অসহায় মুসলিম শিশুকে দত্তকের ‘সাজা’ ছুরিকাঘাত!

নিউজ ডেস্কঃ হায়দরাবাদের মুসলিম শিশুকে দত্তক নিয়ে লালন-পালন করায় পাপালাল রবিকান্ত নামে এক বাবাকে প্রাণে মারতে নৃশংস হামলা চালায় দুষ্কৃতকারীরা। পর পর ১৬ বার ছুরি মেরে হত্যার চেষ্টা করে তারা। তবে প্রাণে বেঁচে যান বাবা। বর্তমানে তিনি হায়দরাবাদের ওসামানিয়া হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

জানা যায়, ২০০৭-এর ২৫ আগস্ট সন্ধ্যায় ভয়াবহ জোড়া বিস্ফোরণে কেঁপে ওঠে হায়দরাবাদ শহর। কারও হাত উড়ে গেছে, কারও পা। কেউ বা ঘটনাস্থলেই মারা গেছেন। রক্ত, হাহাকার আর আর্তনাদের মধ্যেই অঝোরে কেঁদে চলেছে ছোট্ট এক শিশুকন্যা। এক দম্পতি ওই এলাকা দিয়ে যাওয়ার সময় পরম আদরে কোলে তুলে নিয়েছিলেন সেই শিশুকে।

সেই পালিত মা-বাবার পরম আদরের শিশুই এখন অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী সোনিয়া। কিন্তু সেই মেয়েকে প্রথম দত্তক নেয়া থেকে শুরু আজ পর্যন্ত আতঙ্ক পিছু ছাড়েনি হায়দরাবাদের ওই দম্পতির।

ঘটনাচক্রে সেই শিশু ছিল মুসলিম। আর পালিত বাবা-মা হিন্দু দম্পতি। শুধু এই ‘অপরাধ’-এই গোড়া থেকে হুমকি দিয়ে আসছিল হিন্দু-মুসলিম সম্প্রদায়ের কট্টরপন্থীরা। কিন্তু এবার আর হুমকি নয়, প্রাণে মারতে দুষ্কৃতরা নৃশংস হামলা চালায় ওই শিশুর বাবার ওপর। পর পর ১৬ বার ছুরি মেরে হত্যার চেষ্টা করা হয় তাকে। তবে প্রাণে বেঁচে গেছেন বাবা পাপালাল রবিকান্ত। কিন্তু এ হামলার পরও পাপালাল নিজের অবস্থানে অনড়, কোনো কিছুর বিনিময়েই মেয়েকে ছাড়বেন না তিনি।

বাবা পাপালাল জানান, বহুবার বিভিন্ন গোষ্ঠীর লোকজন হুমকি দিয়েছেন। বাড়িতেও হামলা হয়েছে। পুলিশে জানিয়েও মেলেনি নিরাপত্তা। কিন্তু কোনো অবস্থাতেই পিছিয়ে আসেননি পাপালাল। আদর করে নাম রাখেন সোনিয়া। বর্তমানে হায়দরাবাদের নামি একটি বেসরকারি স্কুলে অষ্টম শ্রেণিতে পড়াশোনা করছে সোনিয়া। স্বপ্ন দেখে, বড় হয়ে পুলিশ অফিসার হবে।

পাপালাল বলেন, সোনিয়া পরিবারে খুশির জোয়ার নিয়ে এসেছে। আমরা হিন্দু-মুসলিম মানি না। আমরা মানবতার ধর্মে বিশ্বাস করি। যত কিছুই হোক আমার বড় মেয়ে সোনিয়াকে ছাড়তে পারব না।

সোনিয়ার পালক মা জয়শ্রী দেবী জানান, শুধু আমরা নই, ধর্মের কারণে ওই নিষ্পাপ শিশুকেও মানসিক অত্যাচার সহ্য করতে হচ্ছে। আমরা সবাই মানুষ। একই রক্ত বইছে সবার শরীরে। আমাদের যদি কোনো সমস্যা না থাকে, তা হলে সমাজ প্রশ্ন তোলার কে?

২০০৭-এর ২৫ আগস্ট সন্ধ্যায় ভয়াবহ জোড়া বিস্ফোরণে কেঁপে ওঠে হায়দরাবাদ শহর। গোকুল চাট ও লুম্বিনি পার্কে প্রায় একই সময়ে দুটি বোমা বিস্ফোরণে হয় নিজামের শহরে। মৃত্যু হয় কমপক্ষে ৪২ জনের। সেই সময়ই গোকুল চাটের ওই এলাকা দিয়ে যাচ্ছিলেন পাপালাল ও তার স্ত্রী জয়শ্রী।

গোকুল চাটের কাছাকাছি বছর দুয়েকের একটি শিশুকন্যাকে কাঁদতে দেখে কোলে তুলে নেন জয়শ্রী দেবী। বেশ কিছু দিন পরও কেউ দাবিদার না থাকায় ওই মেয়েটিকেই দত্তক নেন ওই দম্পতি। কিন্তু কাকতালীয়ভাবে ওই শিশুটি ছিল মুসলিম পরিবারের। তাই হিন্দু ও মুসলিম উভয় সমাজ থেকে তখন প্রশ্নে তোলা হয়, কেন হিন্দুর ঘরে মুসলিম শিশুকন্যা লালন-পালন হবে।