ভারত কাকে ঢুকতে দেবে না দেবে এটা ভারতের বিষয়ঃসেতুমন্ত্রী

নিউজ ডেস্কঃ সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এমপি বলেছেন, ‘আইনজীবী লর্ড কারলাইলকে ভারত সরকার তাদের দেশে ঢোকার অনুমতি তারা দেবে কি দেবে না এটা তাদের ব্যাপার। এটা আমাদের ব্যাপার নয়।’

শুক্রবার দুপুরে গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার চন্দ্রা ত্রিমোড় এলাকায় ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের চারলেন সড়কের উন্নয়নমূলক কাজ দেখতে পরিদর্শনে এসে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি একথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, ‘আমি পরিষ্কারভাবে বলতে চাই- ভারতে কে আসবে কে আসবে না, এটা আমাদের ব্যাপার নয়। ভারতে যেতে কার অনুমতি নিতে হবে, এটা ভারতের নিজেদের নিয়ম কানুনের বিষয়। ভারতের নিজেদের সিদ্ধান্ত।’

তিনি বলেন, ‘ভারতের ফরেইন অফিস থেকে বলা হয়েছে, তার (কারলাইল) প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টে ঘাটতি রয়েছে। ঘাটতি থাকার কারণে আইনজীবী লর্ড কারলাইলেক অনুমতি দেওয়া হয়নি। এ অনুমতির ব্যাপারটা সম্পূর্ণভাবে ভারত সরকারের। এখানে বাংলাদেশ সরকারের কোনো প্রকার সম্পৃক্ততা বা বাংলাদেশ সরকারের কোনো প্রকার সম্পৃক্ততাই নাই।’

ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, ‘এটা ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়। এখানে বাংলাদেশ সরকার কেন ইন্টারফেয়ার (হস্তক্ষেপ) করবে। এটা যদি বাংলাদেশের বিষয় হতো তাহলে কি ভারত ইন্টারফেয়ার করতো? তাহলে অন্য দেশের অভ্যন্তরীণ ব্যাপারে আমরা কেন নাক গলাতে যাব। এখানে আমাদের নাক গলানোর কোনো বিষয় নাই। এটা সম্পূর্ণভাবে ভারতের ইন্টারনাল (অভ্যন্তরীণ) ব্যাপার।’

সাংবাদিকদের আরেক প্রশ্নের উত্তরে মন্ত্রী বলেন, ‘আপনার জানেন, ইলেকশন নিয়ে যেসব অপপ্রচার হচ্ছে তার বাস্তবতা, যৌক্তিকতা কতটুকু। নির্বাচন হবে এবং জনগণ যেভাবে চাইবে, জনগণের খুশিমত, জনগণের ইচ্ছা অনুযায়ী নির্বাচন কমিশন এখানে নির্বাচন পরিচালনা করবে।’

তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগের সেক্রেটারি হয়েও আমি কোনো নির্বাচনী এলাকায় কখনো যাই নাই। এখন বিএনপি লেভেলিং প্লেয়িং ফিল্ডের কথা বলে। বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম সাহেবও যেতে পারেন, অথচ আমরা যেতে পারি না। আমরা গত খুলনা ও গাজীপুরে সিটি নির্বাচনে আচরণবিধি ভঙ্গ করিনি। আমরা আশ্বস্ত করতে চাই, স্বাধীন নিরপেক্ষ কর্তৃত্বপূর্ণ নির্বাচন অনুষ্ঠানে নির্বাচন কমিশনের যে নিয়ম কানুন আচরণবিধি রয়েছে, আমরা সরকারি দলের প্রতিনিধিরা সব মেনে চলবো।’

তিনি বলেন, বরিশাল, সিলেট ও রাজশাহী সিটি করপোরেশন নির্বাচনও নিরপেক্ষ ও অবাধ হবে। সরকারের পক্ষ থেকে কোনো প্রকার হস্তক্ষেপ করা হবে না।

সড়কের উন্নয়নকাজ পরিদর্শন তার আসন্ন ঈদুল আজহা উপলক্ষে ঈদযাত্রার প্রস্তুতিমূলক পরিদর্শন একথা জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমরা ঈদ প্রস্তুতি শুরু করলাম। আসন্ন ঈদুল আজহা উপলক্ষে এটা প্রস্তুতিমূলক পরিদর্শন। এই লাইনটা গুরুত্বপূর্ণ বিশেষ করে ঢাকা-গাজীপুর, গাজীপুর-টাঙ্গাইল রুটে সমস্যা হয়। তবে রমজানের ঈদের সময় যাত্রা অনেক স্বস্তিদায়ক ছিল। আমার বিশ্বাস, এবার ঈদে গতবারের ঈদের চেয়ে যাত্রাটা আরো সহজ হবে, স্বস্তিদায়ক হবে।’

এ সময় সড়ক বিভাগের ঢাকা জোনের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী আব্দুস সবুর, সড়ক বিভাগের ঢাকা জোনের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী সবুজ উদ্দিন খান, আব্দুস সুবর গাজীপুর পুলিশ সুপার হারুন অর রশিদ, গাজীপুর সড়ক ও জনপদের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী নাহিন রেজা, গাজীপুর উপবিভাগীয় প্রকৌশলী মো. গাউস উল হাসান মারুফ, গাজীপুর পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার গোলাম সবুর, কালিয়াকৈর থানার ওসি রফিকুল ইসলাম, ওসি তদন্ত মাসুদ আলম প্রমুখ মন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন।