পাকিস্তানকে হারিয়ে দিল বাংলাদেশ

নিউজ ডেস্ক: নারী এশিয়া কাপের শুরুটা ভালো হয়নি বাংলাদেশের। রোববার উদ্বোধনী দিনে শ্রীলঙ্কার কাছে ৬ উইকেটে হার মেনেছে বাংলাদেশ। আজ সোমবার নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচেই ঘুরে দাঁড়িয়েছে সালমা-রুমানারা। পাকিস্তানকে হারিয়েছে ৭ উইকেটের ব্যবধানে।

সোমবার কুয়ালালামপুরের কিনরারা একাডেমি ওভালে টস জিতেন বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক সালমা খাতুন। তিনি ব্যাট করতে আমন্ত্রণ জানান পাকিস্তানকে। নির্ধারিত ২০ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে ৯৫ রান করে পাকিস্তান। ব্যাট হাতে পাকিস্তানের সানা মীর ২৩ বলে ২ চারে সর্বোচ্চ ২১* রান করেন। ১৮ রান করেন জাভেরিয়া খান। ১৭* রান করেন নিদা দার। নাহিদা খান করেন ১৩ রান আর অধিনায়ক বিশমাহ মারুফ করেন ১১টি রান।

বল হাতে বাংলাদেশের নাহিদা আক্তার ৪ ওভারে ২৩ রান দিয়ে ২ উইকেট নেন। ১টি করে উইকেট নেন সালমা খাতুন, ফাহিমা খাতুন ও রুমানা আহমেদ।

৯৬ রানের জয়ের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ১৪ রানেই উইকেট হারায় বাংলাদেশের মেয়েরা। ১২ বল খেলে ৫ রান করে ফিরে যান আয়শা রহমান। ২৫ রানের মাথায় দ্বিতীয় উইকেট হারিয়ে ধাক্কা খায় বাংলাদেশ। এ সময় ফিরে যান ফারজানা হক। তিনি ৮ বল খেলে ২ রানের বেশি করতে পারেননি। তৃতীয় উইকেটে জুটি বাঁধেন শামীমা সুলতানা ও নিগার সুলতানা। তারা দুজন ৩৬ রান তুলে দলকে জয়ের বন্দরের দিকে নিয়ে যান। ৬১ রানের মাথায় শামীমা আউট হন। যাওয়ার আগে ৩৩ বলে ৩ চারে ৩১ রান করে যান।

এরপর ফাহিমা খাতুনকে নিয়ে দলকে জিতিয়ে মাঠ ছাড়েন নিগার। চতুর্থ উইকেটে তারা দুজন ৩৫ রান ‍তুলে দলকে জয় উপহার দেন। ফাহিমা ১৯ বলে ১ চারে ২৩ রানে অপরাজিত থাকেন। তার সঙ্গে ৩৫ বল খেলে ৩ চারে ৩১ রানে অপরাজিত থাকেন নিগার সুলতানা।

বল হাতে ৪ ওভারে ১৮ রান দিয়ে ১ উইকেট ও ব্যাট হাতে ১৯ বলে অপরাজিত ২৩ রান করে ম্যাচসেরা হন বাংলাদেশের ফাহিমা খাতুন।

৬ জুন তৃতীয় ম্যাচে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ ভারত। ৭ জুন চতুর্থ ম্যাচ খেলবে থাইল্যান্ডের বিপক্ষে। আর ৯ জুন শেষ ম্যাচে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ স্বাগতিক মালয়েশিয়া।

এবারের এই মহিলা এশিয়া কাপে ভারত, পাকিস্তান, বাংলাদেশ, শ্রীলঙ্কা, মালয়েশিয়া ও থাইল্যান্ড নারী ক্রিকেট দল অংশ নিয়েছে। লিগ পদ্ধতিতে খেলা হচ্ছে। পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে থাকা দুটি দল ফাইনাল খেলবে।