মাদকবিরোধী অভিযানে জনগণেরও সমর্থন আছে: নাসিম

নিউজ ডেস্ক: চলমান মাদকবিরোধী অভিযানকে সমর্থন জানিয়েছে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দল। এ অভিযান অব্যাহত রাখার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়ে ১৪ দলের মুখপাত্র ও আওয়ামী লীগ সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, এ অভিযানের প্রতি জনগণেরও পূর্ণ সমর্থন রয়েছে। এর পেছনে সরকারের কোনো রাজনৈতিক উদ্দেশ্য নেই।

বুধবার আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ধানমণ্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে ১৪ দলের বৈঠকে এ সমর্থন জানানো হয়। এ সময় নেতারা বলেন, মাদকবিরোধী অভিযান সম্পর্কে বিএনপির সমালোচনা উদ্দেশ্যমূলক। তারা প্রতিটি ভালো পদক্ষেপেই নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া দেখায়।

বৈঠকের পর সংবাদ সম্মেলনে ১৪ দলের মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিম বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জঙ্গি দমনের মতো মাদকবিরোধী অভিযানের সাহসী সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। দেশের জনগণের পাশাপাশি ১৪ দলও এ অভিযানকে পূর্ণ সমর্থন দান করেছে। তিনি বলেন, রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে মাদকবিরোধী অভিযান পরিচালনা হচ্ছে না। লক্ষ্য অর্জন না হওয়া পর্যন্ত এই অভিযান চলবে। মাদকের সঙ্গে জড়িতরা কেউ ছাড় পাবে না।

আগামী জাতীয় নির্বাচনে সেনাবাহিনী মোতায়েনের বিষয়ে মোহাম্মদ নাসিম বলেন, নির্বাচন কমিশন প্রয়োজন মনে করলে আইন অনুযায়ী সেনাবাহিনী নিয়োজিত করবে। অর্থাৎ আইন মেনেই নির্বাচনে ইসি সেনাবাহিনী মোতায়েন করার সিদ্ধান্ত নেবে।

বৈঠকে সফল ভারত সফরের পরিপ্রেক্ষিতে এবং পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান জেলার আসানসোলে অবস্থিত কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সম্মানসূচক ডি-লিট ডিগ্রি পাওয়াতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানানো হয়। একই সঙ্গে আগামী ৭ জুলাই ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে প্রধানমন্ত্রীর গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়ার জন্য ১৪ দলের নেতাকর্মীদের অনুরোধ করা হয়। সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়, ২৩ জুন আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে নবনির্মিত দলীয় কার্যালয়ের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ১৪ দল যোগ দেবে।

বৈঠকের শুরুতে ন্যাপের (মোজাফ্‌ফর) সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ নজরুল মজিদ বেলালের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করা হয়।

গণআজাদী লীগের সভাপতি এস কে শিকদারের সভাপতিত্বে এ বৈঠকে আরও উপস্থিত ছিলেন দিলীপ বড়ূয়া, রেজাউর রশিদ খান, ডা. শাহাদাৎ হোসেন, আনিসুর রহমান মল্লিক, নাজমুল হক প্রধান, ডা. অসীত বরণ রায়, আতাউল্লাহ খান, এজাজ আহমেদ মুক্তা, ইসমাইল হোসেন, নাদের চৌধুরী, জাহাঙ্গীর কবির নানক, আহমদ হোসেন, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, আবদুস সোবহান গোলাপ, আবদুস সাত্তার প্রমুখ।