কোটা বিষয়ে ১৫ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন

নিউজ ডেস্ক: জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব আবুল কাশেম মোহাম্মদ মহিউদ্দিন বলেছেন, সরকারি চাকরিতে কোটা ব্যবস্থা পর্যালোচনা, সংস্কার ও বাতিলের সুপারিশসহ প্রতিবেদন সরকারের বেঁধে দেয়া ১৫ কর্মদিবসের মধ্যেই জমা দেওয়া হবে।

আজ রবিবার সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিবের সভাকক্ষে কমিটির প্রথম বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান তিনি। বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম।

কমিটির প্রথম বৈঠক শেষে আবুল কাশেম মোহাম্মদ মহিউদ্দিন সাংবাদিকদের বলেন, মন্ত্রিপরিষদ সচিবের নেতৃত্বে কোটা সংক্রান্ত যে কমিটি গঠন করা হয়েছে, আজ সেই কমিটির প্রথম মিটিং অনুষ্ঠিত হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, ‘মিটিংয়ে মূলত কমিটির কর্মপন্থা নির্ধারণ করা হয়েছে। কোটা সংক্রান্ত দেশে-বিদেশে যত তথ্য রয়েছে বা বিভিন্ন সময় গঠিত কমিশন বা কমিটির যেসব রিপোর্ট রয়েছে তা যত দ্রুত সম্ভব সংগ্রহের সিদ্ধান্ত হয়েছে।’

কোটা আন্দোলনকারীদের বিষয়ে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব বলেন, আন্দোলনকারী যারা তারা বিভিন্ন সময় বিভিন্ন দাবি দাওয়া করছে। তারা অনেকেই তথ্য না জেনে আন্দোলন করছে। যেহেতু প্রধানমন্ত্রী চাইছেন একটি সুচিন্তিত সিদ্ধান্ত নিতে, সেজন্য এ কমিটি বাস্তবধর্মী এবং তথ্যগত বিষয় পর্যালোচনা করেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

১৫ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দেওয়া হবে কি-না জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা এখনো কোনো প্রতিবেদন পাইনি। পাওয়ার পর বৈঠকে বসবো, তারপর সিদ্ধান্ত নেবো।

এর আগে গত ২ জুলাই মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ সচিবকে আহ্বায়ক করে সাত সদস্যের একটি কমিটি গঠন করে প্রজ্ঞাপন জারি করে জন প্রশাসন মন্ত্রণালয়।

কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন- আইন মন্ত্রণালয়ের লেজিসলেটিভ ও সংসদ বিষয়ক বিভাগের সিনিয়র সচিব মোহাম্মদ শহিদুল হক, অর্থ সচিব মোহাম্মদ মুসলিম চৌধুরী, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব অপরূপ চৌধুরী, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সচিব ফয়েজ আহমদ, বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশন সচিবালয়ের সচিব আকতারী মমতাজ ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব সাজ্জাদুল হাসান।