শ্রীদেবীর মৃত্যুর পেছনে বীমার ২৪০ কোটি রুপি!

বলিউড অভিনেত্রী শ্রীদেবীর মৃত্যু স্বাভাবিক হয়নি। অভিনেত্রীর মৃত্যুর তিন মাস পর একটি সত্য জানা গেল। যাকে ঘিরে এখন এই মৃত্যু রহস্য অন্যদিকে মোড় নিচ্ছে। চলচ্চিত্র নির্মাতা সুনীল সিং তার আইনজীবীর বিকাশ সিংয়ের মাধ্যমে একটি তথ্য দিয়েছেন। বিকাশ সিং বলেন, শ্রীদেবীর ওমানে ২৪০ কোটি রুপির একটি বীমা করে ছিলেন। শ্রীদেবী মারা গেলে বীমার টাকা তার স্বামী বনি কাপুর পাবে। এটা সবাই জানত। তবে একটা শর্ত ছিল সেই বীমার। যেখানে বলা হয়েছিল শ্রীদেবীর মৃত্যু যদি সংযুক্ত আরব আমিরাতে হয় তবেই সেই টাকা তার স্বামী বনি কাপুর পাবে।

আর এটা নিয়েই এখন রহস্য ঘুরপাক খাচ্ছে।তবে কি বীমার টাকা পেতেই বনি কাপুর শ্রীদেবীকে মেরে ফেলল? সবাই জানে শ্রীদেবী মৃত্যু ঘিরে নানা রকম মিথ্যা তথ্য ছড়ানো হয়েছে মিডিয়ায়। প্রথমে বলা হল তিনি হার্ট অ্যাটাকে মারা গেছেন। পরে জানা গেল অতিরিক্ত মদ্যপানে পানিতে ডুবে মৃত্যু। পরে ফরেনসিক তদন্ত প্রতিবেদন এর কোনোটাই সত্য প্রমাণিত হয়নি। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনে জানা গেল শ্বাস রোধে তার মৃত্যু হয়েছে। তার দেহে সামান্য মদের অস্তিত্ব পাওয়া গেছে। বিজেপি নেতা সুব্রামনিয়ান সোয়ামী শ্রীদেবীর মৃত্যু নিয়ে প্রথম থেকেই সন্দিহান ছিলেন।

শ্রীদেবীর পারিবারিক বন্ধু ছিলেন অমর সিং। তিনি বলেন সবাই জানে শ্রী দেবী স্বাস্থ্য সচেতন ছিলেন। তিনি কখনই অতিরিক্ত মদ পান করতেন না। তাই মদ পান করে পানিতে ডুবে মারা যাননি তিনি। আবার যেই বাথটাবে ডুবে মৃত্যুর কথা বলা হচ্ছে, সেই বাথটাব লম্বায় ৫ ফুট। আর শ্রী দেবীর উচ্চতা ৫ ফুট ৭ ইঞ্চি। কীভাবে বাথটাবে ডুববেন তিনি? এটাও ভাবাচ্ছে অনেককে। তবে বলিউড পাড়ার অভিজাত শ্রেণিতে শ্রীদেবী সুখি ছিলেন না।

ক্যামেরায় তাকে যেভাবে দেখানো হয়েছে তার উল্টোটাই ছিল বাস্তব জীবনে। বলিউডের নোংরা রাজনীতির শিকার হয়েছেন শ্রীদেবী। তার মৃত্যু তদন্তকে ধামাচাপা দেয়া হয়েছে উচ্চ মহলের সুপারিশে। এমনটাই বলা হচ্ছে ভারতীয় গণমাধ্যমে। নিজের মৃত্যু ন্যায় বিচার পেলেন না এই হতভাগা শিল্পী। সূত্র : নিউজ টাইমস

ভাষান্তর: সুমন দত্ত