কোটা সংস্কার আন্দোলনে ঢাবিতে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের উপর হামলা!

নিউজ ডেস্কঃ কোটা সংস্কার আন্দোলনে হামলার প্রতিবাদ এবং গ্রেপ্তার শিক্ষার্থীদের মুক্তি দাবিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের কর্মসূচিতে হামলা চালানো হয়েছে।

রোববার (১৫ জুলাই) দুপুরে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন শেষে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা মিছিল বের করলে হামলার ঘটনা ঘটে।

হামলায় বেশ কয়েকজন আহত হয়েছে। হামলাকারীরা ছাত্রলীগের নেতাকর্মী বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, কোটা সংস্কার আন্দোলনে হামলার প্রতিবাদ, নিরাপদ ক্যাম্পাস ও গ্রেপ্তার শিক্ষার্থীদের মুক্তি দাবিতে রোববার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার এলাকায় শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের পূর্বঘোষিত মানববন্ধন কর্মসূচি ছিল। সকালে কর্মসূচি পালন করতে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা উপস্থিত হওয়ার আগেই সেখানে অবস্থান নেয় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। পরে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা পূর্বঘোষিত কর্মসূচি পালনে সেখানে জড়ো হলে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা তাদের মুখোমুখি অবস্থান নেয়। এ সময় মানববন্ধনে অংশ নেওয়া শিক্ষকদের গালিগালাজ এবং শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে বিভিন্ন কটূক্তি করতে থাকে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। সুষ্ঠুভাবে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করতে না পেরে এক পর্যায়ে মিছিল বের করেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। এ সময় ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা হামলা চালালে মিছিলটি ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়।

কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করতে গেলে সেখানে মারমুখী অবস্থান নেয়— ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা ফোকাস বাংলা
এ সময় ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা মিছিলে ঢুকে সাধারণ ছাত্রদের পাশাপাশি ছাত্রীদেরও মারধর করে বলে হামলার শিকার কয়েকজন অভিযোগ করেছেন।

হামলার পর শিক্ষক ও ছাত্রদের একাংশ আবার শহীদ মিনারে অবস্থান নেন। শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের রোববারের প্রতিবাদ কর্মসূচিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের শিক্ষক তানজীম উদ্দীন খান, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক ড. ফাহমিদুল হক, আবদুর রাজ্জাক প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

অধ্যাপক ড. ফাহমিদুল হক বলেন, ‘মানববন্ধনের শেষ পর্যায়ে সরকারদলীয় ছাত্র সংগঠনের নেতাকর্মীরা আমাদের ঘিরে ফেলে। পরে আমরা রাজু ভাস্কর্যের দিকে যাওয়ার পথে শিববাড়ি মোড়ে শেখ রাসেল টাওয়ারের সামনে তারা শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা চালায় এবং আমাদের লাঞ্ছিত করে।’

তিনি বলেন, ‘ছাত্রলীগ ক্যাম্পাসে একটি কলঙ্কজনক অধ্যায় সৃষ্টি করেছে। তারা মু্ক্তিযুদ্ধের চেতনার কথা বলে শিক্ষার্থীদের হাতুড়িপেটা করছে। এ অবস্থায় আমাদের ছাত্র-শিক্ষকদের মধ্যে ঐক্যের প্রয়োজন।’

তিনি বলেন, ‘মৌলিক অধিকার চাইতে কোনো জনগোষ্ঠী গণতান্ত্রিক পন্থায় আন্দোলন করতেই পারে। শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে যদি হামলা হয় তখন আমরা শিক্ষক হিসেবে এর প্রতিবাদ করতেই পারি।’