গণতন্ত্র রক্ষা করতে জাতীয় ঐক্য প্রয়োজন: ফখরুল

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, আজকে গণতন্ত্রকে যেভাবে লুট করা হয়েছে, মানুষের অধিকারগুলোকে যেভাবে হরণ করা হয়েছে, তাতে কেউ নিরাপদ নই। এই অবস্থায় ঐক্যবদ্ধ হতে না পারলে জাতি ক্ষমা করবে না। দেশের বর্তমান অবস্থা, কেবল কোনো ব্যক্তি বা দল নয়, গোটা জাতির জন্যই হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে।

রাজধানীর একটি হোটেলে রোববার নাগরিক ঐক্য আয়োজিত এক ইফতার মাহফিলে তিনি এ কথা বলেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া কারাগারে যাওয়ার আগে বলে গিয়েছিলেন, আজকে গণতন্ত্রকে রক্ষা করতে হলে জাতীয় ঐক্য প্রয়োজন। এই জাতীয় ঐক্য সৃষ্টি করার জন্য সব দলের প্রতি, সব নেতার প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিকল্প ধারা বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট ডা. একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরী বলেন, দেশের অর্থনৈতিক ব্যবস্থাসহ সব সেক্টর দুর্নীতির কারণে আজ ধ্বংসের মুখে। এ কারণে ভবিষ্যতে যারাই ক্ষমতায় আসতে চান, তাদের বুঝে শুনে চলতে হবে। যারা ক্ষমতায় আসতে চান, তারা যেন বুঝতে পারেন দেশের মানুষ দুর্নীতিকে ঘৃণা করে। নিজের যুক্তফ্রন্ট জোটের দিকে ইঙ্গিত করে বদরুদ্দোজা চৌধুরী বলেন, তাদের পেছনে সংহত হতে হবে, তাদের পেছনে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।

কারাবন্দি খালেদা জিয়ার প্রতি ইঙ্গিত করে সাবেক এই রাষ্ট্রপতি বলেন, সুপ্রিম কোর্টের রায় মানা হয় না, হাইকোর্টের ভেতরে রায় মানা হয় না। রায়ের অধীনে যে বক্তব্য দেওয়া হয়, সেই বক্তব্যে মানুষকে মুক্তি দেওয়া হয় না। বাংলাদেশের মানুষ জেগে উঠেছে। এই জাগরণের সঙ্গে সবাইকে থাকতে হবে।

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জেএসডির সভাপতি আ স ম আবদুর রব সরকারের দুর্নীতির অপশাসনের বিরুদ্ধে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান।

নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, দেশে এখন একটা নির্মমতার চাষ হচ্ছে, ভয়ের সংস্কৃতি চালু করার চেষ্টা করা হচ্ছে।

ইফতার অনুষ্ঠানে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, আবদুল মঈন খান, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি সুব্রত চৌধুরী, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক, সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী শাহদীন মালিক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক অধ্যাপক আসিফ নজরুল প্রমুখ ইফতারে ছিলেন