গ্যাসের দাম বৃদ্ধির প্রস্তাবে গণশুনানি ১১-২১ জুন

 

নিউজ ডেস্ক : এলএনজি (তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস) আমদানির ফলে গ্যাসের দাম বাড়ানোর আনুষ্ঠানিক প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। বিতরণ কোম্পানিগুলোর দামবৃদ্ধির প্রস্তাবের ওপর গণশুনানি আহ্বান করেছে এই খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি)। আগামী ১১ জুন থেকে শুরু হওয়া এই শুনানি শেষ হবে ২১ জুন। মোট সাত দিন শুনানি অনুষ্ঠিত হবে। শুনানিতে অংশ নেয়ার জন্য আগামী ৩১ মে’র মধ্যে নাম তালিকাভুক্তি কিংবা শুনানিপূর্ব লিখিত বক্তব্য-মতামত কমিশনে পাঠাতে হবে।

বিইআরসি’র ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা বলেন, এবারের শুনানির পর দ্রুতই গ্যাসের মূল্য সমন্বয়ের নতুন আদেশ জারি করবে কমিশন। গৃহস্থালি ও বাণিজ্যিক ছাড়া অন্য সব শ্রেণির গ্রাহকদের জন্য গ্যাসের বাড়তি দাম জুলাই মাস থেকে কার্যকর করার প্রাথমিক পরিকল্পনা রয়েছে। জুলাইয়ের প্রথম বা দ্বিতীয় সপ্তাহে মূল্যবৃদ্ধির বিজ্ঞপ্তি জারি করে তা ওই মাসেরই এক তারিখ থেকে কার্যকর করার চিন্তাভাবনা রয়েছে।

পেট্রোবাংলা সূত্র জানায়, বর্তমানে দেশে দৈনিক ৩৬০ কোটি ঘনফুট গ্যাস চাহিদার বিপরীতে সরবরাহ করা হচ্ছে ২৭৫ কোটি ঘনফুট গ্যাস। অর্থাত্ দৈনিক ৮৫ কোটি ঘনফুট গ্যাসের সংকট রয়েছে। এ সংকট ক্রমেই বাড়ছে। ঘাটতি দূর করতে এলএনজি আমদানি করা হচ্ছে। ইতোমধ্যে কক্সবাজারের মহেশখালীতে যুক্তরাষ্ট্রের এক্সিলারেট এনার্জি ভাসমান এলএনজি টার্মিনাল নির্মাণ সম্পন্ন হয়েছে। ফ্লোটিং স্টোরেজ অ্যান্ড রিগ্যাসিফিকেশন ইউনিটসহ এলএনজিবাহী জাহাজও সেখানে নোঙ্গর করে রাখা রয়েছে। চলতি মে মাসের শেষ সপ্তাহে এ গ্যাস জাতীয় গ্রিডে যুক্ত হওয়ার কথা রয়েছে।

বিইআরসির এক কর্মকর্তা বলেন, দেশে উত্পাদিত গ্যাসের চেয়ে এলএনজির দাম কয়েকগুণ বেশি। ব্যয়বহুল গ্যাস জাতীয় গ্রিডে যুক্ত করা হলে গ্যাসের গড় দাম বাড়বে। এই বর্ধিত দামের গ্যাস গ্রাহক পর্যায়ে পৌঁছাতে হলে সরকারকে হয় গ্যাসের দাম বাড়াতে হবে নয়তো ভর্তুকি দিতে হবে। তাই দামবৃদ্ধির পথই গ্রহণ করা হয়েছে।

কবে কার শুনানি: আগামী ১১ জুন গ্যাস ট্রান্সমিশন কোম্পানির (জিটিসিএল), ১৩ জুন তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির (তিতাস গ্যাস), ১৪ জুন বাখরাবাদ গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির, ঈদের ছুটির পর ১৮ জুন জালালাবাদ গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন সিস্টেমের, ১৯ জুন কর্ণফুলী গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির, ২০ জুন পশ্চিমাঞ্চল গ্যাস কোম্পানির এবং ২১ জুন সুন্দরবন গ্যাস কোম্পানির মূল্যবৃদ্ধির প্রস্তাবের উপর শুনানি অনুষ্ঠিত হবে। রাজধানীর কাওরান বাজারে ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি) ভবনে এ শুনানির আয়োজন করা হয়েছে। শুনানিতে ভোক্তা অধিকার সংগঠন, ব্যবসায়ী সংগঠন, শিল্পমালিক, ভোক্তা প্রতিনিধি, সুশীল সমাজ, রাজনৈতিক ব্যক্তিসহ বিভিন্ন অংশীজনরা মতামত তুলে ধরবেন বলে আশা করা হচ্ছে।