রাজীবের ক্ষতিপূরণ দেওয়ার আদেশ স্থগিত

নিউজ ডেস্ক: বেপরোয়া দুই বাসের রেষারেষিতে হাত হারানোর পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যাওয়া তিতুমীর কলেজছাত্র রাজীব হোসেনের ভাইদের কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়ার হাইকোর্টের রায় স্থগিত করেছেন আপিল বিভাগ।

একই সঙ্গে ৩০ জুনের মধ্যে হাইকোর্টের গঠিত তদন্ত কমিটির মাধ্যমে দুর্ঘটনার প্রকৃত দোষীদের খুঁজে বের করতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। কমিটি যে প্রতিবেদন দেবে, তার ভিত্তিতে রাজীবের দুই ভাইকে ক্ষতিপূরণ নির্ধারণ করে দিতে হাইকোর্টকে নির্দেশ দিয়েছে আপিল বিভাগ।

মঙ্গলবার প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে চার সদেস্যর আপিল বিভাগের বেঞ্চ এ আদেশ দেন। আদালতে বাস মালিকদের পক্ষে আইনজীবী ছিলেন আবদুল মতিন খসরু ও এ বি এম বায়েজীদ। রাজীবের পরিবারের পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল।

গত ৩ এপ্রিল রাজধানীর কারওয়ান বাজার এলাকায় দুই বাসের রেষারেষিতে রাজীবের একটি হাত শরীর থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। এরপর ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত ১৬ এপ্রিল মারা যান তিনি। এ ঘটনায় ক্ষতিপূরণের দাবিতে আদালতে রিট করেন আইনজীবী রুহুল কুদ্দুস কাজল।

গত ৮ মে বিচারপতি সালমা মাসুদ চৌধুরী ও বিচারপতি এ কে এম জহিরুল হকের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ রাজীবের পরিবারকে এক কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়ার নির্দেশ দেন। রাষ্ট্রীয় পরিবহন সংস্থা বিআরটিসি ও বেসরকারি পরিবহন কোম্পানি স্বজন পরিবহন কর্তৃপক্ষকে এই টাকা পরিশোধ করতে বলা হয়। এর মধ্যে অর্ধেক টাকা আগামী এক মাসের মধ্যে পরিশোধের নির্দেশ দিয়েছিলেন আদালত।