ডাবুয়া খালের ব্রিজ ভাঙ্গায় দুর্ভোগে এলাকাবাসী

রাউজান প্রতিনিধি: রাউজানের হলদিয়া ইউনিয়নের পূর্ব সীমান্তে ডাবুয়া খালের উপর কৃষি নির্ভর জনপদের ব্রীজ ভেঙ্গে যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন রয়েছে। সোমবার (১১ জুন) প্রবল বর্ষণ ও পাহাড়ী ঢলে সৃষ্ট ভয়াবহ বন্যায় এটি সম্পূর্ণ দ্বি-খন্ডিত হয়ে যায়। যদিওবা ব্রীজটি ধসে গিয়েছিল। ব্রীজ ভেঙে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়ায় দুর্ভোগে পড়েছেন কৃষিজীবি, শিক্ষার্থীসহ সাধারণ মানুষ। ব্রীজটি নতুনভাবে নির্মাণের আশ্বাস দিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন।

জানা গেছে, যে এলাকায় ব্রিজটির অবস্থান ; সেই এলাকার প্রায় নব্বই শতাংশ মানুষ কৃষি নির্ভর। তাদের জীবন চলে মৌসুমী চাষাবাদের উপর। সবজি ফলনের এই ভরা মৌসুমে এখনকার শত শত কৃষিজীবি ব্রিজটির কারণে ক্ষয়-ক্ষতির সম্মূখিন হচ্ছে। এলাকা ঘুরে দেখা যায়, ডাবুযা খালের উভয় পাশে কয়েক শত একর জমিতে আবাদ হয়েছে মৌসুমী সবজি। অনেকেই তাদের উৎপাদিত সবজি বিক্রি করে ঈদের কেনাকাটা করার কথা ছিল।

ঈদের বাকী মাত্র ৪/৫দিন। ব্রীজটি দীর্ঘদিন ধরে অকেজু অবস্থায় পড়ে থাকলেও এলাকার মানুষ চলাফেরা করতো পারতো। ব্রীজটির শেষ রক্ষা হলো না। অবশেষে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়েছে। খালের পূর্ব পার্শ্বের গ্রাম ডাবুয়া আলীরখীল, আরো পূর্বে পার্বত্য উপজেলা কাউখালী উপজেলায় শত শত একর ফসলী জমি। তাদের উৎপাদিত মৌসুমে ফসল বাজারজাতের জন্য নিতে হয় এই ব্রিজটি পাড় হয়ে। এখন এই ব্রিজটির উপর দিয়ে ফসল নিয়ে বাজারে যেতে পারবে না কৃষকরা।

আলীখীল গ্রামের কৃষক সুমন উদ্দিন জানিয়েছেন ২০১৭ সালের বর্ষা মৌসুমে পাহাড়ী পানির স্রোতে এই গুরুত্বপূর্ণ ব্রিজ মধ্যখানে ভেঙে ধসে যায়। তবে ব্রীজের উপর দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে হলেও চলাচল করা যেতো। সর্বশেষ সোমবার (১১ জুন) পুনরায় পানির স্রোতের সাথে পাহাড় থেকে ভেসে আসা গাছ বাঁশ ব্রিজেটির মধ্যখানে পিলারে আঘাত করলে দ্বিÑখন্ডিত হয়ে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। স্থানীয় এয়াছিন নগরের বাসিন্দা কৃষিজীবিরা বলেছেন তাদের ফসলী জমির উৎপাদিত ফলমুল বাজারজাত করা নিয়ে এখন দুঃচিন্তায় আছেন। ভাঙ্গা ব্রীজটি সোমবার (১১ জুন) পরির্দশণ করেন রাউজান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শামীম হোসেন রেজা।

প্রিন্স, ঢাকা