সড়ক দুর্ঘটনা রোধে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা

নিউজ ডেস্ক: সড়ক দুর্ঘটনা রোধে চালকদের প্রশিক্ষণসহ পাঁচটি নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সোমবার সচিবালয়ে মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে এসব নির্দেশনা দেন। বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী। বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর পাঁচটি নির্দেশনা হলো-

১. চালক ও হেলপারদের (সহকারী) প্রশিক্ষণ প্রদান করতে হবে।
২. দূরপাল্লার বাসযাত্রায় বিকল্প চালক রাখতে হবে। এক্ষেত্রে পাঁচ ঘণ্টা পর পর চালক পরিবর্তন করতে হবে।
৩. চালক ও যাত্রীদের সিটবেল্ট বাঁধা বাধ্যতামূলক করতে হবে।
৪. চালকদের জন্য মহাসড়কের পাশে বিশ্রামাগার রাখতে হবে।
৫. এবং অবশ্যই সিগন্যাল মেনে চলতে হবে।

বিকল্প চালকের ব্যবস্থা প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আন্তর্জাতিক পর্যায়ে স্বীকৃত নিয়ম হচ্ছে, দূরের যাত্রায় একজন চালক একটানা পাঁচ ঘণ্টার বেশি গাড়ি চালাতে পারবেন না।

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল ও নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান এসব নির্দেশনা কার্যকরের বিষয়টি তদারকি করবে বলেও জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব।

তিনি বলেন, ঈদের পর বেশ কিছু সড়ক দুর্ঘটনার প্রেক্ষাপটে প্রাণহানির ঘটনা নিয়ে বৈঠকে আলোচনা হয়। এছাড়া সভায় সার (ব্যবস্থাপনা) (সংশোধন) আইন-২০১৮-এর খসড়া অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এতে নিবন্ধন ছাড়া সার উৎপাদন, বিক্রি ও বিপণনের সাজা বাড়ানো হয়েছে। এক্ষেত্রে বিদ্যমান আইনে ছয় মাস কারাদণ্ড ও ৩০ হাজার টাকা অর্থদণ্ডের বিধান রয়েছে। এখন প্রস্তাবিত আইনে দুই বছরের কারাদণ্ড ও পাঁচ লাখ টাকা অর্থদণ্ডের বিধান রাখা হয়েছে। একই সঙ্গে সভায় জাতীয় দক্ষতা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ আইন ২০১৮-এর খসড়া অনুমোদন দেওয়া হয়।