রাশিয়াকে গুঁড়িয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন উরুগুয়ে

নিউজ ডেস্ক:স্বাগতিক রাশিয়াকে থামাল উরুগুয়ে। সোমবার বিশ্বকাপে গ্রুপের শেষ ম্যাচে রুশদের ৩-০ গোলে হারিয়ে ‘এ’ গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন হয়ে নকআউটে উঠল তারা। গ্রুপে তিন ম্যাচের সবগুলো জিতেছে দুইবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা।

৯ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপের শ্রেষ্ঠ দল উরুগুয়ে। রাশিয়া ৬ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপের দ্বিতীয় দল। শেষ ষোলোতে উরুগুয়ানরা লড়বে ‘বি’ গ্রুপের রানার্সআপকে, আর গ্রুপের চ্যাম্পিয়নকে মোকাবিলা করবে রাশিয়া।

প্রথম দুই ম্যাচে ৮ গোল করে জেতায় ফেভারিট হিসেবে সামারা অ্যারেনায় উরুগুয়ের ‍মুখোমুখি হয়েছিল রাশিয়া। তাছাড়া মুখোমুখি লড়াইয়েও এগিয়ে ছিল রুশরা। আগের ৮ বারের দেখায় ৬টি ম্যাচ জেতে তারা। কিন্তু রুশদের বিপক্ষে ১৯৭০ সালের বিশ্বকাপে সবশেষ জয় পাওয়া উরুগুয়ে এদিন পাওয়া সুযোগ কাজে লাগাল দারুণভাবে।

ম্যাচের দ্বিতীয় মিনিটে মাতিয়াস ভেসিনো মাঝমাঠ থেকে রাশিয়ার প্রান্তে আক্রমণ চালান। বেশ দূর থেকে লক্ষ্যে শট নেন তিনি। কিন্তু উরুগুয়ান মিডফিল্ডারের শট গোলবারের পাশ দিয়ে চলে যায়।

১০ মিনিটে ইউরি গাজিনিস্কি বক্সের ঠিক বাইরে ফাউল করেন রদ্রিগো বেনতানকুরকে। ফ্রি কিক পায় উরুগুয়ে। ছোট ডিবক্স থেকে চমৎকার কিকে ডান দিক দিয়ে জালে বল পাঠিয়ে দলকে এগিয়ে নেন লুই সুয়ারেস। রুশ গোলরক্ষক ইগোর আকিনফেভের ধরাছোঁয়ার বাইরে ছিল বল। ৩ মিনিট পর উরুগুয়ের জার্সিতে শততম ম্যাচ খেলতে নামা ফের্নান্দো মুসলেরা কঠিন পরীক্ষা দিয়ে সফল হন। আরতিম জিউবার নিচু হেডে দেনিস চেরিশেভ জোরালো শট নিয়েও উরুগুয়ান গোলরক্ষকের কাছে পরাস্ত হন।

দারুণ ফ্রি কিকে উরুগুয়েকে এগিয়ে দেন সুয়ারেসরাশিয়াকে হতাশ করে ২৩ মিনিটে আবার উল্লাসে মাতে উরুগুয়ে। কর্নার থেকে পাওয়া বলে ২৫ গজ দূর থেকে শট নেন দিয়েগো ল্যাক্সাল্ট। সামনে বাধা হয়ে দাঁড়ান চেরিশেভ, কিন্তু তার পায়ে বল লেগে ঠিকই জালে জড়ায়। এই বিশ্বকাপে স্বাগতিকদের ফর্মে থাকা মিডফিল্ডারের আত্মঘাতী গোলে ব্যবধান দ্বিগুণ করে উরুগুয়ে।

রাশিয়ার জন্য আরও বড় ধাক্কা অপেক্ষা করছিল। ২৮ ও ৩৮ মিনিটে দুটি হলুদ কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন ইগোর স্মোলনিকোভ। বাকি সময় ১০ জনের দল নিয়ে খেলতে হয়েছে স্বাগতিকদের।

দ্বিতীয়ার্ধেও সুযোগ পাওয়ায় এগিয়ে ছিল প্রথম বিশ্বকাপের চ্যাম্পিয়নরা। রাশিয়াও কম চেষ্টা করেনি। ৭৪ মিনিটে মুসলেরা বলের দখল হারালে জিউবা কাট ব্যাক করেছিলেন, কিন্তু তার বাঁ পায়ের শট লক্ষ্যভ্রষ্ট হলে আবার আক্ষেপে পোড়ে স্বাগতিকরা। এদিনসন কাভানি ৮০ মিনিটে গোলমুখের সামনে দারুণ একটি সুযোগ পেয়েও উরুগুয়ের তৃতীয় গোল করতে পারেননি। ৮২ মিনিটে আকিনফেভ ঠেকান ক্রিস্টিয়ান রদ্রিগেজকে। খেলা শেষ হওয়ার ৪ মিনিট আগে কাভানির শট আবারও ব্যর্থ হয় ক্রসবারে লেগে। অবশেষে পিএসজি স্ট্রাইকার পান গোলের দেখা। কর্নার থেকে দিয়েগো গোদিন অনেক উঁচুতে লাফিয়ে হেড করেছিলেন, আকিনফেভ সেটা ঠেকান। কিন্তু ফিরতি শটে কাভানি লক্ষ্যভেদ করেন।

টানা দুই ম্যাচে মাত্র ১-০ গোলে জেতা উরুগুয়ে এবার বড় জয়ের আত্মবিশ্বাস নিয়ে পা রাখছে শেষ ষোলোতে।