আজ পাবনায় আসছেন প্রধানমন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক: রূপপুর পারমাণবিক প্রকল্পের দ্বিতীয় ইউনিটের ফার্স্ট কংক্রিট পোরিং ডেট (এফসিডি)সহ ৪৯টি উন্নয়ন প্রকল্পের কাজের উদ্বোধন করতে আজ শনিবার (১৪ জুলাই) পাবনা আসছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। উন্নয়ন কাজের মধ্যে রয়েছে— ৩১টি প্রকল্পের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন ও ১৮ প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন। এর মধ্যে পাবনাবাসীর দীর্ঘ প্রতীক্ষিত পাবনা-মাঝগ্রাম রেলপথের উদ্বোধন করা হবে।

উন্নয়ন প্রকল্প উদ্বোধন ছাড়াও আওয়ামী লীগ সভাপতি জেলা আওয়ামী লীগের আয়োজনে জনসভায় অংশ নেবেন। আগামী ডিসেম্বরে অনুষ্ঠেয় একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলীয় প্রতীক নৌকায় ভোট চাইবেন তিনি। নতুন মেয়াদে নির্বাচিত হলে পাবনাবাসীর জন্য কী করতে চান, তার প্রতিশ্রুতিও দেবেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যলয় ও স্থানীয় আওয়ামী লীগ সূত্রে জানা গেছে, পাবনায় প্রধানমন্ত্রীর কর্মসূচি দুটি অংশে ভাগ করা হয়েছে। প্রথমে তিনি সকাল ১১টায় রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের দ্বিতীয় চুল্লির প্রথম কংক্রিট ঢালাই উদ্বোধন করবেন। সেখানে তিনি সংক্ষিপ্ত সুধী সমাবেশে বক্তব্য রাখবেন। বিকাল তিনটায় অনুষ্ঠিত হবে তার কর্মসূচির দ্বিতীয়াংশ। এ সময় তিনি পুলিশ লাইন্স মাঠে জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় প্রধান অতিথির ভাষণ দেবেন। তার আগে ফলক উন্মোচনের মাধ্যমে উন্নয়ন প্রকল্পগুলোর উদ্বোধন ও ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন।

জাতীয় নির্বাচনের ছয় মাসে আগে প্রধানমন্ত্রীর এবারের পাবনা সফরকে গুরুত্বের সঙ্গে দেখছে স্থানীয় আওয়ামী লীগ। তারা মনে করেন, জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় প্রধানমন্ত্রী জাতীয় নির্বাচনে নৌকার পক্ষে ভোট চাইবেন এবং দিক নির্দেশনাও দেবেন তৃণমূল সংগঠনকে।

এদিকে, শেখ হাসিনার আগমনকে কেন্দ্র করে নতুন রূপে সেজেছে দেশের অন্যতম প্রাচীন জেলা পাবনা। দলীয় সভাপতির নজর কাড়তে আসন্ন সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন প্রত্যাশিরাও নিয়েছেন বাড়তি প্রস্তুতি। ব্যানার, পোস্টার আর তোরণে ছেয়ে গেছে নগরীসহ শেখ হাসিনার যাতায়াতের সড়কগুলো। সরকার প্রধানের আগমনে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকে নেওয়া হয়েছে ব্যাপক নিরাপত্তা। নিরাপত্তার চাদরে ঢেলে ফেলা হয়েছে পুরোশহর।

জনসভার আয়োজনে তদারকির দায়িত্বে রয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগ ও রাজশাহী বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত দলের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী। প্রস্তুতি প্রসঙ্গে জানতে চাইলে খালিদ মাহমুদ বলেন, ‘পাবনার মানুষের সারাজীবনের স্বপ্নপূরণ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ জেলায় বিশ্ববিদ্যালয়, মেডিক্যাল কলেজ, রেললাইন সব দিয়েছেন তিনি। তাদের জেলায় দেশের সবচেয়ে বড় প্রকল্প রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুত কেন্দ্র ও পারমাণবিক ক্লাবের সদস্য পাবনার গল্প সারাজীবন স্মরণ করবে পাবনাবাসী।’

তিনি বলেন, ‘দ্বিতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় আসার পর তৃতীয়বার পাবনায় যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী। শেখ হাসিনার আগমন উপলক্ষে পাবনাবাসীর মধ্যে উৎসবের জোয়ার বইছে। প্রধানমন্ত্রীর জনসভায় হৃদয় নিংড়ানো ভালোবাসা দিয়ে শেখ হাসিনাকে বরণ করতে তারা প্রস্তুত।’ জনসভা সফল করতে পাবনার সর্বস্তরের মানুষের সহযোগিতা কামনা করেছেন খালিদ মাহমুদ । জাতীয় নির্বাচনের আগমুহূর্তে এই সফরে দলীয় প্রধান দলের জন্য পাবনাবাসীর কাছে ভোট চাইবেন বলেও মনে করেন এই নেতা।
যেসব প্রকল্পের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

জেলা পুলিশ লাইন্স মাঠে জনসভার প্যান্ডেল থেকে প্রধানমন্ত্রী ৩১টি প্রকল্পের উদ্বোধন করবেন। এগুলো হলো— ঈশ্বরদী থেকে মাঝগ্রাম হয়ে পাবনা পর্যন্ত রেলওয়ে সেকশনে ট্রেন চলাচল, পাবনা মেডিক্যাল কলেজের ছাত্রাবাস ও ছাত্রী নিবাস, ঈশ্বরদী থানা ভবন, জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স, সুজানগর উপজেলার নাজিরগঞ্জ, আটঘরিয়া উপজেলার মাঝপাড়া, ঈশ্বরদী উপজেলার পাক্শী, সলিমপুর, লক্ষ্মীকুণ্ডা, সাঁড়া, পাবনা সদর উপজেলার চরতারাপুর এবং চাটমোহর উপজেলার ছাইকোলা ইউনিয়ন ভূমি অফিস, ফরিদপুর উপজেলায় বড়াল নদীর ওপরে নির্মিত নারায়ণপুর সেতু, ভাঙ্গুড়া উপজেলায় গোমানী নদীর ওপরে নির্মিত নৌবাড়িয়া সেতু, ঈশ্বরদী উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স, চাটমোহর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স, পাবনা সিটি কলেজ, আটঘরিয়ার দেবত্তোর ডিগ্রি কলেজ, ডেঙ্গারগ্রাম ডিগ্রি কলেজ ও খিদিরপুর ডিগ্রি কলেজ, চাটমোহর মহিলা কলেজ, সুজানগরের বোনকোলা স্কুল অ্যান্ড কলেজ ও মহিলা কলেজ, সাঁথিয়ার শহীদ নুরুল হোসেন ডিগ্রি কলেজ এবং ঈশ্বরদী মহিলা কলেজের একাডেমিক ভবন, সরকারি এডওয়ার্ড কলেজের প্রশাসনিক ভবন, আটঘরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, চাটমোহর উপজেলায় গোমানী নদীর ওপরে নির্মিত নিমাইচড়া সেতু, চাটমোহর উপজেলায় কাটাখাল সেতু, চাটমোহর উপজেলায় আত্রাই নদীর ওপরে আত্রাই সেতু, সুজানগর উপজেলায় ধোলাইখাল সেতু, ভাঙ্গুড়া, চাটমোহর, ফরিদপুর, ঈশ্বরদী, আটঘরিয়া, সাঁথিয়া এবং সুজানগর উপজেলায় শতভাগ বিদ্যুতায়ন প্রকল্পের উদ্বোধন করবেন।

যেসব প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন
১৮টি প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন প্রধানমন্ত্রী। এগুলো হলো— রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রে সিগন্যালিংসহ রেললাইন নির্মাণ, জেলা সদরে ১০০০ আসনবিশিষ্ট অডিটোরিয়াম কাম মাল্টিপারপাস হল, সুজানগর উপজেলায় কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, আটঘরিয়া উপজেলায় ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশন, চাটমোহর উপজেলা সাব-রেজিস্ট্রার অফিস ভবন, বেড়া উপজেলা সাব-রেজিস্ট্রার অফিস ভবন, সুজানগর উপজেলা সাব-রেজিস্ট্রার অফিস ভবন, জেলা রেজিস্ট্রার অফিস ভবন, পুলিশ লাইন্স মহিলা পুলিশ ব্যারাক ভবন, সুজানগর উপজেলায় সাগরকান্দি ইউনিয়ন ও আটঘরিয়া উপজেলায় হাদল ইউনিয়ন ভূমি অফিস, পাবনা মেডিক্যাল কলেজে ৫০০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতাল, জেলা শিল্পকলা একাডেমি, সাঁথিয়া টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড কলেজ, পাবনায় আদর্শ মহিলা কলেজ এবং এর একাডেমিক ভবন, সাঁথিয়া উপজেলায় ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশন, বেড়া পৌরসভায় উচ্চ জলাধার ও পানি শোধনাগার নির্মাণ, সাঁথিয়া পৌরসভায় উচ্চ জলাধার নির্মাণ এবং ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট পাবনা জেনারেল হাসপাতালের ঊর্ধ্বমুখী সম্প্রসারণ।