রহমান। এতে সভাপতিত্ব করেন বিএফআইইউর দায়িত্বপ্রাপ্ত মহাব্যবস্থাপক এবিএম জহুরুল হুদা।