বুলবুলের বিরুদ্ধে নির্বাচন অফিসে,লিটনের লিখিত অভিযোগ!

নিউজ ডেস্কঃ রাজশাহীতে বিএনপির মেয়র প্রার্থী মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলের বিরুদ্ধে নৌকার সমর্থকদের হুমকি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। বৃহস্পতিবার ১৪ দলীয় মেয়র প্রার্থী এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন রিটার্নিং অফিসারের কাছে লিখিতভাবে এ অভিযোগ দিয়েছেন।

এছাড়াও বিএনপির নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে নৌকার নারী কর্মীদের অশ্লীল ভাষায় গালাগালিজ, পোস্টার-ফেস্টুন ছিড়ে ফেলা, অপপ্রচার এবং ভোটারদের হুমকি ও শাড়ি লুঙ্গিসহ বিভিন্ন রকম উপঢৌকন দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেওয়ার অভিযোগ তোলা হয়েছে। এতে নির্বাচনের পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে বলে আরও তিনটি অভিযোগ দেন খায়রুজ্জামান লিটন। তিনি অভিযোগ করেন, ‘গত ১০ জুলাই দুপুর ২টার দিকে ধানের শীষের প্রার্থী মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলসহ বিএনপির নেতাকর্মীরা আরডিএ মার্কেটের গার্মেন্টস ব্যবসায়ী সুলতানের দোকানে গিয়ে হুমকি দেয় এবং ধানের শীষের প্রতীকের পক্ষে কাজ করতে বল প্রয়োগ করে। এ সময় বুলবুল সুলতানকে বলেন, গতবার তুমি ধানের শীষের পক্ষে কাজ করেছো, এবার কেন লিটনের পক্ষে কাজ করছো? জবাবে সুলতান বলে, আমি লিটন ভাইকে ভোট দিবো। তখন বুলবুল বলে, তুমি আমার সঙ্গে থাকবে, সুলতান উত্তর দেয়, আমি লিটন ভাই এর ভোট করবো। বুলবুল তখন বলে, আমার উপশহর এলাকায় তোমার বাড়ি, তোমাকে পরে দেখছি তোমার ব্যবস্থা হবে। এ ঘটনার সময় ধানের শীষের মেয়র প্রার্থী বুলবুলের সঙ্গে থাকা নেতাকর্মীরা সুলতানকে বিভিন্নভঅবে কটূক্তি করে এবং ভয়ভীতি দেখায়। এ ঘটনার পর সুলতান আতঙ্কিত অবস্থায় রয়েছে এবং বিষয়টি নৌকার পক্ষের কর্মীদের জানান।’

অপর তিনটি নির্বাচনি আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ এনে খায়রুজ্জামান লিটন উল্লেখ করেছেন, গত ১১ জুলাই হেতেম খাঁ ছোট মসজিদ এলাকায় তার নৌকা প্রতীকের পোস্টার খুলে ফেলে ধানের শীষের পোস্টার ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে। এ সময় বাধা দিতে গেলে তার কর্মীদের সঙ্গে মারমুখী ও উচ্ছৃঙ্খল আচরণ করে বিএনপির কর্মীরা। অপরদিকে, গত ১০ জুলাই বিকাল ৫টার দিকে আসাম কলোনি রবের মোড় এলাকায় ধানের শীষের কিছু নেতাকর্মী নৌকার প্রতীকের নারী কর্মীদের অশ্লীল ভাষায় গালাগালি, কটূক্তি ও উত্ত্যক্ত করে।

লিটন আরও অভিযোগ করেন, ১১ জুলাই বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে কোর্ট স্টেশন রেল লাইনের পাশের বস্তিতে বিএনপির নেতাকর্মীরা ভোটারদের প্ররোচিত করে মিথ্যা ও বিভ্রান্তিমূলক প্রচারণা চালায়। নৌকার প্রতীকের প্রার্থী খায়রুজ্জামান লিটন নির্বাচনে জয়লাভ করলে রাতারাতি বস্তি উচ্ছেদ করবে বলে অপপ্রচার চালায়। এছাড়াও ধানের শীষ প্রতীকে ভোট দিলে শাড়ি, লুঙ্গিসহ বিভিন্ন প্রকার উপঢৌকন দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেয়।

নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, রিটার্নিং ও সরকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা নির্বাচনের কাজে ঢাকা রয়েছেন। তারা ফিরলে অভিযোগের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।