স্বাধীনতার চেতনায় ফুটবলে জোয়ার আনতে হবে: তথ্যমন্ত্রী

তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, ‘দেশের ইতিহাস ও স্বাধীনতার সাথে ফুটবল ক্রীড়াঙ্গন একাত্ম হয়ে মিশে রয়েছে। একাত্তরে স্বাধীন বাংলা ফুটবল দল ভারতে ম্যাচ খেলে মুক্তিযুদ্ধে অর্থযোগান দিয়েছিল। স্বাধীনতার মন্ত্রে উজ্জীবিত হয়েই আমাদের ফুটবলে নতুন করে জোয়ার আনতে হবে।’

আজ রাজধানীর ডিআইটি এভিনিউয়ে বাংলাদেশ অলিম্পিক এসোসিয়েশন মিলনায়তনে ক্রীড়াসাংবাদিক মাসুদ আলমের ‘ফুটবলের গল্প, ফুটবলারদের গল্প’ গ্রন্থের রঙিন দ্বিতীয় সংস্করণ প্রকাশনা উৎসবে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় মন্ত্রী একথা বলেন।

সাবেক স্বাধীন বাংলা ফুটবল দলের কৃতী অধিনায়ক জাকারিয়া পিন্টু, বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সভাপতি কাজী মোঃ সালাউদ্দিনসহ ক্রীড়াঙ্গন প্রতিনিধিদের এদিনের আসরে মন্ত্রী বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে দেশের সকলে যার যার জায়গা থেকে স্বাধীনতা সংগ্রামে অংশ নিয়েছে।’

‘শিক্ষক তার ক্লাসে, কবি তার কলমে, গেরিলাযোদ্ধা তার আক্রমণে, ফুটবলার তার খেলায়, কৃষক তার জমিতে, বৈমানিক তার বিমানে, নাবিক তার জাহাজে -এমন করে দেশের সকল মানুষ স্বাধীনতা আর মুক্তিযুদ্ধে তাদের অবদান রেখেছে’ উল্লেখ করে মুক্তিযুদ্ধে দশ হাজার গেরিলাযোদ্ধার প্রশিক্ষক হাসানুল হক ইনু বলেন, ‘সেই ইতিহাস জড়ানো সকল বিষয়ই যত্নের দাবিদার। ফুটবলও এর অংশ।’

‘সবচেয়ে কম খরচে যে অনন্য ক্রীড়া সারা দেশের মানুষের জনপ্রিয়, তা ফুটবল। তাই ফুটবলে মন্দাভাব থাকা যাবে না, উত্তরণে সবাইকে একযোগে কাজ করতে হবে’, বলেন সাবেক কৃতী ফুটবলার ইনু।

বইটির লেখক দৈনিক প্রথম আলোর বিশেষ সংবাদদাতা মাসুদ আলমের প্রশংসা করে মন্ত্রী বিগত ছয় দশকের একশ’ ফুটবলারের ডায়েরিস্বরূপ এ গ্রন্থটি সকলকে পড়ে দেখার অনুরোধ জানান।

তথ্যমন্ত্রী এসময় স্বাধীনতাপূর্ব জাতীয় ফুটবল দলে গোলরক্ষক হিসেবে নিজের খেলাকালের স্মৃতিচারণ করে স্টপার ও মধ্যমাঠের খেলোয়াড় জাকারিয়া পিন্টুর দুর্দান্ত দক্ষতার কথা ও কাজী মোঃ সালাউদ্দিনের জনপ্রিয়তার কথাও স্মরণ করেন।

প্রিন্স, ঢাকা নিউজ২৪